Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
৮ মাঘ ১৪২৬, মঙ্গলবার ২১ জানুয়ারি ২০২০, ৩:৫৭ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

কৃষক নিবন্ধন উৎসব এখন আর স্বপ্ন নয়


০৬ ডিসেম্বর ২০১৯ শুক্রবার, ১২:৫৪  এএম

কাজী রকিবুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


কৃষক নিবন্ধন উৎসব এখন আর স্বপ্ন নয়

যশোর : যশোরে অনুষ্ঠিত হলো অ্যাপে বিনামূল্যে কৃষক নিবন্ধন উৎসব। যশোর সদর উপজেলার আরবপুর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোগে গ্রামীণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হলো ব্যাতিক্রমী এক নান্দনিক অনুষ্ঠান অ্যাপে বিনামূল্যে কৃষক নিবন্ধন উৎসব।

ডিজিটাল পদ্ধতিতে সরকারের খাদ্যশস্য সংগ্রহ অভিযান ‘কৃষকের অ্যাপ’ নামের অ্যাপে চলছে কৃষকের নিবন্ধন আর ধান বিক্রির আবেদন। পাইলট আকারে শুরু হওয়া এই অভিযানে ১৬টি উপজেলার অন্যতম যশোর সদর। সদর উপজেলার আরবপুরে কৃষকদের ডিজিটাল নিবন্ধন করতে আরবপুর ্ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার আয়োজন করে অ্যাপে বিনামূল্যে কৃষক নিবন্ধন উৎসব।

দূর্গাপুর গ্রামে কৃষকদের নিয়ে বসেছিল এক মিলনমেলা। দূর্গাপুরসহ পাশ্ববর্তী মালঞ্চী, ধোপাখোলা, পতেঙ্গালী, বিপতেঙ্গালী,ভেকুটিয়া, বালিয়া ভেকুটিয়া, বাঁশবাড়ীয়া, সুজলপুর, খোলাডাঙ্গা, মন্ডলগাতী, কৃষ্ণবাটি, চাঁদপুর, পাকদিয়া, রঘুরামপুর গ্রামের কৃষকরা হাজির হয়েছিল কৃষিকার্ড, এনআইডি কার্ড আর মোবাইল নিয়ে। বাউলগানের সুর আর মুড়ি পাটালির খাওয়ার সাতে সাতে চলে কৃষক নিবন্ধন।

কৃষকের অ্যাপ প্রচারণায় তৈরি মিউজিক ভিডিওর দু’ শিল্পী স্বরোজিত মন্ডল আর সালভিয়া আফরোজ জয়ীর গাওয়া ‘ভাইজান গো সবাই শুনে যান, কৃষকের অ্যাপে এবার সরকার কিনবে ধান’ গানের সুর লহরীর সাথে শুরু হয় নিবন্ধন উৎসব। উৎসব অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী পর্বে ছিলো আলোচনা সভা। আরবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ ইব্রাহীম।

বিশেষ অতিথি ছিলেন গ্রামের কাগজের সম্পাদক মবিনুল ইসলাম মবিন, ভারপ্রাপ্ত জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক লিয়াকত হোসেন, সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা খালিদ সাইফুল্লাহ, সদর উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আশরাফুজ্জামান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আরবপুর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা এস এম আরিফুজ্জামান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ ইব্রাহীম বলেন, কৃষকের লাভ এত দিন খেয়ে গেছে কিছু মধ্যস্বত্ত্বভোগীরা। যাদের কারণে শ্রমে ঘামে উৎপাদিত পণ্যের নায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হয়েছে কৃষক। কৃষকের সেই বঞ্চনা থেকে মুক্তি দিতে সরকার ডিজিটাল পদ্ধতিতে ধান কেনা শুরু করেছে। নিবন্ধিত কৃষকের ধান কেনা হবে ডিজিটাল লাটরির মাধ্যমে। ডিজিটাল পদ্ধতিতে স্বচ্ছতা জবাবদিহীতা নিশ্চিতের পাশাপাশি বন্ধ হবে দালাল আর প্রভাবশালীদের দৌরাত্ম। খাদ্য গুদামে ধানের আর্দ্রতা নিয়ে ভোগান্তি নিরসনে নির্বাচিত কৃষকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পরীক্ষা করবে উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তারা। যাতে গুদাম থেকে তাদের কোন হয়ানির শিকার হতে না হয়। এ সময় তিনি বলেন যে কোন অনিয়মে জানালে তিনি তড়িৎ ব্যবস্থা নিবেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর পর চলে কৃষকের অ্যাপে কৃষক নিবন্ধন। আরবপুর ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা এস এম আরিফুজ্জামান, দেয়াড়া ইউডিসির উদ্যোক্তা সমীর কুমার ঘোষ, চুড়ামনকাটি ইউডিসির উদ্যোক্তা ইমদাদ হোসেন, আরবপুর ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা, গোলাম মোস্তফা, জাহিদুল ইসলাম, গোলাম মোস্তফা, স্বেচ্ছাসেবী সোহেল রানা কৃষকদের নিবন্ধনে সহায়তা করেন।

কৃষক উৎসবে সঙ্গীত পরিবেশন করেন বাউল মজিদ সাঁই, পরিতোষ বাউল, স্বরোজিৎ মন্ডল, সালভিয়া আফরোজ জয়ী। অনুষ্ঠানে সাবেক ইউপি সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা আজগার আলী বিশ্বাস, ইউপি সদস্য উজ্জ্বল রহমান, আশরাফুল আলম, আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন মোড়ল,তিমির ঘোষ জয়, কার্তিক পাল, তৌফিকুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা আমিরুল ইসলামসহ এলাকার বিশিষ্টজনেরা উপস্থিত ছিলেন। আনন্দ মুখর পরিবেশে বাড়ির উঠোনে নিবন্ধন আয়োজনে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন কৃষকেরা। সবার কণ্ঠে উচ্চকিত হয় ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন না সত্যি।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।