Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
১৯ আষাঢ় ১৪২৭, শুক্রবার ০৩ জুলাই ২০২০, ৮:৩০ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

কিস্তির টাকা নিয়ে বিপাকে নিন্ম আয়ের তিন লাখ গ্রাহক


২৪ মার্চ ২০২০ মঙ্গলবার, ০২:০৮  এএম

কাজী রকিবুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


কিস্তির টাকা নিয়ে বিপাকে নিন্ম আয়ের তিন লাখ গ্রাহক

যশোর : করোনা ভাইরাসের কারণে যশোরে নিন্ম আয়ের প্রায় তিন লাখ মানুষ বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার (এনজিও) কিস্তির টাকা দিতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন। ভুক্তভোগীরা আপদকালীন সময়ে কিস্তি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন।

জানা গেছে, যশোর জেলা ১০৪টি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা রয়েছে। এছাড়া রাজধানী বা অন্যান্য শহরের প্রতিষ্ঠিত সংস্থার যশোরে ক্রেডিট প্রোগ্রাম রয়েছে। এসময় সংস্থার বেশি ভাগ প্রতিষ্ঠানের ক্রেডিট প্রোগ্রাম বা ক্ষুদ্র ঋণ প্রকল্প রয়েছে। এসব সংস্থার মধ্যে গ্রামী ব্যাংকে দেড় লাখ, আশার প্রায় দেড় লাখ, ব্রাকের প্রায় ১ লাখসহ বিভিন্ন সংস্থার প্রায় নিন্ম আয়ের তিন লাখ গ্রাহক রয়েছে। প্রতি সপ্তাহে তাদের কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে বাধ্য থাকে।

অভিযোগ রয়েছে এসব সংস্থার কর্মীরা করোনা আতংকে আতংকিত হয়ে পড়েছে। তারা মাঠপর্যায়ে যেতে ভয় পাচ্ছেন। তারপর গ্রাহকরা কিস্তির টাকা দিতে পারছে না নিন্ম আয়ের গ্রাহকরা। আদ্ব-দ্বীনের ঋণগ্রাহক তাসলিমা খাতুন জানান, তার স্বামী রিকসা চালায়। করোনার কারণে সে শহরে গিয়ে রিকসা চালাতে পারছে না। এসময় ঘরে খাওয়ার তেমন নেই। দুই ছেলে মেয়ের সংসারে বেঁচে থাকা কঠিন হয়ে পড়েছে। সেক্ষেত্রে কিস্তির টাকা দেব কিভাবে। আর টাকা না দিয়ে সংস্থার মাঠকর্মীরা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ দেয়।

আশার গ্রাহক মণিরামপুরের নিলুফার ইয়াসমিন জানান, কাজ কর্ম একেবারে বন্ধ। আমি বা  আমার স্বামী কেউ কাজে যেতে পারছি না। যে কারণে কিস্তির টাকা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। একটি ছাগল ছিল তা দিয়ে দুই সপ্তাহের কিস্তি দিয়েছে। আগামীতে কিস্তি কিভাবে দেবো বুঝতে পারছিনা।

ব্যুরো বাংলাদেশের গ্রাহক রনজিতা পারভীন জানান, কাজকর্মে যেতে পারছি না। তাই সুদে টাকা এনে এক সপ্তাহের কিস্তি দিয়েছি। আগামী সপ্তাহ কিভাবে টাকা দেবো বুঝতে পারছি না। কাজকর্ম চললে কিস্তির টাকা নিয়ে ভাবা লাগতো না।

এভাবে অধিকাংশ গ্রাহক কিস্তির টাকা নিয়ে বিপাকে পড়েছে। বিপদকালীন সময়ে তাদের দুই সপ্তাহ বা তিন সপ্তাহে কিস্তি স্থগিতের দাবি করেছেন নিন্ম আয়ের গ্রাহকরা। নুপুর খানম নামে এক গ্রাহক জানান, দেশের অন্যান্য অঞ্চলে কিস্তির টাকা কয়েক সপ্তাহের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। যশোরে তা করা হয়নি। অথচ করোনার কারণে সব কাজ কর্ম বন্ধ রয়েছে। তাই তিনি আপদকালীন সময়ে কিস্তির টাকা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
Bay Leaf Premium Tea

অসঙ্গতি প্রতিদিন -এর সর্বশেষ