Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
৩ মাঘ ১৪২৭, শনিবার ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ২:৫৮ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

পলিথিন ব্যাগে গরম খাবার : হুমকির মুখে মানবস্বাস্থ্য


২২ নভেম্বর ২০২০ রবিবার, ০৭:৩৮  পিএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


পলিথিন ব্যাগে গরম খাবার : হুমকির মুখে মানবস্বাস্থ্য

হোটেল-রেস্তোরায় শাকসবজিসহ গরম খাবারেও ক্ষতিকর পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার করা হচ্ছে। নিষিদ্ধ পলিথিনের সর্বগ্রাসী আগ্রাসনে হুমকির মুখে পড়েছে মানবস্বাস্থ্য ও পরিবেশ। ২০০২ সনে পলিথিন নিষিদ্ধ করা হলেও এটির ব্যবহার কোনমতেই রোধ হচ্ছে না।

শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অবাধে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার করছে। এছাড়া ফসলি মাঠ, হাটবাজার, রাস্তাঘাট, ড্রেন, নদী-নালা, খাল-বিল, মাঠে-ময়দানে ও মাটিতে পলিথিনের কারণে পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, গত ১৯ থেকে ২১ নভেম্বর মৌলভীবাজার সদরে সাংবাদিকদের একটি প্রশিক্ষণ কর্মশালায় দুপুরে প্যাকেটজাত খাবার বিতরণ করা হয়। এসব খাবারের মধ্যে গরম মাংসের তারকারি, সবজি, ডাল, সালাদ ও ভাত পৃথকভাবে পলিথিন ব্যাগে প্যাকেটজাত করে দীর্ঘ সময় বাক্সবন্দি করে রাখা হচ্ছে। ঘন্টা খানেক পর ক্ষতিকর প্যাকেটজাত খাবার গ্রহণ করছেন অংশগ্রহণকারীরা।

এছাড়াও জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন হোটেল-রেস্তোরা থেকে তারকারিসহ খাদ্য দ্রব্য পণ্য অবাধে ব্যবহার করা হচ্ছে। মানুষের সচেতনতার অভাবে পলিথিন ব্যাগের প্যাকেটজাত খাবার গ্রহণ করছেন। এতে মানব স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। এমনকি ক্যান্সার ও চর্মরোগের সংক্রমণ ঘটতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছেন।

সম্প্রতি মৌলভীবাজার জেলা সদরসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, হাটবাজার ও নিত্য পণ্যের দোকান পলিথিন ব্যাগের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে। মাছ, মাংস, শুটকি, পান-সুপারি, চিনি-গুড়, শাক-সবজি, ফল ও ফাস্টফুডের খাদ্য সামগ্রী পলিথিনে ব্যাগে ভর্তি করে দেয়া হচ্ছে। পলিথিন ব্যাগ নিষিদ্ধ থাকলেও শহর ও গ্রামগঞ্জের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অবাধে ব্যবহৃত হচ্ছে।

পলিথিন সহজলভ্য হওয়ায় তরিতরকারীর খোসা, মাছের বর্জ্য, খাবারের উচ্ছিষ্ট, বাসাবাড়ির ময়লা আবর্জনা পলিথিন ব্যাগে ভরে ডাস্টবিন, রাস্তাঘাট ও মাঠে ময়দানে ফেলা হচ্ছে। সহজে পরিবহন করা যায় এবং দামে সস্তা থাকায় পলিথিনের ক্ষতিকর দিক বিবেচনা না করেই ব্যাপকহারে এর ব্যবহার শুরু হয়েছে।

২০০২ সনের ৮ এপ্রিল সরকারী সিদ্ধান্তে সকল প্রকার পলিথিন শপিং ব্যাগ উৎপাদন, আমদানি, বাজারজাত করণ, বিক্রয়, বিক্রয়ের জন্য প্রদর্শন, মজুদ, বিতরণ, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে পরিবহন ও ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়। তখন বিকল্প হিসাবে কিছুদিন কাগজের ঠোঙ্গা ব্যবহৃত হয়।

তবে আইন বাস্তবায়নে কার্যকর কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় সর্বত্র প্রকাশ্যে পলিথিন ব্যাগের ব্যবহার শুরু হয়েছে। পলিথিন পয়নিস্কাশন ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে, মাছ-মাংস প্যাকেটজাত করে সংরক্ষণ করলে ব্যাকটেরিয়া সৃষ্টি হয়ে মাছ-মাংসে দ্রুত পচন ধরাতে সক্ষম। পলিথিন ব্যাগ ড্রেন, নর্দমায় পড়ে পানি নিষ্কাষনে বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে। ড্রেন ও নালার মুখ বন্ধ হয়ে হাটবাজারে জলাব্ধতা দেখা দিচ্ছে। ড্রেনের মাধ্যমে নদী ও জলাশয়ে গিয়ে পড়ছে। মাটি দুষণ করছে পলিথিন।

কমলগঞ্জের কবি ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শহীদ সাগ্নিক, শিক্ষক জমসেদ আলী বলেন, পলিথিন মাটির ক্ষতি করে এবং ফসলি জমি ও নদী নালায় ফেলার কারণে মাটি, পানি, পরিবেশ বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছে। ফলে পাটের কদর কমছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মৌলভীবাজারের একজন হোটেল-রেস্তোরা ম্যানেজার বলেন, এভাবে তো এখন সর্বত্র খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। কেউ আপত্তি জানায়নি বা বাঁধা দেয়নি। তবে নিষিদ্ধ থাকলে তা বন্ধ করা হবে।

কমলগঞ্জের মুদি দোকানী সহিদুল ইসলাম, সবজি বিক্রেতা ইউনুস মিয়া বলেন, পলিথিনের কারখানা বন্ধ না করে খুচরা বাজারে এসে পলিথিন বন্ধের কথা বললে কোন কাজে আসবে না। পাইকারী বাজারেও অবাধে বিক্রি হচ্ছে। তাই আমরাও পণ্যের সাথে পলিথিন ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছি।

চিকিৎসক ডা. মাহবুবুল আলম ভূঁইয়া, পিন্টু দেবনাথ বলেন, পলিথিন খুবই ক্ষতিকর। আর গরম খাবার প্যাকেটজাতে পলিথিন স্বাথ্যের জন্য বড় ধরণের ঝুঁকি বহন করতে হবে। এটি মোটেই ঠিক নয়।

পলিথিনের অবাধ ব্যবহার বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক বদরুল হুদা বলেন, এমনিতেই পলিথিন ব্যাগ নিষিদ্ধ রয়েছে। তাছাড়া উচ্চ আদালতেরও নির্দেশনা রয়েছে হোটেল রেস্তোরায়ও এসব ব্যাগ ব্যবহার করা যাবে না। আগামী এক বছরের মধ্যে হোটেল রেস্তোরা থেকে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার বন্ধের বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
Bay Leaf Premium Tea

অসঙ্গতি প্রতিদিন -এর সর্বশেষ