Bahumatrik | বহুমাত্রিক

সরকার নিবন্ধিত বিশেষায়িত অনলাইন গণমাধ্যম

শ্রাবণ ৯ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪

অধ্যাপক তাহের হত্যা: এক আসামির ফাঁসির আদেশ স্থগিতের আবেদন

বহুমাত্রিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:২৮, ২৩ মে ২০২৩

প্রিন্ট:

অধ্যাপক তাহের হত্যা: এক আসামির ফাঁসির আদেশ স্থগিতের আবেদন

ফাইল ছবি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভূ-তত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. এস তাহের হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মো. জাহাঙ্গীর আলমকে মৃত্যুদণ্ড থেকে বাঁচাতে প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন করা হয়েছে। জাহাঙ্গীর আলম নিহত ড. তাহেরের বাসার কেয়ারটেকার ছিলেন।

মঙ্গলবার (২৩ মে) সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। জানা গেছে, এর আগে গত ২২ মে জাহাঙ্গীরের ভাই হাফেজ মো. সোহরাব হোসেন রেজিস্ট্রি ডাকযোগে প্রধান বিচারপতির কাছে এ আবেদন করেন। রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপারকে আবেদনের অনুলিপি পাঠানো হয়েছে। আবেদন নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ফাঁসি কার্যকর স্থগিত রাখতে অনুরোধ করা হয়েছে।

আবেদনে আরও বলা হয়েছে, ‘আমি মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির ভাই হিসেবে এবং অল্পশিক্ষিত একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে আমার ভাই জাহাঙ্গীর আলমকে সংবিধানের ৩৩ (২) অনুচ্ছেদ এবং ফৌজদারী কার্যবিধির ৬১ ধারা লঙ্ঘন করে আটক রেখে অবৈধভাবে স্বীকারোক্তি আদায়ের মাধ্যমে তার প্রতি অবিচার কিংবা সংবিধানে বর্ণিত মৌলিক অধিকার লঙ্ঘন হয়েছে কিনা সেটি খতিয়ে দেখার জন্য এবং আমার ভাইকে মৃত্যুদণ্ড থেকে রক্ষার জন্য আপনার নিকট একটি মানবিক আবেদন জানাচ্ছি। আমার জানামতে আমাদের নিয়োজিত আইনজীবীরা নিম্ন আদালত থেকে শুরু করে মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের (হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগ) কোথাও সংবিধানের ৩৩ (২) নং অনুচ্ছেদে বর্ণিত মৌলিক অধিকারের প্রশ্নটি যথাযথভাবে উত্থাপন করতে সক্ষম হননি বিধায় ন্যায় বিচারের স্বার্থে এবং বিচার বিভাগের সর্বোচ্চ অভিভাবক হিসেবে আপনি আমার অসহায় ভাইয়ের মৃত্যুদণ্ডের বিষয়টি পর্যালোচনাপূর্বক পনর্বিবেচনা করতে আপনার নিকট সবিনয় নিবেদন করছি এবং আমার এই আবেদন নিষ্পত্তি হওয়া পর্যন্ত আমার ভাই জাহাঙ্গীর আলমের মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর স্থগিত রাখতে যথাবিহিত আদেশ প্রদান করতে আপনার প্রতি কাতর মিনতি জানাচ্ছি।’

গত ২ মার্চ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ভূ-তত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. এস তাহের হত্যা মামলায় আপিল বিভাগের রায় পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়ে আসামিদের করা আবেদনের খারিজ করে দেন আপিল বিভাগ। ফাঁসির দণ্ডাদেশ বহাল রাখা দুই আসামি হলো- একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মিয়া মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ও নিহত ড. তাহেরের বাসার কেয়ারটেকার মো. জাহাঙ্গীর আলম। অপর দুই আসামি মো. জাহাঙ্গীর আলমের ভাই নাজমুল আলম ও নাজমুল আলমের স্ত্রীর বড় ভাই আব্দুস সালামের যাবজ্জীবন দণ্ডও বহাল রাখেন আদালত। প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন ৮ বিচারপতির পূর্ণাঙ্গ আপিল বেঞ্চ এ রায় দেন।

পরে তাহের হত্যা মামলায় চূড়ান্ত রায়ে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া দুই আসামির ফাঁসি কার্যকর স্থগিত চেয়ে গত ৭ মে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়। দুই আসামির পক্ষে তাদের ভাই ও স্ত্রী রিটটি দায়ের করেন। রিট আবেদনে বলা হয়, এ মামলায় আসামিদের আটক, গ্রেফতার ও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণে সংবিধান ও সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনার ব্যত্যয় হয়েছে। তাই এক আসামির ভাই ও আরেক আসামির স্ত্রী পৃথক রিট আবেদন করেন। তাই রিটে আসামিদের ফাঁসি কার্যকর স্থগিত চাওয়া হয়। তবে গত১৪ মে রিট আবেদন দুটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করে দেন হাইকোর্ট।

প্রসঙ্গত, ২০০৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি রাবির কোয়ার্টারের ম্যানহোল থেকে উদ্ধার করা হয় পদোন্নতি সংক্রান্ত বিষয়ের জের ধরে নৃশংসভাবে হত্যার শিকার অধ্যাপক তাহেরের মরদেহ। ৩ ফেব্রুয়ারি নিহত অধ্যাপক তাহেরের ছেলে সানজিদ আলভি আহমেদ রাজশাহী মহানগরীর মতিহার থানায় অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় ২০০৭ সালের ১৭ মার্চ ছয়জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দিয়েছিল পুলিশ। মামলাটির বিচার শেষে ২০০৮ সালের ২২ মে রাজশাহীর দ্রুত বিচার আদালত চারজনকে ফাঁসির আদেশ ও দুজনকে খালাস দেন।

দণ্ডিতরা হলো- একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মিয়া মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, নিহত অধ্যাপক ড. তাহেরের বাসারের কেয়ারটেকার মো. জাহাঙ্গীর আলম, জাহাঙ্গীর আলমের ভাই নাজমুল আলম ও নাজমুল আলমের সমন্ধি আব্দুস সালাম। খালাসপ্রাপ্ত চার্জশিটভুক্ত দুই আসামি হলেন- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রশিবিরের তৎকালীন সভাপতি মাহবুবুল আলম সালেহী ও আজিমুদ্দিন মুন্সী।

Walton Refrigerator Freezer
Walton Refrigerator Freezer