Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
১৩ আশ্বিন ১৪২৭, সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৩:৪৯ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

সঠিক ব্যবস্থাপনায় গবাদি পশুর সংক্রামক রোগ থেকে বাঁচা সম্ভব


২১ ডিসেম্বর ২০১৯ শনিবার, ১০:১৪  পিএম

আতিকুর রহমান, বাকৃবি প্রতিনিধি

বহুমাত্রিক.কম


সঠিক ব্যবস্থাপনায় গবাদি পশুর সংক্রামক রোগ থেকে বাঁচা সম্ভব

মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় আমিষের চাহিদার এক সিংহভাগ পূরণ করছে গৃহপালিত পশু। কিন্তু অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, ভেজালযুক্ত খাবার, নিম্ন মানের ব্যবস্থাপনাসহ বিভিন্ন কারণে প্রায়ই গবাদি পশু বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। যার কিছু কিছু মানুষের দেহে ছড়িয়ে যাওয়ার প্রবনতা আছে। এতে সাধারণ মানুষ ও বিশেষ করে খামারিরা এসব রোগে খুব সহজেই আক্রান্ত হচ্ছে। এসব রোগ নির্মুলের জন্য প্রয়োজন সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) গাভী পালন ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন উপস্থিত বক্তারা। শনিবার (২১ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় ভেটেরিনারি অনুষদের মাইক্রোবায়োলজি সভাকক্ষে ওই অনুষ্ঠানের অয়োজন করা হয়। মাইক্রোবায়োলজি এন্ড হাইজিন বিভাগের আয়োজনে ও কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে ওই অনুষ্ঠানের অয়োজন করা হয়।

প্রকল্প পরিচালক এন্ড কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক ড. এস এম লুৎফুল কবিরের সভাপতিত্বে প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভেটেরিনারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. নাজিম আহমাদ। কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রকল্পের পিএইচডি ফেলো ও প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শেখ শাহিনূর ইসলাম ও পিএইচডি ফেলো ডা. নাজমুল হক। অনুষ্ঠানের সঞ্চালনা করেন প্রকল্পের রিসার্চ সহযোগি ডা. মো. আরিফ। এসময় ২৫ জন খামারী প্রশিক্ষন কর্মশালায় অংশগ্রহণ করে।

কর্মশালায় প্রকল্প পরিচালক এন্ড কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক ড. এস এম লুৎফুল কবির বলেন, আমরা এই প্রকল্পের অধীনে দুটি জুনোটিক (প্রাণি থেকে মানুষে সংক্রামিত হয়) রোগ নিয়ে কাজ করছি। এজন্য আমরা ময়মনসিংহ ও ঢাকা জেলা হতে ৩০০ খামারীর তালিকা করেছি। সেসব খামার পরিদর্শন করেছি এবং নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করেছি। খামারিদের সচেতনতা বৃদ্ধি করার চেষ্টা করেছি। প্রকল্পের অংশ হিসেবে খামারীদের সচেতনতা সৃষ্টিতে তাদের নিয়ে প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে। প্রশিক্ষণে খামারিদেরকে গাভী পালনের বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা ও খামার পারিচালনা সর্ম্পকে জানানো হবে।

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. নাজিম আহমাদ বলেন, গবাদি পশুর স্বাস্থ্য দেখেই সে দেশের মানুষের স্বাস্থ্য সহজে অনুমান করা যায়। জুনোটিক রোগে সবচেয়ে বেশি হুমকির মুখে থাকেন খামারিরা কারণ তারা সরাসরি আক্রান্ত পশুর সংস্পর্শে থাকে। এজন্য খামারীদের বেশি সচেতন হতে হবে। সঠিক ব্যবস্থাপনা ও পরিচর্যার বিষয়গুলো ভালোভাবে আয়ত্ত্ব করতে হবে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।