Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
১০ ভাদ্র ১৪২৬, রবিবার ২৫ আগস্ট ২০১৯, ৬:৫৪ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

বন্যপ্রাণি গবেষণার নামে আন্তর্জাতিক চোরাচালান প্রতিহত করার দাবি


১৩ জুলাই ২০১৯ শনিবার, ১২:১০  এএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


বন্যপ্রাণি গবেষণার নামে আন্তর্জাতিক চোরাচালান প্রতিহত করার দাবি

মৌলভীবাজার: বন্যপ্রাণি গবেষণার নামে আন্তর্জাতিক চোরাচালান প্রতিহত করার দাবিতে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে মানববন্ধন কর্মসূচি ও প্রতিবাদ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংক্ষুব্ধ নাগরিক আন্দোলন সিলেট এর আয়োজনে শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় জাতীয় উদ্যানের প্রবেশ পথ এলাকায় ঘন্টাব্যাপী কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, কোনো প্রকার সরকারি অনুমতি না নিয়ে ইতিপূর্বে দেশী বিদেশী কতিপয় গবেষকের সাথে কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে প্রবেশ করে বন্যপ্রাণীর নমুনা সংগ্রহ, পাচার ও ধ্বংস করা হচ্ছে। বন ও জীববৈচিত্র্য রক্ষা আইন অমান্য করে গবেষণার নামে প্রাণী পাচার করা হচ্ছে। এধরণের একাধিক চক্র প্রাণি পাচারের সাথে জড়িত বলে দাবি করা হয়। এতে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ও সিলেটের বিভিন্ন সংরক্ষিত বনের বিলুপ্তপ্রায় প্রাণী, জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হয়ে পড়ছে।

এ অভিযোগে প্রতিবাদী হয়ে বাংলাদেশ পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (বাপা) সিলেট বিভাগীয় সম্পাদক আব্দুল করিমের নেতৃত্বে স্থানীয় জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটি, পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সদস্যরা মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহন করেন। এক ঘন্টা স্থায়ী মানবন্ধনে বক্তব্য রাখেন বাপা সিলেটের সভাপতি আব্দুল করিম, হবিগঞ্জ কমিটির সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্ঝল সোহেল, মৌলভীবাজারের সমন্বয়কারী আ ছ ম ছালেহ সোহেল, সিলেটের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছামির মাহমুদ চৌধুরী, পরিবেশ কর্মী আব্দুল আহাদ, পরিবেশ সংগঠক নিয়ামুল ইসলাম খান, পরিবেশ সাংবাদিক ফোরাম মৌলভীবাজারের সাধারণ সম্পাদক নুরুল মোহাইমিন, ব্যারিষ্টার গোলাম সোবহান চৌধুরী, স্থানীয় পরিবেশ কর্মী শামছুল হক, কমলগঞ্জ জীববৈচত্র্যি রক্ষা কমিটির সভাপতি মঞ্জুর আহমদ আজাদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি তোয়াক্কা না করেই গবেষক পর্যটক হিসেবে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে প্রবেশ করে তথাকথিত দেশী বিদেশী গবেষকরা অবৈধভাবে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান থেকে অজগরসহ নানা জাতের সাপের ডিম সংগ্রহ ও পাচারের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন। অবাদে জাতীয় উদ্যানে ঘুরে এ বনের জীববৈচিত্র্য সংগ্রহ করছেন। দেশী বিদেশী গবেষকদের এ ধরনের কাজ এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়িত্বহীনতার বিষয়ে তদন্ত পূর্বক আইনের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়। এ ধরনের কাজে লাউয়াছড়া বনের বড় ধরনের ক্ষতি হবে জানিয়ে বক্তারা বলেন, এ বনের বন্য প্রাণী রক্ষায় রেল ও সড়কপথ স্থানান্তরের দাবিও জানানো হয়।

তবে অভিযোগ বিষয়ে বন্যপ্রাণি গবেষক শাহরিয়ার সিজার মোবাইল ফোনে বলেন, আমি প্রাণি পাচার করেছি এমন কোন তথ্যপ্রমাণ নেই এবং কেউ দেখাতে পারবে না। বিদেশী পর্যটক যিনি এসেছেন তিনি প্রাণীর কোন নমুনা সংগ্রহ করেননি। বন ঘুরে ও ছবি তোলে গেছেন। তিনি আরও বলেন, কর্তৃপক্ষের অনুমতি না থাকলে সে ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি কেন বলে মন্তব্য করেন।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।