Bahumatrik | বহুমাত্রিক

সরকার নিবন্ধিত বিশেষায়িত অনলাইন গণমাধ্যম

শ্রাবণ ৮ ১৪৩১, বুধবার ২৪ জুলাই ২০২৪

নতুন রূপে ফিরছে নজরুলের কৃষ্ণনগরের সেই বাড়ি (ভিডিও)

আশরাফুল ইসলাম, কৃষ্ণনগর থেকে

প্রকাশিত: ১৭:৪১, ৮ মার্চ ২০২৩

আপডেট: ১৮:২৫, ৮ মার্চ ২০২৩

প্রিন্ট:

নতুন রূপে ফিরছে কবি কাজী নজরুল ইসলামের বসবাস করা কৃষ্ণনগরের সেই বাড়ি। এই বাড়িতে বসবাসরত অবস্থায় কবিপুত্র বুলবুলের জন্ম হয়। এখানে বসেই কবি রচনা করেন মৃত্যুক্ষুধা, ছাত্রদলের গান এর মতো অজস্র কালজয়ী লেখা।

২০১২ সালে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার বাড়িটিকে সংরক্ষণের নিমিত্তে এটিকে হেরিটেজ ভবন হিসেবে ঘোষণা করে।বর্তমানে এর সংস্কার কাজ চলমান। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন অচিরেই দর্শনার্থীদের জন্য এটি উন্মূক্ত করা হতে পারে।  

একাধিক নজরুল জীবনীকারের তথ্যমতে, কবির জীবনের এক কঠিন সময়ে ঘনিষ্ঠবন্ধু হেমন্ত কুমার সরকারের আমন্ত্রণে কবি কৃষ্ণনগরে আসেন। সংসার জীবনে দারিদ্রের কষাঘাতে জর্জর নজরুল ১৯২৬ সালের ৩ জানুয়ারি কৃষ্ণনগর শহরের গোলাপট্টিতে বন্ধু হেমন্তের বাড়িতে উঠেন।  ওই বছরেই কবি সপরিবারে শহরের গ্রেস কটেজ ভাড়া নেন। কবির অকালপ্রয়াত পুত্র বুলবুলের জন্ম হয় এই বাড়িতেই। জানা যায়, এখানে বসবাসরত অবস্থাতেই কবির মা জাহেদা খাতুন প্রয়াত হন। প্রাপ্ততথ্য মতে, ১৯২৬ সালের জুন থেকে ১৯২৮ সালের ডিসেম্বর অবধি সপরিবারে এই কটেজেই বাস করেন নজরুল।

নজরুল জীবনের বিয়োগান্তক বহু ঘটনার সাক্ষী এই বাড়ি। এখানে বসেই কবি রচনা করেন বাংলা ভাষায় প্রথম গজল। গ্রেস কটেজে বসেই নজরুল সৃষ্টি করেন দারিদ্র্য, ফণী-মনসা, সাম্যবাদী, পূবের হাওয়া'র মত কালজয়ী কবিতা ও কাব্যগ্রন্থ। কবির কালজয়ী আরেক রচনা মৃত্যুক্ষুধাও রচিত হয় এই কটেজে অবস্থানকালেই। সেসব বিচারে এই বাড়ি বাংলা সাহিত্যের জন্যও এক আশীর্বাদ হয়ে এসেছিল। দীর্ঘদিন পরিত্যাক্ত অবস্থায় থাকার পর হেরিটেজ ঘোষণায় নজরুল স্মৃতি বিজড়িত এই স্থাপনাটি সংরক্ষণের আলো দেখলো। 

Walton Refrigerator Freezer
Walton Refrigerator Freezer