Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
২৯ চৈত্র ১৪২৭, সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১, ৭:৩২ পূর্বাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

শাল্লায় এখনো শুরু হয়নি ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ


১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৮:০২  পিএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


শাল্লায় এখনো শুরু হয়নি ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ

সুনামগঞ্জের শাল্লায় কয়েকটি বাঁধে এখনো শুরু হচ্ছে না পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) ‘ফসল রক্ষা বাঁধ’ নির্মাণকাজ। পওর বিভাগ থেকে বার বার তাগিদ দেওয়া সত্ত্বেও কর্ণপাত হচ্ছে না পিআইসির সদস্যদের। বাঁধের কাজ শুরু না হওয়ায় শঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা। সময় মতো কাজ শেষ না হলে ২০১৭ সালের মতো হাওরডুবির আশঙ্কা রয়েছে হাওরপাড়ের কৃষকদের। হাওর রক্ষা বাঁধের কাজ নিয়েও চলছে ধীরগতি।

জানা গেছে, গত বছরের ৩০ নভেম্বরের মধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি (পিআইসি) গঠনের মাধ্যমে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ শুরু করার কথা এবং আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ওই কাজ শেষ করার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা রয়েছে। তবে বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারী) পর্যন্ত ছায়ার হাওরের পিআইসি নম্বর ৬১ ও পিআইসি নম্বর ৫ উপ-প্রকল্পসহ আরো কয়েকটি বাঁধের কাজ শুরু না হওয়ায় শঙ্কায় রয়েছেন হাওরপাড়ের কৃষক। স্থানীয়রা জানান, হাওরাঞ্চলে ইতোমধ্যে বোরো ধানের চাষাবাদ শেষ হয়ে গেছে। উপজেলার সকবক’টি হাওরে পানি সময়মতো কমেছে।

তবে এখনো বাঁধের কাজ শুরু না হওয়ায় কৃষকরা দুশ্চিন্তাগ্রস্ত রয়েছেন। বোরো ফসল অকাল বন্যার হাত থেকে রক্ষা করতে শীঘ্রই কাজ শুরু করার দাবী জানিয়েছেন স্থানীয়রা। শাল্লা উপজেলা পাউবো অফিস জানিয়েছেন, এবার শাল্লা উপজেলায় ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণের জন্য ২৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। স্থানীয় কৃষক আহমদ হোসেন জানান, দু,তিন বছর পর পর হাওরে ফসল ডুবির ঘটনা ঘটে। গত তিন বছর ধরে হাওর তলিয়ে না গেলেও এবছর বন্যায় হাওর তলিয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে। তাই সময় মত বাঁধের কাজ শেষ না হলে সরকারে প্রচেষ্টা ও বরাদ্দকৃত কোটি টাকা ভেস্তে যাবে।

এদিকে দ্রুত বাঁধের কাজ শুরু করার জন্য মঙ্গলবার জরুরি সভা করেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মোক্তাদির হোসেন। সভায় কাজ শুরু না হওয়ায় সকল প্রকল্পের সভাপতিকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাজ শুরু করার নির্দেশ দেন পওর বিভাগের শাখা কর্মকর্তাকে। অন্যতায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে হুঁশিয়ারি প্রদান করেন।

শাল্লা উপজেলা শাখা কর্মকর্তা ও উপ-সহকারি প্রকৌশলী আব্দুল কাইয়ুম জানান, ওয়ার্ক ওর্ডার দেয়ার সাথে সাথেই কাজ শুরু করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে এখনো কয়েকটি পিআইসি কাজ শুরু করেনি। বার বার কাজ শুরু করার কথা বললেও পিআইসির সদস্যরা কোনো নির্দেশনা মানছেন না। তাই সরজমিন তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।