Bahumatrik | বহুমাত্রিক

সরকার নিবন্ধিত বিশেষায়িত অনলাইন গণমাধ্যম

বৈশাখ ৬ ১৪৩১, শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪

যানজটমুক্ত স্মার্ট ময়মনসিংহ সিটি গড়তে টিটুতেই আস্থা ভোটারদের

মোঃ নজরুল ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৪:২০, ৬ মার্চ ২০২৪

প্রিন্ট:

যানজটমুক্ত স্মার্ট ময়মনসিংহ সিটি গড়তে টিটুতেই আস্থা ভোটারদের

ছবি: সংগৃহীত

সাত মার্চ মধ্য রাতে শেষ হচ্ছে নির্বাচনী প্রচারণা ৯ মার্চ ভোট গ্রহণ। স্মরণকালের সেরা প্রচার-প্রচারণায় জমজমাট ও উৎসবমূখর হয়ে উঠেছে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন (মসিক) নির্বাচন । প্রার্থীরা নির্ঘুম প্রচারণা চালিয়ে ভোটারদের মন জয়ে অতিক্রম  করছেন ব্যস্ত সময়।

নগরবাসীর মধ্যেও বিরাজ করছে নির্বাচনী উৎসবের আমেজ। নির্বাচনের মাঠে কাউন্সিলর পদে তীব্র প্রতিদ্বন্ধীতার কথা নগরবাসীরা বললেও মেয়র পদে বলছেন ভিন্ন কথা। চলমান উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে যানজট- জলজট মুক্ত  উন্নত সমৃদ্ধ স্মার্ট সিটি গড়তে সুশিক্ষত, মার্জিত এবং স্মার্ট মেয়র চান ভোটাররা।  সেই প্রতিদ্বন্ধীতায় জনজোয়ারের মানদণ্ডে অন্য মেয়র প্রার্থীর চেয়ে অনেক এগিয়ে রয়েছেন  সদ্য সাবেক  মেয়র মোঃ একরামুল হক টিটু। 

আধুনিক ও টেকসই নগর নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৯ সালের ৫ মে মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন ইকরামুল হক টিটু। নগর উন্নয়নে সেই প্রতিশ্রুতির অনেকটাই বাস্তবায়ন করেছেন তিনি। পূরনো বিলুপ্ত পৌরসভার ২১ টি ওয়ার্ডের সাথে সংযুক্ত নতুন ১২টি ওয়ার্ডসহ নগরের ৩৩ টি ওয়ার্ডেই একযোগে  দৃশ্যমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সহ ১১৭ কিলোমিটার বিসি রোড, ২৩৯ কিলোমিটার আরসিসি রোড, ১.৬১ কিলোমিটার সিসি রোড, ২৩৮ কিলোমিটার ড্রেন ১১.৩৭ কিলোমিটার পাইপ ড্রেনের কাজ এখনও চলমান। শহরের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র হিসেবে টিটুকেই এগিয়ে নেয়ার কথা অনেক দায়িত্বশীল সচেতন  ভোটাররা প্রকাশ্যেই বলছেন। 

জানতে চাইলে ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক আন্দোলন ও উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা  ইঞ্জিনিয়ার নুরুল আমিন কালাম বলেন, ‘ময়মনসিংহ সিটির বয়স সবে মাত্র ৫ বছর। এর দুই বছর গেছে করোনায়। এরপর তো বাজেট বরাদ্দ-এই আছে এই নাই। আধুনিক নগর সেবার বলতে এখন যেটুকু দেখছেন সেটার পুরো কৃতিত্ব আমরা সদ্য বিদায়ী মেয়র টিটুকেই দিব। তিনি একক প্রচেষ্টায় ও প্রধানমন্ত্রীর সহযোগীতায় বাস্তবায়ন করেছেন। এতো অল্প সময়ে যেটুকু করেছেন আর যেটুকু চলমান আছে তাতে নগরবাসী বেশ খুশি। আমার বিশ^াস-স্মার্ট সিটির জন্য স্মার্ট মেয়র হিসেবে তাকেই বেছে নিবেন ভোটাররা।’ 

৯ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচন। এ নির্বাচনে ৫জন প্রার্থী মেয়র পদে লড়ছেন। নির্বাচনী এলাকা ঘুরে জানা যায়, ৫ জন প্রার্থীর মধ্যে প্রচার-প্রচারণা ও পোস্টারিংএ তিনজন প্রার্থীর সরব উপস্থিতি রয়েছে। তারা হলেন-সদ্যবিদায়ী মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. ইকরামুল হক টিটু (ঘড়ি প্রতীক), জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এহতেশামুল আলম (ঘোড়া প্রতীক) ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য সাদেকুল হক খান মিল্কী টজু (হাতী প্রতীক)। 

সাদেকুল হক খান মিল্কী টজু ময়মনসিংহ সদর আসনের (ময়মনসিংহ-৪) এমপি মুহিত উর রহমান শান্ত’র প্রার্থী। শান্ত ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ক্ষমতার দ্ব›েদ্ব টিটু-শান্ত’র অবস্থান এখন বিপরীত মেরুতে। ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের কমপক্ষে ৪ জন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সাদেকুল হক খান মিল্কী টজু এমপি শান্তর প্রার্থী হলেও ধীরে ধীরে একা হয়ে পড়ছেন। এমপি শান্ত তার মেয়র প্রার্থী টজু থেকে মুখ ফিরিয়ে কাউন্সিলরদের দিকে ঝুঁকছেন। মাঠের হিসাবে টিটুর জনপ্রিয়তায় মেয়র পদে টজুকে জিতিয়ে আনা সম্ভব নয় ধরে তিনি বিকল্প পথে হাটছেন। এজন্য নিজ বলয়ের ২০ জন কাউন্সিলর প্রার্থীর পক্ষে অনুসারীরর কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন মুহিত উর রহমান শান্ত। আর এতে অনেকটাই নি:সঙ্গ টজু। 

অপর প্রতিদ্ব›দ্বী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম (ঘোড়া প্রতীক) স্বশিক্ষিত। এনিয়ে ভোটারদের মধ্যে সমালোচনা ও মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেয়া দিয়েছে। নগরের ২০ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা (মুদি দোকান্দার) আব্দুর রহমান বলেন, ডিজিটাল নগর করতে তো সুশিক্ষিত ও স্মার্ট মেয়র লাগবে। সে হিসেবে নতুনদের কারোই এ যোগ্যতা নেই। তাই এবারও পুরনো নগর পিতার দিকেই হাটতে হবে।

ময়মনসিংহ চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজর সহ-সভাপতি শংকর সাহা বলেন, ভোটাররা সাধারণ কোথায় ভোট দিবেন তা গোপন রাখেন, কিন্তু ময়মনসিংহ সিটি নির্বাচনে ভোটারদের অবস্থান পরিষ্কার করছেন-তারা কাকে ভোট দিবেন। এটা আমার কাছে মনে হয় সৎ ভোটারদের সৎ সাহস। প্রশ্ন রেখে বলেন, একজন প্রার্থীকে কতটা যোগ্য মনে করলে এমনটা হতে পারে? আমার কাছে মনে হয় অন্যান্য প্রার্থীরা শক্ত প্রতিদ্ব›িদ্বতা গড়ে তুলতে পারেন নাই। এজন্য সদ্য বিদায়ী মেয়রের নাম মুখে মুখে। উন্নয়ন ধারা অব্যাহত রাখতে বিদায়ী মেয়র টিটুকেই ভোট দেওয়া উচিত। 

ময়মনসিংহ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট রাখাল চন্দ্র সরকার বলেন, ‘আমরা উন্নয়ন চাই। বিভেদের রাজনীতিতে যাতে সিটির উন্নয়ন পুরে না যায় নগরবাসী সেদিকেও নজর রাখছে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সদ্য বিদায়ী মেয়রকেই ভোটাররা এগিয়ে রাখছেন।’

ময়মনসিংহ শহর ঘুযরে দেখা যায়-বিগত ৫ বছরে অনেকটাই দৃষ্টি নন্দন হয়েছে ময়মনসিংহ শহরের বিভিন্ন স্থান। শহরের প্রাণকেন্দ্র গাঙ্গিনারপাড় এখন নান্দনিক ‘শাপলা স্কয়ার, নতুন বাজারে পায়রা চত্ত¡র, র‌্যালীর মোড় এখন ‘বিজয় মোড়, প্রথম শহীদ মিনার ‘স্মৃতি অ¤øন’। ৯২ কিলোমিটার নতুন রাস্তা এবং ৪৫ কিলোমিটার ড্রেনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। চলমান আছে আরো বেশ কিছু সেবামুলক কাজ। শহরের জলাবদ্ধতা সমস্যার উন্নতিও ঘটেছে চোখে পড়ার মত। 

ময়মনসিংহ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার ও জেলা আওয়ামীলীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক  বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রব বলেন, ‘উন্নয়ন ও স্মাট সিটি চাইলে ময়মনসিংহবাসীকে ফের টিটুকেই নির্বাচিত করতে হবে। আমারা টিটুর পক্ষে জনতার গণজোয়ার দেখতে পাচ্ছি। আমরা কোন ভেদাভেদ চাই না। আমরা উন্নয়ন চাই। দলমত নির্বিশেষে এখানকার ভোটাররা টিটুকেই ভোট দিবেন আশা করছি।'

নির্বাচন নিয়ে জানতে চাইলে সদ্যবিদায়ী মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু বলেন, ‘আমার শ্রদ্ধেয় অভিভাবক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক সহযোগীতায় নগরবাসীর জন্য যে উন্নয়ন করেছি তাতে ভোটাররা পুনরায় আমাকেই নির্বাচিত করবেন ইনশাল্লাহ। ভোটের মাঠে আমার জন্য গণজোয়ার ওঠেছে। স্মার্ট ও আধুনিক ময়মনসিংহ সিটি গড়তে ভোটাররা আমাকেই নির্বাচিত করবেন।’

Walton Refrigerator Freezer
Walton Refrigerator Freezer