Bahumatrik | বহুমাত্রিক

সরকার নিবন্ধিত বিশেষায়িত অনলাইন গণমাধ্যম

আষাঢ় ৬ ১৪৩১, শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪

কবি নজরুল কলেজেই নজরুলকে উপেক্ষা! 

বিপ্লব শেখ

প্রকাশিত: ১৯:৫৬, ১ জুন ২০২৪

আপডেট: ২০:০১, ১ জুন ২০২৪

প্রিন্ট:

কবি নজরুল কলেজেই নজরুলকে উপেক্ষা! 

এমনি অমর্যাদায় রাখা হয়েছে নজরুলের ম্যুরালটি। ছবি: লেখক

জীবদ্দশায় নিদারুণ দুঃখ-কষ্ট ভোগ করে মৃত্যুর কয়েকযুগ পরেও যেন দুখু মিয়ার দুঃখ শেষ হয়নি। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের নামে কলেজ থাকা সত্ত্বেও সেই কলেজে কেন নেই কবির চর্চা?-কবির ১২৫তম জন্মবার্ষিকী উদযাপনের এই সময়ে সাহিত্যপ্রেমীদের মনে এমন প্রশ্নের উদয় হয়েছে।

কবি নজরুল সরকারি কলেজ (কেএনজিসি) রাজধানীর লক্ষ্মীবাজারে অবস্থিত একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান। জানা গেছে, দানবীর হাজী মুহাম্মদ মহসিন ফান্ডের আর্থিক সহায়তায় ১৮৭৪ সালে পুরান ঢাকায় প্রতিষ্ঠিত হয় মোহসীনিয়া মাদ্রাসা (ঢাকা মাদ্রাসা)। চার বার নাম পরিবর্তন করে ১৯৭২ সাথে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের নামেই এ কলেজের নামকরণ করা হয়।

যুগপ্রবর্তক ও বিরল প্রতিভাধর কবি, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, গীতিকার , সুরকার , সম্পাদক এবং বাংলােদেশর জাতীয় কবি-এমন অজস্র অভিধায় অভিষিক্ত করা যাবে কাজী নজরুল ইসলামকে। কবির জন্ম পরাধীন ভারতে ২৫ মে ১৮৯৯ সালে। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আসানসোল মহকুমার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মের পর মাত্র নয় বছর বয়সে বাবাকে হারান তিনি। কবির জীবনের পুরো সময় কেটেছে দুঃখ-কষ্টের মধ্যে দিয়ে। এ বেদনাকে কাঁধে নিয়েই বাংলা সাহিত্যের জন্য নজরুল রচনা করেছেন অসংখ্য কালজয়ী সৃষ্টি। 

আমরা জানি নজরুল ছিলেন সাম্য, দ্রোহ ও প্রেমের কবি। সাম্প্রদায়িকতা ও ঔপনিবেশিক শোষকদের বিরুদ্ধে খড়গহস্তে কবি কলম ধরেছিলেন। পরাধীন ঘুমন্ত জাতিকে তিনি তাঁর অবিনাশী কবিতা, গান ও অতিভাষণে জাগিয়ে তুলেছিলেন প্রবল পরাক্রমে। আজও বিশ্বের পীড়িত মানুষের কণ্ঠস্বর হিসেবে নজরুলের জীবন ও সাহিত্য আমাদের প্রেরণা সঞ্চার করে। 

কিন্তু খোদ কবির নামে প্রতিষ্ঠিত মহাবিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসেই যখন কবিকে একরকম নির্বাসিত করে রাখা হয়, তখন কষ্টের শেষ থাকে না। নবীন শিক্ষার্থীদের মাঝে কবিকে জানার প্রবল আগ্রহ থাকলেও সামান্য সুযোগ নেই সেখানে। জরাজীর্ণ ও নানা রাজনৈতিক পোস্টারে ঢেকে যাওয়া একটি ম্যুরাল ছাড়া সারা কলেজের কোথাও নেই কবির কোন নামগন্ধ!

নেই কোন স্মৃতিস্তম্ভ , নজরুল কক্ষ বা চর্চা কেন্দ্রও। কলেজের অভ্যন্তরে কবির কোন ছবি পর্যন্ত নেই। কলেজের দেয়ালে শোভা পাচ্ছে সৈয়দ শামসুল হক ও শামসুর রাহমানের কবিতা। 

বাংলা বিভাগীয় প্রধান ডঃ মাহমুদা আক্তারকে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি পাল্টা প্রশ্ন করেন, ‘তুমি শুধু নজরুলের ছবি নেই তাই লক্ষ্য করলে; সুফিয়া কামাল, বেগম রোকেয়ার ছবি কি আছে? পরে তিনি সেমিনার সহকারীকে সেমিনার কক্ষে পাঠান ছবির জন্য। সেমিনার সহকারী আলমারির উপরে রাখা পুরাতন ফাইল ও কিছু পুরাতন ছবি খুঁজে ধুলোবালিযুক্ত একটি নজরুলের ছবি নিয়ে আসেন । 

কিন্তু এই ছবিটা অন্য কবিদের ছবির সাথে কেন দেয়ালে টাঙানো নেই, কলেজে কেন নজরুল চর্চা উপেক্ষিত-কেনইবা কলেজের দেয়ালে নজরুলের কোন বাণী নেই?-এসব জিজ্ঞাসার জবাবে বিভাগীয় প্রধান জানান, এখানে তাদের কিছুই করার নেই। তিনি আশ্বাস দিয়ে বলেন,সুযোগ হলে তিনি এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতনদের জানবেন।

বাংলা বিভাগের এক শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, কবি কাজী নজরুল ইসলাম সারাজীবন বাঙালির জয় গান গেয়েছেন । বাঙালির অধিকার আদায়ের জন্য বিদ্রোহ করেছেন, জেলে গিয়েছেন। অথচ সেই কবির নামে প্রতিষ্ঠিত কলেজ ক্যাম্পাসে নজরুল উপেক্ষিত, যা খুবই কষ্টের।

স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে সম্মান ও মর্যাদায় কবি কাজী নজরুল ইসলামকে সপরিবারে ঢাকায় নিয়ে আসেন, জাতীয় কবির সম্মানে অভিষিক্ত করেন; তাঁর নামাঙ্কিত কলেজে নজরুল চর্চা কিংবা নজরুল স্মারক স্থাপনে কর্তৃপক্ষে উদাসীনতা আমাদের মত নবীন শিক্ষার্থীদের ব্যথিত করে। 

লেখক: স্নাতক (সম্মান) দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী, বাংলা বিভাগ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, ঢাকা। 

Walton Refrigerator Freezer
Walton Refrigerator Freezer