Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
২৭ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ৮:০৪ পূর্বাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

কমলগঞ্জে মহারাসলীলা শুরু


১২ নভেম্বর ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৭:১৯  পিএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিনিধি

বহুমাত্রিক.কম


কমলগঞ্জে মহারাসলীলা শুরু

বৈচিত্র্যপূর্ণ সংস্কৃতির এক অবিচ্ছেদ্য অংশ মনিপুরী সম্প্রদায়। গৌড়ীয় বৈষ্ণব ধর্মাবলম্বী মণিপুরীদের সুমহান ঐতিহ্যের ধারায় রাসপূর্ণিমার পূণ্যতিথিতে বৃহৎ উৎসব মহারাসলীলা শুরু হয়েছে। মহারাসকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার মনিপুরী সংস্কৃতি অঙ্গনে বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাস উৎসব শুরু হয়েছে।

মনিপুরী পল্লী ও মন্ডপে মন্ডপে গত এক মাসের প্রস্তুতি পর্বের মধ্যদিয়ে বৃহৎ এই উৎসবের সকল কার্যক্রম সম্পন্ন হয়েছে। অনুষ্ঠানকে ঘিরে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মনিপুরী অধ্যূষিত মাধবপুর ও আদমপুরের পাড়া মহল্লা নতুন সাজে সজ্জিত হয়েছে।

মঙ্গলবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে শুরু হয় আনুষ্ঠানিকতা। কার্তিকের পূর্ণিমা তিথিতে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে ঢাকঢোল, খোল-করতাল আর শঙ্খধ্বনির মধ্য দিয়ে রাসলীলা উৎসবে পরিণত হবে। মৈতৈ ও বিষ্ণুপ্রিয়া দু’সম্প্রদায়ের পৃথক দু’টি স্থানে রাসউৎসবে সকল ধর্মবর্ণের মিলনমেলায় পরিণত হয়। উপজেলার আদমপুর সেনাঠাকুর মন্ডবে মৈতৈ মণিপুরী সম্প্রদায়ের ৩৪ তম রাসোৎসব এবং মাধবপুর শিববাজার জোড়ামান্ডবে মণিপুরী ললিতকলা একাডেমী সংলগ্ন খোলা ময়দানে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীদের ১৭৭ তম রাসোৎসব অনুষ্টিত হয়েছে।

বর্ণাঢ্য আয়োজনে রাস উৎসবে প্রতিবারের মত এবারও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। মণিপুরী সম্প্রদায়ের এ বৃহত্তম উৎসব উপলক্ষে ২ টি স্থানে বসেছে মেলা । বিকাল থেকে রাত অবধি রাসোৎসবে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে হাজার হাজার ভক্তবৃন্দসহ দেশী-বিদেশী পর্যটকের ভিড়ে মুখরিত হয়ে উঠছে কমলগঞ্জের গোটা মণিপুরী অঞ্চল।

উপজেলার মাধবপুর জোড়া মন্ডপ প্রাঙ্গনে মণিপুরী মহারাসলীলা সেবা সংঘের উদ্যোগে বিষ্ণুপ্রিয়া মনিপুরী সম্প্রদায়ের শ্রী শ্রী কৃষ্ণের মহারাসলীলানুসরন উৎসব উপলক্ষে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টা থেকে পরদিন ঊষালগ্ন পর্যন্ত রাখাল নৃত্য (গোষ্ঠলীলা), সন্ধ্যায় আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, রাত ১০টায় নট সংকীর্তন, রাত ১১টা থেকে শ্রীশ্রীকৃষ্ণের মহারাসলীলানুসরণ অনুষ্টিত হবে। তবে মণিপুরী শিশু নৃত্যশিল্পীদের সুণিপুন নৃত্যাভিনয় রাতভর মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখে আগতদের।

আয়োজকদের দেওয়া তথ্যে জানা যায়, ভগমান শ্রীকৃষ্ণ অবিনাশী, অপরিমেয়, নির্গুণ ও নিয়ন্ত্রা। শ্রীকৃষ্ণ বৃন্দাবনে রাসলীলার মাধ্যমে ভগবত প্রেম, আত্মা ও পরমাত্মার মধ্যে প্রেমাসাধন করেছিলেন। ১৭৭৯ সালে মনিপুরের মহারাজা ভাগ্যচন্দ্র স্বপ্নদৃষ্ট হয়ে যে নৃত্যগীতের প্রর্বতন করেছিলেন তাহাই রাসোৎসব। ভাগ্যচন্দ্রের পরবর্তী রাজাগনের বেশরিভাগই ছিলেন নৃত্যগীতে পারদর্শী এবং তারা নিজেরাও রাসনৃত্যে অংশগ্রহন করতেন। এর ফলে মণিপুরী সম্প্রদায়ের মধ্যে এ কৃষ্টির ধারাবাহিকতায় কোন ছেদ পড়েনি। অতীতের সেই ধারাবাহিকতার সূত্র ধরেই কোন রুপ বিকৃতি ছাড়াই কমলগঞ্জে উদযাপিত হয়ে আসছে মনিপুরী সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব শ্রী কৃষ্ণের মহা রাসলীলা। পরদিন মঙ্গলবার ভোরের সূর্যোদয়ের পর অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটবে এই মহামিলন অনুষ্ঠানের।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।