Bahumatrik | বহুমাত্রিক

সরকার নিবন্ধিত বিশেষায়িত অনলাইন গণমাধ্যম

শ্রাবণ ৯ ১৪৩১, বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪

‘ভবিষ্যতে আন্তঃজেলা বিমান যোগাযোগ ব্যবস্থার পরিকল্পনা আছে’

বহুমাত্রিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩:৫৬, ৭ অক্টোবর ২০২৩

প্রিন্ট:

‘ভবিষ্যতে আন্তঃজেলা বিমান যোগাযোগ ব্যবস্থার পরিকল্পনা আছে’

ছবি- সংগৃহীত

ভবিষ্যতে বিমানের মাধ্যমে আন্তঃজেলা সংযোগের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আয়োজিত থার্ড টার্মিনালের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের ভৌগলিক অবস্থান; ভারত মহাসগর, অপরদিকে প্রশান্ত মহাসাগর, সেই সঙ্গে সঙ্গে আমাদের বঙ্গোপসাগর—প্রাচীন যুগ থেকে এই জায়গাটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আর আমাদের ভৌগলিক অবস্থানটা হচ্ছে ঠিক আন্তর্জাতিক এয়ার রুট। বাংলাদেশটাকে যদি আমরা সেভাবে উন্নত করতে পারি, প্রাচ্য-পাশ্চাত্য বা তার বেশি যোগাযোগের জন্য একটা চমৎকার জায়গা হতে পারে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেদিকে লক্ষ্য রেখে ইতিমধ্যে আমরা কক্সবাজার বিমানবন্দরটাকে আধুনিক এবং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসেবে নির্মাণ করে যাচ্ছি। সঙ্গে সঙ্গে অন্যান্য বিমানবন্দরগুলোকেও আমরা উন্নত করছি। যেমন আমাদের সৈয়দপুর যাতে আঞ্চলিক বিমানবন্দর হিসেবে যাতে গড়ে ওঠে সেই পদক্ষেপ নিয়েছি। তা ছাড়া সিলেটেরও উন্নতি করা হচ্ছে। বরিশাল, রাজশাহী, যশোর—সব রুটগুলো যাতে আরও উন্নত হয় সে পদক্ষেপ নিয়েছি।’

‘আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে, একটা জেলা থেকে আরেকটা জেলা কক্সবাজারের সঙ্গে যাতে সংযোগ হয়, সেই পদক্ষেপ আমরা নিচ্ছি। ইতিমধ্যে সিলেট থেকে কক্সবাজার সরাসরি যাওয়া যায় কিন্তু অন্যান্য বিমানবন্দরকেও কক্সবাজারের সঙ্গে সংযুক্ত করে দেওয়া; এটাও আমাদের লক্ষ্য রয়েছে’, যোগ করেন সরকারপ্রধান।

তিনি আরও বলেন, ‘ভবিষ্যতে আমরা আরও কিছু বিমান যখন নেব তখন আমাদের আন্তঃজেলা সংযোগ বিমানের মাধ্যমে যাতে হয় সেই পরিকল্পনা আমার রয়েছে। সেভাবে আমরা উন্নতি করতে চাই।’

বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন ও শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে আন্ডার পাসের মাধ্যম সংযুক্ত করা হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কাজেই রেলেও যাত্রীরাও স্টেশনে নেমে এই আন্ডার পাস দিয়েই কিন্তু চলে আসবে। তবে অতদূর পায়ে হেঁটে আসতে হবে না, অন্যান্য আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সেখানে থাকবে। এমনকি পণ্য পরিবহনের ব্যবস্থাও রাখা হবে।’

বর্তমানে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের বার্ষিক যাত্রী পরিবহনের সক্ষমতা ৮০ লাখ জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, 'এই তৃতীয় টার্মিনালটা সম্পূর্ণ চালু হলে প্রায় এক কোটি ২০ লাখ যাত্রী, তবে ভবিষ্যতে এটা প্রায় দুই কোটির কাছাকাছি হবে বলে আমি বিশ্বাস করি। বাংলাদেশের ভৌগলিক অবস্থানের কারণে এই বাংলাদেশটাই হবে এক সময় কক্সবাজার বা আমাদের হযরত শাহজালার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, এটাই হবে আন্তর্জাতিক বিমান পরিবহনের হাব।’

তিনি বলেন, ‘আমরা চাই আমাদের দেশ এগিয়ে যাক। এভিয়েশন খাতের আরও উন্নতি হোক। অতীতে এই খাতে উন্নয়নের এত পদক্ষেপ কেউ নেয়নি। ২৯ বছর যারা ক্ষমতায় ছিলেন, দেশের মানুষকে কিছু দিয়ে যেতে পারেননি। আওয়ামী লীগই দিয়েছে। মানুষের মধ্যে একটা আত্মমর্যাদাবোধ তৈরি করে দিয়েছি। বিশ্বের বুকে মর্যাদার সঙ্গে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছি।’

এর আগে সকাল ১০টার পরে বিমানবন্দরের তৃতীয় টার্মিনালে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সেখানে তিনি শিশুদের সঙ্গে ছবি তোলেন এবং কথা বলেন। পরে টার্মিনালের করিডোর ঘুরে দেখেন। বিমানন্দরের প্রক্রিয়া অনুযায়ী তিনি লাগেজ চেকিং করান, বোর্ডিং পাস নেন এবং যথারীতি ইমিগ্রেশনের কাজ শেষে কাউন্টার পার হন। পরে প্রি বোর্ডিং সিকিউরিটি স্ক্যান করান এবং চলন্ত ওয়াকওয়ে পার হয়ে বোর্ডিং ব্রিজে যান প্রধানমন্ত্রী।

তৃতীয় টার্মিনালের বিভিন্ন স্পটে আলোকচিত্রে বিমান ও বিমানবন্দরের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী এগুলো অবলোকন করেন। পুরো প্রক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী নানা বিষয়ে ব্রিফ করেন বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান।

বিমানবন্দরের এই পুরো প্রক্রিয়া শেষ করে তৃতীয় টার্মিনাল প্রাঙ্গণের অনুষ্ঠান স্থলে পৌঁছান। সেখানে জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এসময় প্রধানমন্ত্রীসহ পুরো অর্ডিয়েন্স দাঁড়িয়ে ঠোট মেলান। পরে পবিত্র ধর্মগ্রন্থ সমূহ থেকে পাঠ করা হয়। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান। আরও বক্তব্য দেন বিমান প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, বিমান সচিব মেকাম্মেল হোসেন প্রমুখ।

পরে তৃতীয় টার্মিনাল, বিমান ও বিমানবন্দরের উন্নয়নের ওপর একটি ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। বেবিচকের কর্মকাণ্ডের ওপরও একটি ডকুমেন্টারি দেখানো হয়।

অনুষ্ঠানে বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী, স্থানীয় সংসদ সদস্য হাবিব হাসান, জাপান ও জাইকার প্রতিনিধি, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য সহ সরকারের পদস্থ কর্মকর্তারা অংশ নেন।

Walton Refrigerator Freezer
Walton Refrigerator Freezer