Bahumatrik | বহুমাত্রিক

সরকার নিবন্ধিত বিশেষায়িত অনলাইন গণমাধ্যম

শ্রাবণ ৯ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪

‘নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক সংলাপে যা বললেন বিশিষ্টজনরা

বহুমাত্রিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ০০:২২, ৭ এপ্রিল ২০২৩

প্রিন্ট:

‘নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক সংলাপে যা বললেন বিশিষ্টজনরা

ছবি- সংগৃহীত


‘নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন: অপরাজিতা ও নাগরিক সমাজ’ শীর্ষক একটি সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘অপরাজিতা: নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়নের সাথে যুক্ত সংস্থাসমূহের উদ্যোগে গত ৫ এপ্রিল (২০২৩) রাজধানীর সিক্স সিজন হোটেলে এই সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। 

বাংলাদেশের ছয়টি বিভাগ থেকে আসা ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ের বর্তমান, সাবেক ও আগামীর সম্ভাব্য নারী জনপ্রতিনিধি সহ স্থানীয় থেকে জাতীয় পর্যায়ে নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় তৎপর নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে আয়োজিত এই সংলাপে বক্তারা বলেন, বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীদের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রেখে তাদের ক্ষমতায়নের প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করতে গেলে সকল পর্যায়ে তাদের সবাইকে একজোট হয়ে কাজ করতে হবে। ‘অপরাজিতা’ প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থাসমূহের পক্ষে ডেমক্রেসিওয়াচ এর নির্বাহী পরিচালক ওয়াজেদ ফিরোজ প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। 

অপরাজিতা প্রকল্প বাস্তবায়নকারী অন্যতম সংস্থা খান ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক এডভোকেট রোখসানা খন্দকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সংলাপের শুরুর  দিকে ছয়টি বিভাগ থেকে আসা মোট ছত্রিশ জন নারীনেত্রীর পক্ষ থেকে প্রথমে তুলে ধরা হয়, কিভাবে তাঁদের অনেকে নিজেদের ‘অপরাজিতা’ নামে পরিচয় দিতে অভ্যস্ত হয়েছেন, এবং বিভিন্ন প্রতিকূলতা সত্ত্বেও তাঁরা কিভাবে স্থানীয় সরকারের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসাবে কাজ করার ক্ষেত্রে সংরক্ষিত আসনের গতি ছাপিয়ে সাধারণ আসনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন, এবং কিভাবে নানামুখী তৎপরতার মাধ্যমে তাঁরা স্থানীয় শাসন ব্যবস্থা ও উন্নয়ন প্রক্রিয়াকে অধিকতর নারীবান্ধব ও জনমুখী করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখে চলছেন। পাশাপাশি বিভিন্ন পরিসরে তাঁরা এখনো যেসব বাধার মুখোমুখি হচ্ছেন - যেমন সংরক্ষিত আসনের বাইরে নারীদেরকে জনপ্রতিনিধি হিসাবে দেখতে না চাওয়ার একটা ব্যাপক প্রবণতা, এবং গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২-এর নির্দেশনা সত্বেও রাজনৈতিক দলসমূহের বিভিন্ন কমিটিতে ৩৩% নারীর প্রতিনিধিত্ব না থাকা - সেগুলির কথা তুলে ধরেন, এবং এসব বাধা নিরসনে নাগরিক সমাজের সমর্থন ও উদ্যোগের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

'অপরাজিতা' হিসাবে নিজেদের পরিচয় দেওয়া তৃণমূল পর্যায়ের নারীনেত্রীদের প্রতি সংহতি জানিয়ে নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করছেন, এমন বিভিন্ন সংগঠনের সাথে যুক্ত যেসব বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ বক্তব্য দেন, তাঁদের মধ্যে ছিলেন পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান কাজী খলীকুজ্জামান আহমদ, আরোমা দত্ত এমপি, দি হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. বদিউল আলম মজুমদার, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের চেয়ারপারসন এ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্না, বেলার নির্বাহী পরিচালক রিজওয়ানা হাসান, ফেমার প্রেসিডেন্ট মুনিরা খাঁন, বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘের নির্বাহী পরিচালক রোকেয়া কবির, নিজেরা করির কো-অর্ডিনেটর খুশি কবীর, মহিলা পরিষদের ফওজিয়া মোসলেম, ইউমেন্স ফর ইউমেন্স জাকিয়া হাসান, ব্রতীর নির্বাহী পরিচালক শারমিন মোর্শেদ, এ্যাকশন এইইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারহ্া কবিরসহ প্রমুখ। সংলাপে বক্তারা বলেন, বিভিন্ন প্রতিকূলতা সত্ত্বেও মাঠ পর্যায়ের নারী নেত্রীদের হার না মানা মনোভাব তথা তাঁদের বিভিন্ন অর্জনের কাহিনি শুনে তাঁরা অনুপ্রাণিত বোধ করছেন, এবং তাঁরা এই অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন যে, নারীদের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে তাঁরা অপরাজিতাদের সাথে একজোট হয়ে কাজ করবেন যখন যেভাবে সম্ভব।  

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী সুইজারল্যান্ডের (এসডিসি-এর) সহায়তায় 'অপরাজিতা নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন' প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হয়ে আসছে ২০১১ সাল থেকে। ২০১৮ সালের অক্টোবর থেকে প্রকল্পটি নতুন আঙ্গিকে বাস্তবায়িত হচ্ছে হেলভেটাস সুইস ইন্টারকোঅপরারেশনের সার্বিক ব্যবস্থাপনায়, এবং চারটি সহযোগী সংস্থা  খান ফাউন্ডেশন, ডেমক্রেসিওয়াচ, প্রিপ ট্রাস্ট ও রূপান্তরের মাধ্যমে। শেষোক্ত চার সংগঠন মিলে ছয়টি বিভাগের ১৬টি জেলার ৬২টি উপজেলার সব কয়টি বা মোট ৫৪০টি ইউনিয়নে অপরাজিতা প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে, যার আওতায় এসব এলাকায় বর্তমানে 'অপরাজিতা' নামে নিজেদের পরিচয় দেওয়া সাড়ে আট হাজারের অধিক  সংখ্যক নারীনেত্রী সক্রিয় রয়েছেন। হোটেল সিক্স সিজনে সমবেত নাগরিক সমাজের বিশিষ্টজনরা আশাবাদ ব্যক্ত করেন, অপরাজিতাদের মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়নের যে ঢেউ সঞ্চারিত হয়েছে, তা নিচ থেকে উপরে এসে নীতিনির্ধারণী মহলেও নাড়া দেবে। 

Walton Refrigerator Freezer
Walton Refrigerator Freezer