Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
১৪ কার্তিক ১৪২৭, বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১:৩৮ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

যশোরে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলা তিন সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার


২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার, ১০:৩৩  পিএম

কাজী রকিবুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


যশোরে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলা তিন সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার

যশোর : এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার কারণে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা বুধবার সন্ধ্যায় শহরতলী ধর্মতলা কাঁচা বাজার এলাকায় পরপর শক্তিশালী কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানোর অভিযোগে মামলা হয়েছে থানায়। পুলিশ বোমা বিস্ফোরনের সাথে জড়িত অভিযোগে এজাহার নামীয় তিন আসামীকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে। তাদেরকে বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতে সোপর্দ করেছে।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বিস্ফোরিত বোমার সরাঞ্জাম আলামত হিসেবে উদ্ধার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে,যশোর শহরতলী ধর্মতলা গাজীপাড়ার রবিউল ইসলামের ছেলে রাসেল,সদর উপজেলার খোলাডাঙ্গা ব্রাক অফিসের পিছনে দ্বীন মোহাম্মদের ছেলে রেদোয়ান ওরফে রেজোয়ান হোসেন ওরফে নাহিদ ও ধর্মতলা গাজীপাড়ার আব্দুল আলীম ওরফে বোবা আলীমের ছেলে সুজন ওরফে জিসান।

যশোর সদর উপজেলার খোলাডাঙ্গা গাজীপাড়ার মনির আহম্মেদ এর ছেলে তারেক হাসান বুধবার দিবাগত গভীর রাতে চিহ্নিত ৯ সন্ত্রাসীর নাম ও অজ্ঞাতনামা ৪/৫জন উল্লেখ করে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা দায়ের করেন। মামলায় আসামীরা হচ্ছে,ধর্মতলা গাজীপাড়ার রবিউল ইসলামের ছেলে রাসেল,ধর্মতলা খ্রিষ্টান কবরস্থানের পাশে তবিবরের ছেলে সোহেল, লিটনের ছেলে আরাফাত রাজু,খোলাডাঙ্গা ব্রাক অফিসের পিছনে রেজোয়ান ওরফে রেদোয়ান হোসেন নাহিদ,ধর্মতলা গাজী পাড়ার আব্দুল আলীম ওরফে বোমা আলীমের ছেলে জিসান, বারান্দী মোল্যাপাড়ার শুভ,সুজলপুরের মোতাচ্ছিন হাওলাদারের ছেলে সজল,কারবালা পুকুরের উত্তর পাড়ের সোলাব ও ধর্মতলা কাঁচাবাজার এলাকার আসারের ছেলে আব্দুল্লাহআল- মামুনসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫জন।

এমালায় বাদি তারেক হাসান মামলায় উল্লেখ করেন, স্থানীয় আধিপত্য বিস্তার সংক্রান্তে আসামীদের সাথে তার পূর্ব শত্রুতা চলে আসছিল। তারা বাদীসহ তার আত্মীয়স্বজনদে খুন জখমের হুমকী দিয়ে আসছিল। গত বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৬ বেজে ২০ মিনিটের সময় তারেক হাসানসহ প্রতিবেশী নজরুল ইসলাম, হাসান কবির সাগর,আব্দুল্লাহ আল মামুন, শাকিল গাজী টগর শেখ ধর্মতলা কাঁচা বাজারস্থ আজিম ফার্মেসীর সামনে ফাঁকা স্থানে দাঁড়িয়ে কথা বার্তা বলছিল। ওই সময় আসামীরা স্থানীয় আধিপত্য ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরিয়া পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে তারেক হাসানসহ সেখানে থাকা সকলকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে সোহেলের নেতৃত্বে ও হুকুমে আসামীরা পরপর ৩/৪টি হাত বোমা নিক্ষেপ করে। বোমা বিস্ফোরণ ঘটায় এলাকায় আতংক বিরাজ করে। বোমার স্প্রিন্টারে ২/৩ জন আহতর খবর পাওয়া যায়।

বোমা বিস্ফোরণের পর স্থানীয়রা বোমা বিস্ফোরণকারীদের মধ্যে রাসেল নামে এক সন্ত্রাসীকে ধরে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। পরে পুলিশ রাতে রাসেলের স্বীকারোক্তি মোতাবেক সহযোগী রেদোয়ান ওরফে রেজোয়ান হোসেন ওরফে নাহিদ ও সুজন ওরফে জিসানকে গ্রেপ্তার করে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।