Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
১১ বৈশাখ ১৪২৬, বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ৬:০৭ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

৫শ’ শয্যার হাসপাতালে গড়ে হাজার রোগী


০৯ এপ্রিল ২০১৯ মঙ্গলবার, ১২:২১  এএম

শেখ হেদায়েতুল্লাহ, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


৫শ’ শয্যার হাসপাতালে গড়ে হাজার রোগী

খুলনা: খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে অতিরিক্ত রোগীর চাপে ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসা সেবা। কাগজে-কলমে ৫০০ শয্যার হাসপাতালটিতে বর্তমানে গড়ে প্রতিদিন রোগী ভর্তি থাকছে ১ হাজারের বেশি। রোগীর ভিড়ে স্থান মিলছে না বারান্দাতেও। তাছাড়া বর্হিবিভাগে রোগীদের বিভিন্ন বিভাগে চিকিৎসা দেয়া হয় গড়ে দেড় হাজার রোগীর। হাসপাতালটি ৫ শয্যায় উন্নীত করে জনবল কাঠামোর অনুদোদন দেয়া হলেও নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন না হওয়ায় পুরনো জনবল দিয়েই চলছে হাসপাতালের চিকিৎসা কার্যক্রম।

চিকিৎসা পাওয়ার আশায় হাসপাতালের বারান্দা, চিকিৎসকের চেম্বার, লিফট এর সামনে থেকে শুরু করে বাথরুমের দরজা পর্যন্ত সর্বত্র রোগী। রোববার হিসাব অনুযায়ী নতুন ভর্তিসহ শুধুমাত্র আন্তঃবিভাগেই ১২শ’ এর অধিক রোগী ভর্তি হয়েছে। আর রেকর্ড সংখ্যক এ রোগীর চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে হিমশিম খাচ্ছে চিকিৎসকরা।

মেডিসিন বিভাগে পুরুষ ও নারী ওর্য়াডে শয্যা সংখ্যা ৫০টির মত। অথচ রোববার এ ওযার্ডে রোগী ভর্তি ছিল ৪ শয়ের মত। শুধুমাত্র রোবারই দুপুর পর্যন্ত রোগী ভর্তি হয়েছে মেডিসিন ওয়ার্ডে পুরুষ ২১ ও নারী ৩৫ জন। মেডিসিন ওয়ার্ডের সহকারী রেজিষ্টার ডা: পার্থ প্রতীম দেবনাথ এ বিষযে বলেন, ময্যার বিপরীতে কযেকগুন রোগী ভর্তি হওযায় তাদের চিকিৎসা দিতে নানা অসুবিধা হয়। একজন রোগীকে তেমন সময় দেয়া যায় না। এজন্য রোগী - রোগীর স্বজনেরা ক্ষুব্ধ হয়। তিনি বলেন স্ট্রোকে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাই মেডিসিন ওয়ার্ডে বেশি রয়েছে।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. এটিএম মোর্শেদ বলেন, ব্যাপক চাপ রোগীদের। হাসপাতালে ৫শ’ শয্যার জনবল না থাকলেও ৫শ’টি শয্যা রয়েছে। কিন্তু প্রতিদিন গড়ে শয্যা সংখ্যার দ্বিগুণ রোগী ভর্তি থাকে। দ্বিগুণ রোগী বেশি থাকলেও নির্দিষ্ট চিকিৎসক না থাকায় রোগীদের কাঙ্খিত সেবা দেয়া সম্ভব হয় না। প্রতিদিনই রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে হাসপাতালের পরিবেশ ঠিক রাখা কঠিন। অন্যদিকে এত সংখ্যক রোগীর সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে চিকিৎসকরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি জনবল সঙ্কট নিরসনের বিষয়ে বলেন জনবল কাঠামো নিয়োগের অনুমোদন পাওয়া গেছে। নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেই রোগীদের চিকিৎসা পেতে অসুবিধা হবে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮৯ সালে নগরীর ছোট বয়রা এলাকায় ‘খুলনা হাসপাতাল’ নামে যাত্রা শুরু হয়েছিল খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপালের। প্রথমে মাত্র ৭৫ শয্যা নিয়ে এ হাসপাতালের যাত্রা শুরু। পরে পর্যায়ক্রমে ২৫০ শয্যা উন্নীত করা হয় এবং খুলনা মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা লাভের পর এটি খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নামে পরিচালিত হচ্ছে। খুলনার মানুষের দাবি ও দীর্ঘ আন্দোলনের প্রেক্ষিতে বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটি ২৫০ শয্যা থেকে ৫০০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। কিন্তু ৫০০ শয্যার জন্য যে জনবল দরকার অদ্যাবধি তা নিয়োগ দেয়া হয়নি। পূর্ণাঙ্গ আইসিইউ, সিসিইউ, বার্ন ইউনিটসহ রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতির সঙ্কট রয়েছে এ হাসপাতালে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।