Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
১০ কার্তিক ১৪২৭, রবিবার ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৪:২৯ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

মহামারীতে উচ্চশিক্ষা: সংকটে মিললেন বাংলাদেশ ও ভারতের শিক্ষাবিদরা


১৩ অক্টোবর ২০২০ মঙ্গলবার, ১২:৫২  এএম

বিশেষ প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


মহামারীতে উচ্চশিক্ষা: সংকটে মিললেন বাংলাদেশ ও ভারতের শিক্ষাবিদরা

বৈশ্বিক মহামারী করোনায় বিপর্যস্ত জনজীবনের সঙ্গে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে সব স্তরের শিক্ষা কার্যক্রম। কিন্তু সভ্যতার চাকাকে সচল রাখতে শিক্ষা কার্যক্রমকে চলমান রাখার কোন বিকল্প নেই।

এমন বাস্তবতায় জীবনকে নিরাপদ রেখে প্রজন্মের শিক্ষা গ্রহণকে নির্বিঘ্ন করার উপায় খুঁজেছেন চিরবন্ধুপ্রতীম বাংলাদেশ ও ভারতের শিক্ষাবিদরা। জাতীয় ও বৈশ্বিক সংকটকালে অতীতের মতোই দু’দেশের সহমর্মি সহবস্থানের ঐতিহ্যিক পরম্পরাকে এগিয়ে নেওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন তাঁরা।

ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মকে ব্যবহার করে গেল টানা তিনদিন এই শিক্ষাবিদগণ মিলেছিলেন এই সময়ে শিক্ষা কার্যক্রমে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জসমূহ কিভাবে কমিয়ে আনা যায়-তার সম্ভাব্য উপায় খুঁজতে। শনিবার শুরু হওয়া মহামারীতে উচ্চ শিক্ষা শীর্ষক তিন দিনব্যাপি এই ওয়েবিনার শেষ হয় সোমবার। এতে বাংলাদেশ ও ভারতের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকগণ সংকট নিরসনে বিভিন্ন পরামর্শ তুলে ধরেন। সময়ের প্রবাহমান গতির সঙ্গে প্রজন্মের শিক্ষা গ্রহণ যাতে কোনভাবেই পিছিয়ে না পড়ে সেজন্য প্রযুক্তির বিদ্যমান সুবিধার সর্বত্তোম সদ্ব্যবহারের ওপর জোর দেন তাঁরা।

‘ইন্টারন্যাশনাল মাল্টিডিসিপ্লনারি ওয়েবিনার অন লিভিং উইথ কোভিড ১৯: ইমপ্যাক্ট অন হায়ার এডুকেশন ইন ইন্ডিয়া এন্ড বাংলাদেশ’ শীর্ষক তিনদিনের এই আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারের আহ্বায়ক ছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট-এর পরিচালক অধ্যাপক ড. মনিরা জাহান।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট; কাউন্সিল ফর টিচার এডুকেশন ফাউন্ডেশন (সিটিইএফ), বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল; এবং কাউন্সিল ফর এডুকেশনাল এডমিন্সট্রেশন এন্ড ম্যানেজমেন্ট (সিইএএম), ইন্ডিয়া-এর যৌথ উদ্যোগে এই আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত হয়।

সম্মেলন পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও সাবেক চেয়ারম্যান এবং সিটিইএফ, বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল এর সভাপতি ড. অরুণ কুমার গোস্বামী। ওয়েবিনারের সমাপনী অনুষ্ঠানে বিশেষ বক্তৃতা দেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আাহমদ।

এতে ভ্যালেডিকটরি বক্তৃতা প্রদান করেন ভারতের কেরালা রাজ্যের বাথরির বিশপ রেভারেন্ড ড.জোশেপ মার টমাস এবং ধন্যবাদ প্রস্তাব পাঠ করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীব বিজ্ঞান বিভােেগর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. জাকারিয়া মিয়া।

গত ১০ অক্টোবর, শনিবার সকাল ১০ টায় তিনদিন ব্যাপী এই আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারের উদ্বোধন ঘোষণা করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং এই ওয়েবিনারের প্রধান পৃষ্ঠপোষক অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সিটিইএফ বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল-এর সভাাপতি অধ্যাপক ড. অরুণ কুমার গোস্বামী।

উদ্বোধনী আনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সিইএএম-ইন্ডিয়ার ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট ড. ভি. এম. শশীকুমার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ফাজরিন হুদা এবং সেন্টার ফর বাংলাদেশ ইন্ডিয়া রিলেশন্স (সিবিআাইআার) এর জাতীয় সমন্বয়ক শুভাশীষ সমাদ্দার।

প্রতিদিন বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টা, ভারতের সময় সকাল সাড়ে ৯ টা থেকে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টা, ভারতের সময় ৩টা পর্যন্ত চলে এই ওয়েবিনার। তিনদিন ব্যাপী এই ওয়েবিনারে প্রায় ৫০টি গবেষণাপত্র উপস্থাপিত হয়। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিটিইএফ, ইন্ডিয়ার ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ড. কে. এম. ভান্ডারকার পাঠ করেন।

অস্ট্রিয়ার কার্র্ল ফ্রাঞ্জেন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. বির্জিত ফিলিপ্স, ভারতের অধ্যাপক ড. ভি. রেঘু, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড.অরুণ কুমার গোস্বামী এবং অধ্যাপক ড. মনিরা জাহানসহ দশজন জ্যেষ্ঠ গবেষক দশটি থিম পেপার উপস্থাপন করেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. অশোক কুমার সাহা, অধ্যাপক ড. নুর মোহাম্মদ, এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নিবেদিতা রায়সহ অন্যরা নয়টি প্যানেল পেপার উপস্থাপন করেন।

তিনদিনের ছয়টি প্রবন্ধ উপস্থাপন সেশনে ভারতের ড. মধুবালা জয়চন্দ্রন ও ড.ববি মোহান্ত, বাংলাদেশের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগর অধ্যাপক ড. পরিমল বালা, অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও জবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. শামীমা বেগম, সমাজ কর্ম বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, জবি আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক সহযোগী অধ্যাপক ড. প্রতিভা রানী কর্মকার, এবং জবি আইন বিভাগের সহযোগী আধ্যাপক ড. মাসুম বিল্লাহ প্রমুখ সভাপতিত্ব করেন।

ওয়েবিনারে সঞ্চালনা করেন ভারতের কেরালার সহকারী অধ্যাপক ড. নিম্মি মারিয়া ওম্মেন, ড. আশা এ.কে. এবং জবি আইআর-এর রাহুল চন্দ্র সাহা। ভার্চুয়াল এই আয়োজন সফল করতে ২৫ সদস্য বিশিষ্ট সাংগঠনিক কমিটি নিরবচ্ছিন্ন কাজ করেন। এই কমিটির সমন্বয়ক হিসেবে ছিলেন সিইএএম, ইন্ডিয়ার ন্যাশনাল ভাইস-প্রেসিডেন্ট ড. এম. এস. গীতা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. প্রতিভা রানী কর্মকার।

সমন্বয়ক (কারিগরি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন ড. নিম্মি মারিয়া ওমেন এবং আইইআর, জবি এর সহকারী অধ্যাপক কাজী ফারুক হোসেন। কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন জবি প্রাণীবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আসাদুজ্জামান রিপন; এবং আইআর এর প্রভাষক রাহুল চন্দ্র সাহা।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।