Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, শনিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ৮:১৫ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

চলে গেলেন প্রখ্যাত ছন্দশিল্পী অজিত গোস্বামী


২৬ অক্টোবর ২০১৯ শনিবার, ০৭:৫০  পিএম

বহুমাত্রিক ডেস্ক


চলে গেলেন প্রখ্যাত ছন্দশিল্পী অজিত গোস্বামী

দেশের প্রখ্যাত ছন্দ শিল্পী, প্রাচীন সাংস্কৃতিক সংগঠন সুরবিতান সঙ্গীত একাডেমীর আহবায়ক অজিত গোস্বামী (৮২) আর নেই। তিনি শনিবার দুপুরে যশোর শহরের বেজপাড়ার নিজ বাসভবনে বার্ধক্য জনিত কারণে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

এছাড়া তিনি দীর্ঘদিন ধরে শ্বাসকষ্ঠে ভুগছিলেন। তার মৃত্যুতে যশোরে সাংস্কৃতিক অঞ্জনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। ছন্দশিল্পী অজিত গোস্বামী মৃত্যুকালে এক ছেলে দুই মেয়েসহ অসংখ্যক গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

বিকাল সাড়ে ৫টায় সুরবিতান সঙ্গীত একাডেমির প্রাঙ্গনে আনা হয়। সেখানে তার দীর্ঘদিনের সুরবিতানের সহকর্মী, ছাত্র-ছাত্রীরা শেষ শ্রদ্ধা জানান। এরপর বিদ্রোহী সাহিত্য পরিষদ শ্রদ্ধাঞ্জলি জানায়। স্থান সংকুলান না হওয়ায় তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় বিবর্তনের কার্যালয়ে।

এসময় সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, যশোর শিল্পকলা একাডেমি, বিবর্তন যশোর, উদীচী যশোর, মাইকেল সঙ্গীত একাডেমি, যশোর শিল্পী গোষ্ঠী, চাঁদেরহাট যশোরসহ যশোরের সাংস্কৃতিক সংগঠন গুলো শেষ শ্রদ্ধা জানান। যশোর ঝুমঝুমপুর মহাশ্মশানে সন্ধ্যার পর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়।

ছন্দশিল্পী অজিত গোস্বামীর পিতা, সুরবিতান সঙ্গীত একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা ও জমিদাতা সুরসাধক গোপাল গোস্বামীর হাতে তবলায় হাতে খড়ি। তারপর সুরবিতানে ছাত্র থাকা অবস্থায় যশোরে প্রতিটি অনুষ্ঠানে তবলা সঙ্গত করে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি।

ষাট দশকে তিনি ঢাকার সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সাথে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন। এখানে তিনি ওস্তাদ মনজুর হোসেন খানসহ প্রখ্যাত ওস্তাদের নিকট তবলায় উচ্চ শিক্ষায় তালিম নেন। ১৯৬৬ সালে অজিত গোস্বামী সংগীত মহাবিদ্যালয় (ঢাকা) তবলা বিভাগের শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৬৭ সালে তিনি তদানীস্তন রেডিও পাকিস্তাক ঢাকা কেন্দ্রে নিজস্ব শিল্পী হিসেবে নিয়োগ পান।

১৯৭০ সালে তিনি পাকিস্তান উচ্চাঙ্গ সংগীত সম্মেলনে পূর্ব পাকিস্তানের পক্ষ থেকে অংশগ্রহণ করেন। এ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে নিয়াজ মোহাম্মদ চৌধুরী, ফরিদা খানম, ইলা মজুমদার, ওস্তাদ নাজাকাত আলী খাঁ, ওস্তাদ সালামাত আরী খাঁ, মেহেদি হাসানসহ প্রখ্যাত গুণিশিল্পীরা যোগদান করেন। ১৯৭৩ সালে ভারত বাংলাদেশ সংগীত সম্মেলনেও তিনি অংশ গ্রহণ করেন। ভারত ও বাংলাদেশের খ্যাতিমান শিল্পীদের সাথে তবলা বাজিয়ে ব্যাপক কৃতিত্ব প্রদর্শন করেন।

১৯৭৬ সালের প্রথম দিকে তিনি যশোরে ফিরে আসেন এবং পিতার প্রতিষ্ঠিত সুরবিতান সঙ্গীত একাডেমীর শিক্ষকতায় আত্মনিয়োগ করেন। তার শিক্ষকতা জীবনে অসংখ্য কৃতি শিল্পী গড়ে তুলেছেন।
১৯৮৫ সালে যশোর ত্যাগ করে অজিত গোস্বামী ঢাকাতে চলে যান। তিনি সংগীত ভবন, ছায়ানট, শিল্পকলা একাডেমীসহ একাধিক প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত থাকে সংস্কৃতির সেবা করেছেন।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

Netaji Subhash Chandra Bose
BRTA
Bay Leaf Premium Tea

শিল্প-সংস্কৃতি -এর সর্বশেষ