Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
২১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯, সোমবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১:১৪ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

ব্যাংকে টাকার কোন সংকট নেই: প্রধানমন্ত্রী


২৪ নভেম্বর ২০২২ বৃহস্পতিবার, ০৮:০১  পিএম

কাজী রকিবুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


ব্যাংকে টাকার কোন সংকট নেই: প্রধানমন্ত্রী

যশোর : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা অন্য যে কোন সময়ের তুলনায় অনেক ভালো। আমাদের ব্যাংকে টাকার কোন সংকট নেই। গতকালও বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেছি। তারা আমাকে জানিয়েছেন দেশে রিজার্ভের কোন সংকট নেই। রিজার্ভের টাকা দেশবাসীর কল্যাণে ব্যয় করেছি। 

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার বিকেলে যশোর স্টেডিয়ামে এক জনসমুদ্রে প্রধান অতিথির বক্তৃতা প্রদান করার সময় এসব কথা বলেন।

সকালে যশোর মতিউর রহমান বিমান ঘাঁটিতে বিমান বাহিনীর শীতকালীন কুচকাওয়াজ পরিদর্শণ ও অভিবাদন গ্রহন অনুষ্ঠান শেস করে বেলা ২টা ৪০ মিনিটে যশোর জেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত যশোর শামস উল হুদা স্টেডিয়ামে জনসভা স্থলে পৌঁছান। এসময় প্রধানমন্ত্রীর পরনে ছিল সাদা জমিনের ওপর লাল রঙয়ের ডোরাকাটা সূতি শাড়ী।

প্রধানমন্ত্রীর বহনকারী গাড়িটি সভাস্থলে পৌঁছালে আগে থেকেই উপস্থিত কেন্দ্রীয় নেতারা তাকে অভ্যর্থনা জানান। পরে লাল গালিচা পেরিয়ে দৃপ্ত পদভারে মে উঠে তিনি স্বভাবসূলভ ভঙ্গিতে হাত নেড়ে উপস্থিত জনতাকে স্বাগত জানান। বেলা ৩টা ১৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রীর নাম ঘোষণা করেন জনসভার সঞ্চালনা করেন যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার এমপি। বক্তৃতা মঞ্চে দাঁড়িয়ে বক্তব্যের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী একটি শান্তিপূর্ণ জনসভায় উপস্থিত থাকার জন্য যশোরবাসীকে ধন্যবাদ জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, ’৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে পাকিস্তান বিরোধী যে আন্দোলন সংগ্রাম শুরু হয়েছিল তার সফল পরিসমাপ্তি ঘটেছিল ১৯৭১ সালে মান মুক্তিযুদ্ধে জয়লাভের মধ্য দিয়ে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহবানে সাড়া দিয়ে দেশের আপামর জনসাধারণ জাতির জনকের একডাকেই সাড়া দিয়ে সেদিন সেই সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়েছিল। ত্রিশ লাখ শহীদের আত্মত্যাগ ও লাখো লাখো মা বোনদের আত্মদানের মাধ্যমে আমরা দীর্ঘ ৯ মাসের সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর একটি স্বাধীন রাষ্ট হিসেবে বাংলাদেশকে পেয়েছিলাম। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর একটি যুদ্ধ বিদ্ধস্ত দেশ ও জাতি গঠনে আত্মনিয়োগ করেছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কিন্তু মাত্র কয়েক বছরের ব্যবধানে ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে একটি চক্র এই দেশের উন্নয়নকে স্তিমিত করে দিয়েছিল।

তিনি বলেন, ’৭৫ পরবর্তী দেশের সেনাবাহিনীর হাজার হাজার সদস্যকে হত্যা করেছিল। এসব হত্যাকান্ডের সাথে জিয়া মোশতাক সরাসরি জড়িত ছিল। ’৭৫ পরবর্তী বাংলাদেশে কোন সরকারই উন্নয়ন করেনি। বিএনপি জামাত সরকার যখনই রাষ্ট্রিয় ক্ষমতায় এসেছে তখনই তারা দেশটাকে লুটপাটের কারখানা বানিয়েছে। দেশ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার করেছে। টাকা পাচারের ঘটনায় বিএনপি নেতা তারেক রহমান সাজা প্রাপ্ত হয়ে পলাতক জীবন যাপন করছে। বেগম জিয়া এতিমদের টাকা আত্মসাতের মামলায় সাজা ভোগ করছে। সেই দলের নেতারা বলে তারা নাকি ফের এদশের রাষ্ট্র ক্ষমতায় গিয়ে দেশে গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করবে। অর্থ লুটপাটকারীদের মুথে রিজার্ভ নিয়ে কথা বলা মানায় না।

সরকার প্রধান বলেন, জাতির জনককে স্বপরিবারে হত্যার পর জীবনের ঝুকি নিয়ে আমি দেশে ফিরে মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে লিপ্ত হয়েছিলাম। সেই থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত মানুষের অধিকার আদায়ে কাজ করে যাচ্ছি। আপনাদের রায় নিয়ে আমরা বার বার ক্ষমতায় এসেছি। আর যখই আমরা ক্ষমতায় এসেছি তখন দেশের মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করেছি।আর অতীতে যারা রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিল তারা জাতিকে একটি ভিক্ষুকের জাতিতে পরিণত করেছিল। বিদেশ থেকে পুরোনো কাপড় এনে দেশের মানুষকে পরাতো। মানুষের পেটে খাবার ছিল না। মাথা গোঁজার ঠাঁই ছিল না, রোগে চিকিৎসার ব্যবস্থা ছিল না। আমরা ’৯৬ সালে সরকার গঠন করে এদেশের মানুষের কল্যানে কাজ শুরু করেছি। আমরা ক্ষমতায় এসে দেশের মানুষের চিকিৎসার জন্য গ্রামে গ্রামে কমিউনিটি ক্লিনিক করি। যেখানে আপনারা বিনা পয়সায় এখন চিকিৎসা পাচ্ছেন। বিএনপি জামাত ক্ষমতায় এসে ২০০১ সালে সেই কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করে দিয়েছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্য নিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছি। এই যশোর থেকেই আইটি পার্ক যুগের যাত্রা শুরু করেছিলাম। আজ যশোর আইটি পার্কে দেড় থেকে দুই হাজার যুবকের কর্মসংস্থান হচ্ছে। আজ মানুষের হাতে হাতে আমরা মোবাইল ফোন পৌঁছে দিয়েছি। আর বিএনপি জামাত ক্ষমতায় থেকে মানুষের হাতে তুলে দিয়েছিল অস্ত্র ,খুন আর হত্যা। যশোরে সাংবাদিক শামছুর রহমান মুকুল কে হত্যা করা হয়েছে। খুলনায় আমাদের নেতা মঞ্জুরুল ইমাম কে হত্যা করা হয়েছে। খুলনায় সাংবাদিক বালু, মানিক সাহা হত্যা করা হয়েছে। বিএনপি জামাত দেশবাসীকে হত্যা, খুন গুম উপহার দিয়েছে। নিজেরা মানুষের মুখে গ্রাস কেড়ে খেয়েছে। মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিন খেলেছে। জিয়া যখন মারা যায় তখন ছেড়া গেঞ্জি আর ভাঙা ছুটকেস রেখে গিয়েছিল। কিন্তু ক্ষমতায় গিয়ে তারা হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করে বিদেশে পাচার করেছে। দেশের অর্থ পাচার করেছে। আজ তারা মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে। ২১ আগষ্ট গেনেড হামলা করে বিএনপি জামাত জোট আমাকে হত্যা করতে চেয়েছিল। তারা বার বার আমার উপর হামলা করেছে।

তিনি যশোর অঞ্চল সহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলে বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে বলেন, বিএনপি জামাত জোট সরকার এই অ লের উন্নয়নে কোন কাজই করেনি। আমরা প্রথমে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসে যশোরে বিশ্বকবিদ্যালয়ে ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেছিলাম। বেগম জিয়া ক্ষমতায় এসে সেই প্রকল্প স্থগিত করেছিল। আমরা ফের ক্ষমতায় এসে বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন নতুন ভবন নির্মাণ করেছি। যশোর মেডিকেল কলেজের একাডেমিক ভবন সহ বিভিন্ন বিল্ডিং করেছি।

তিনি বলেন, দেশের অর্থনীতি এখন একটি শক্ত ভিতের ওপর দাড়িয়ে রয়েছে। দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়েছে। দেশের রেমিটেন্স দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। রপ্তানী আয় বেড়েছে।  আমরা বিএনপির রেখে যাওয়া ৫ বিলিয়নের রিজার্ভকে ৪৮ বিলিয়নে উঠাতে সক্ষম হয়েছিলাম। করোনা মহামারির কারনে দেশের অর্থনীতিতে কিছুটা চাপ সৃষ্টি হয়েছিল। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের কারনে সেই ধাক্কা আরো বড় হয়ে দেখা দিয়েছে। পৃথিবীর কোন দেশই করোনার টিকা বিনা মুল্যে তার দেশের মানসুষকে দেয়নি। কিন্তু আমরা কোটি কোটি টাকার করোনা টিকা কিনে দেশের মানুষকে বিনামুল্যে দিয়েছি। আজ্ও বিনামুল্যে ২ কোটি মানুষকে খাদ্য সরবরাহ করা হচ্ছে। ৯০ টাকায় ইউরিয়া কিনে তা কৃষককে ১৬ টাকায় সরবরাহ করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, দেশের ১ ইি জমিও অনাবাদী রাখা যাবে না। দেশের কৃষি উৎপাদন বাড়াতে হবে। বেকার যুব সমাজকে প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে কর্মমুখি করতে হবে। এই জন্য যশোরে আমার মায়ের নাান শেখ জহুরুল হকের নামে একটি আ লিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তোলা হচ্ছে। এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে নারী পুরুষ সবাই প্রশিক্ষণ নিতে পারবে।

টানা ৪৫ মিনিটের ভাষণে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের আমলে যশোর অঞ্চলের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের চিত্র তুলে ধরে বলেন, যশোরবাসীর কল্যাণে আরো কিছু উন্নয়নমুলক প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে। বেনাপোল স্থল বন্দরের উন্নয়ন করা হয়েছে। নওয়াপাড়া নদীবন্দরের কাজ প্রথম ধাপে মেষ হয়েছে। দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ শুরু হবে। পদ্মা সেতু ও কালনা সেতু চালু হওয়ার কারনে যশোরের মানুষের ভ্যাগ্যের আমুল পরিবর্তন ঘটছে। খুব সহজে তারা কৃষি দ্রব্যাদি ঢাকাসহ সারা দেশে পাঠাতে পারছে বলেও প্রধানমসন্ত্রী তার বক্তৃতায় উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, দেশের একজন মানুষও ভ’মিহীন থাকবে না। তার সরকার ভূমিহীনদের জমি ও বাড়ি বিনামুল্যে দান করছে। আগামীতে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আওয়ামীলীগ আসলে দেশের একজন মানুষও ভূমিহীন থাকবে না বলে প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন। তিনি বলেন যশোর ঢাকা রেল লাইনের কাজ এগিয়ে চলছে। যশোর বিমানবন্দরকে আধুনিকায়নের ফলে যশোর কক্সবাজার ফ্লাইট চালু হয়েছে। এই বিমানবন্দরের আরো উন্নয়ন ঘটানো হবে। যশোর মেডিকেল কলেজে ৫শ’ শষ্যার হাসপাতাল করা হবে। কপোতাক্ষ নদের নাব্যতা ও ভবদহ সমস্যার সমাধানে তার সরকার কাজ অব্যাহত রেখেছে বলৌ প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন।

যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলনের সভাপতিত্বে জনসভায় আরো বক্তৃতা করেন সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, কৃষি মন্ত্রী ডঃ আব্দুর রাজ্জাক, প্রেসিডিয়াম মেম্বর পিযুষ কান্তি ভট্ট্রাচার্য, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নেতা শেখ হেলাল এমপি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, মাহাবুব আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বিএম মোজাম্মেল হক সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ।

উল্লেখ্য, ১৭৭২ সালের ২৬ ডিসেম্বর যশোরের এই স্টেডিয়ামে জনসভা করেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার ৫০ বছর পরে সেই মাঠে জনসভা করলেন তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ হাসনা। এবারের জনসভাকে সফল করতে খুলনা বিভাগের সকল জেলার সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন ফরিদপুর ও বরিশাল বিভাগের নেতৃবৃন্দ। এই জনসভাকে জনসমুদ্রে পরিণত করতে যশোর স্টেডিয়ামের উত্তর গ্যালারী ভেঙ্গে পার্শ্ববর্তী রাজ্জাক কলেজের মাঠের সাথে একাকার করা হয়েছি। তার পরও এই জনসভা স্থল উপচে পড়ে জনতার ঢল নামে পার্শ্ববর্তী আরো কয়েকটি মাঠে ময়দানে। ফলে এ কথা নি:সন্দেহে বলা চলে যে এই জনসভায় ৫ লাখের বেশি মানুষের সমাগম ঘটাতে সক্ষম হয়েছে আওয়ামীলীগ।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।