Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
১১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৭, বুধবার ২৫ নভেম্বর ২০২০, ৫:২৮ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

কমলগঞ্জে চা বাগান থেকে ছায়াবৃক্ষ ও কাঁচা চা পাতা চুরি


০৯ নভেম্বর ২০২০ সোমবার, ০৭:১৬  পিএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


কমলগঞ্জে চা বাগান থেকে ছায়াবৃক্ষ ও কাঁচা চা পাতা চুরি

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ডানকান ব্রাদার্স শমশেরনগর এর ফাঁড়ি কানিহাটি চা বাগান থেকে ছায়াবৃক্ষ চুরি হয়েছে। ফাঁড়ি বাঘিছড়া ও দেওছড়া চা বাগানের বিভিন্ন সেকশন থেকে কাঁচা চা পাতাও চুরি হচ্ছে।

এতে নারী শ্রমিকদের পাতি উত্তোলনে নিরিখ পুরো করা সম্ভব হচ্ছে না। ক্ষুদ্ধ শ্রমিকরা বাগান ম্যানেজমেন্টকে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন। প্রতিনিয়ত রাতের আধারে গাছ ও চা পাতা চুরির ফলে বৃক্ষ শুন্য হচ্ছে চায়ের টিলাভূমি। ফলে চায়ের উৎপাদনে প্রভাব পড়ছে এবং পরিবেশেরও ব্যাপক ক্ষতি বয়ে আনছে।

চা শ্রমিকদের অভিযোগে জানা যায়, গাছ চোর ও কাঁচা চা পাতা চোর সিন্ডিকেট চক্র রাতের আঁধারে হরদম গাছ ও কাঁচা চা পাতা চুরি করে। চা বাগানের কতিপয় কর্মকর্তা, কর্মচারী ও পাহারাদারদের সাথে যোগসাজশ করে নিয়মিত এসব অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে।

বাগানের মূল্যবান ও পুরাতন ছায়াবৃক্ষ হিসাবে আকাশি ও রেইনট্রি গাছ ভূমিকা পালন করছে। এই গাছগুলো কেটে খন্ডাংশ করে ঠেলা গাড়ি যোগে স’মিলসহ বিভিন্ন স্থানে পাচার করা হয়। অপরদিকে কাঁচা চা পাতা চোর চক্র রাতে সেকশনে প্রবেশ করে কাঁচি দিয়ে চা গাছের কচি পাতা কেটে বস্তা ভর্তি করে নেয়। প্রতি রাতেই দেওছড়া, কানিহাটি, ডবলছড়া, বাঘিছড়া, শমশেরনগর, আলীনগরসহ বিভিন্ন চা বাগানের সেকশন থেকে কাঁচা চা পাতা পাচার করে। বস্তাভর্তি করে বাগানের বাহিরে নির্দিষ্ট স্থানে জড়ো করে মধ্যরাত কিংবা ভোর রাতে ট্রাক ও পিকআপযোগে পাচার করা হয়।

চোরাই কাঁচা চা পাতা ভর্তি গাড়ি কুলাউড়া ও রাজনগর সড়ক দিয়ে স্থানান্তর করা হয়। স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে ম্যানেজ করে প্রতিনিয়ত চা বাগানের গাছ ও কাঁচা চা পাতা চুরি হচ্ছে। সম্প্রতি শমশেরনগর এর ফাঁড়ি কানিহাটি চা বাগানের ২ নম্বর সেকশন থেকে তিনটি মূল্যবান আকাশি গাছ চুরি হয়েছে।

একই সময়ে বাঘিছড়া থেকে ব্যাপকহারে কাঁচা চা পাতাও চুরি হয়েছে। এতে নারী শ্রমিকরা কাজে গিয়ে সেকশনের চা গাছের পাতি চোরি হয়ে যাওয়ায় ক্ষোব্ধ হয়ে উঠেন। এর প্রতিবাদ জানিয়ে তারা কিছু সময়ে কর্মবিরতি পালন করে ও বাগান ম্যানেজমেন্টকে বিষয়টি অবহিত করে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। চা বাগানের বিভিন্ন সেকশন বা টিলা থেকে গাছ কেটে পাচার হয়ে যাওয়ায় বৃক্ষ শুন্য হচ্ছে সেকশন সমুহ। এর প্রভাব পড়ছে চায়ের উৎপাদনে।

বাঘিছড়া চা বাগানের নারী শ্রমিক সুফলা বাউরী, সুজতা রিকিয়াশন, আরতি উরাং ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সেকশনে গেলাম পাতি উঠাতে। গিয়ে দেখি রাতেই এগুলো চুরি হয়ে গেছে। এখন আমরা কোথা থেকে চা পাতা উত্তোলন করবো। বাগানে পাহারাদার থাকে। দেখাশুনার জন্য। এরপরও সেকশন থেকে কঁচি চা পাতা চুরি হওয়ায় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ম্যানেজমেন্টকে বলেছি।

বাঘিছড়া চা বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি লছমন রবিদাস, কানিহাটি চা বাগানের সভাপতি প্রতাপ রিকিয়াশন বলেন, বাগান থেকে গাছগাছালি ও কাঁচা চা পাতা চুরি হচ্ছে। এর ফলে সেকশনের চা গাছ থেকে নারী শ্রমিকরা পাতি উত্তোলন করতে পারছে না। তাদের নিরিখ পুরো করা কষ্টকর হয়ে পড়ছে। তারা আরও বলেন, গাছ চুরি হয়ে যাওয়ায় টিলাগুলো বৃক্ষ শুন্য হয়ে পড়ছে। এজন্য চা গায়ে ছায়াও থাকবে না। ফলে বাগানের বড় ধরণের ক্ষতি হচ্ছে। এসব বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য আমরা ম্যানেজমেন্টকেও বলেছি।

শমশেরনগর কানিহাটি চা বাগানের শ্রমিক নেতা ও ইউপি সদস্য সীতারাম বীন বলেন, দেওছড়া, শমশেরনগর, কানিহাটি, বাঘিছড়া এসব বাগান থেকে দীর্ঘদিন ধরে কাঁচা চা পাতা ও মূল্যবান গাছ চুরি হচ্ছে। ফলে এর প্রভাব পড়ছে চা শ্রমিক ও উৎপাদনে। গাছ কমে যাওয়ায় পরিবেশেরও হুমকি হয়ে দেখা দিচ্ছে। এসব বিষয়ে ম্যানেজমেন্ট যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে ভবিষ্যতে বড় ধরণের ক্ষতি গুণতে হবে।

এ ব্যাপারে শমশেরনগর চা বাগানের ডেপুটি ম্যানেজার মো. রফিকুল ইসলামের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি নিজের দায়িত্ব এড়িয়ে বলেন, চা বাগানের গাছ ও কাঁচা চা পাতা চুরির বিষয়ে শ্রমিকরা লিখিত অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
Bay Leaf Premium Tea

অসঙ্গতি প্রতিদিন -এর সর্বশেষ