Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
৮ শ্রাবণ ১৪২৬, মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯, ৫:১৬ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

বয়সের ভারে ভারাক্রান্ত রেলপথ : ট্রেনও লক্কর ঝক্কর


২৭ জুন ২০১৯ বৃহস্পতিবার, ১০:৫১  পিএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


বয়সের ভারে ভারাক্রান্ত রেলপথ : ট্রেনও লক্কর ঝক্কর

মৌলভীবাজার : গত রোববার রাতে সিলেট থেকে ছেড়ে আসা উপবন এক্সপ্রেস বরমচালের বড়ছড়া সেতুতে দুর্ঘটনা কবলিত হয়। ঝুঁকিপূর্ণ সেতুতে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়দের ধারণা।

তবে ব্রিটিশ আমলের তৈরি পূর্বাঞ্চলীয় সিলেট-আখাউড়া রেলপথ ও কালভার্ট ব্রিজ সমুহ বয়সে ভারাক্রান্ত হওয়ায় সংস্কারের অভাবে দীর্ঘদিন ধরেই ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে। রেল লাইনের সাথে সংযুক্ত ক্লিপ-হুক চুরির ফলে দুর্বল হয়ে পড়ছে রেললাইন। ট্রেন গুলোতেও নানা ত্রুটি লক্ষ্যনীয়। গত বছর এ সংক্রান্ত  সচিত্র প্রতিবেদনও প্রকাশ হয়েছে। 

সরেজমিনে দেখা যায়, রেলপথে স্লিপার সমূহে নাট-বল্টু দিয়ে রেল লাইন আটকানো থাকার কথা থাকলেও বিভিন্ন স্থানে ক্লিপ, নাট-বল্টু নেই। চোর দলের কারণে রেলপথ থেকে এসব যন্ত্রাংশ চুরি হওয়ায় অনেকটা ফাঁকা হয়ে পড়ছে। বিভিন্ন স্থানে রেলপথের পাথর ছিটকে যাচ্ছে।

ভানুগাছ, শমশেরনগর, টিলাগাঁও স্টেশনের মাঝখানে অসংখ্য স্থানে ক্লিপ-হুক নেই। দু’লাইনের জোড়া দেয়া স্থানেও ক্লিপ চুরি হয়ে গেছে। দিনের পর দিন ক্লিপ-হুক, নাটবল্টু, ফিশপ্লেট চুরি হয়ে যাওয়ায় সেকশনটি অধিকতর ঝুঁকির মুখে পড়েছে।

চুরি যাওয়া ওসব যন্ত্রাংশ দ্রুত লাগানোর নিয়ম থাকলেও বছরের পর বছর তা লাগানো হচ্ছে না। ফলে এই সেকশন দিয়ে ঘন্টায় ৬০ কি.মি. বেগে প্রতিদিন যাত্রীবাহী আন্ত:নগর ও লোকাল মিলিয়ে ২০ টি ট্রেন ঝুঁকি নিয়েই আপডাউন করছে। সাথে থাকছে দু’একটি মালবাহি ট্রেনও। গত দুবছরে সেকশনের লাউয়াছড়া এলাকায় ব্রিজ কালভার্ট সমুহেও ধ্বসে পড়ার ঘটনা ঘটে।

গত বছরের ২ জানুয়ারী রেল লাইনের সাথে সংযুক্ত ক্লিপ-হুক চুরি ও সেতু-কালভার্ট সমুহে স্লিপারের সাথে বাঁশের ফালি পেরেক দিয়ে সংযুক্ত থাকায় ঝুঁকিপূর্ণ রেলপথ বিষয়েও প্রতিবেদন প্রকাশের পর কিছুটা সংস্কার কাজ হয়। রেলপথের ত্রুুটিপূর্ণ কারনে গত বছরে লাউয়াছড়া উদ্যানের পাহাড়ি এলাকায় একাধিকবার ট্রেন আটকা পড়ে। প্রবল বর্ষনে ও ঢলে গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারী রাত আড়াইটায় উদ্যানের ভেতরে ১৫৭ নম্বর ব্রিজ এলাকায় মাটি ধ্বসে রেল ব্রীজে ক্ষতিগ্রস্থ হলে ট্রেন যোগাযোগ ১৩ ঘন্টা বন্ধ হয়ে পড়ে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ভানুগাছ ও শ্রীমঙ্গল স্টেশনের মাঝামাঝি লাউয়াছড়া উদ্যানের পাহাড়ি এলাকায় চারটি স্থানের উঁচু টিলার উপর দিয়ে রেলপথ স্থাপিত। এছাড়াও এই রেলপথে কয়েকটি ট্রেনের ইঞ্জিন, বগি ও রেলপথে দুর্বলতম অবস্থা রয়েছে। নিয়মিত রেলপথ সংস্কার না করা, রেলব্রিজ ও পাহাড়ি এলাকায় দেয়াল না থাকা, ভারী বর্ষন, টিলা ধ্বস এসব কারনে লাউয়াছড়া উদ্যান এলাকায় বার বার ট্রেন আটকা পড়ছে। একই এলাকায় গত বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারী মালামাল বহনকারী ট্রেনকে ধাক্কা দিয়ে পারাপার করতে গিয়ে কুশিয়ারা ট্রেনের যাত্রা বাতিল হয়। ১৪ ফেব্রুয়ারী মালামাল বহনকারী ট্রেন অতিক্রমের সময় দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। ২৮ জানুয়ারী সার বহনকারী ট্রেন স্থান অতিক্রম করতে না পেরে পাহাড়ে আটকা পড়ে। ১৭ জানুয়ারী ব্রিজের নিচের মাটি সরে গার্ডার ফেঁটে ৫ ঘন্টা ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ থাকে। ট্রেনের ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হওয়ায় ২৬ জানুয়ারী সাতগাঁও স্টেশন এলাকায় ৫ ঘন্টা ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ থাকে। এ সময়ে উভয়পাশে একাধিক ট্রেন আটকা পড়ায় হাজার হাজার যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

গত ৭ মে রাতে সিলেট-আখাউড়া রেল সেকশনের শমশেরনগর রেল স্টেশনের অদূরে দক্ষিণ পাশে ৩০৬/২ নম্বর রেলপথ বাঁক এলাকায় রেলপথের পাতে ফাটল দিয়ে বারো ইঞ্চি ফাঁক তৈরি হয়। এতে ট্রেনের বড় ধরণের দুর্ঘটনার ক্ষেত্র তৈরি হয়। এ সময়ে আব্দুল হোসেন নামে নবম শ্রেণি পড়–য়া এক স্কুল শিক্ষার্থীর সচেতনতায় বড় ধরণের দুর্ঘটনা থেকে হাজারো যাত্রীবাহী আন্ত:নগর উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেন রক্ষা পায়।

কমলগঞ্জের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আব্দুস শহীদ, সমাজকর্মী সিদ্দিকুর রহমান বলেন, অতীতে ট্রলিযোগে প্রকৌশলী বিভাগের লোকদের নিয়মিত রেলপথ রক্ষণাবেক্ষণ ও সংস্কার করা হলেও বর্তমানে এচিত্র চোখে পড়ে না। এখন স্টেশন সমুহে টিকিট বিক্রিসহ নানা বাণিজ্য নিয়ে সবাই ব্যতিব্যস্ত। ফলে রেলপথে ঝোপজঙ্গল, পাথর সিটকে পড়া, ক্লিপ, হুক ও ব্রিজ-কালভার্ট সমুহে লোহার পাত চুরি হয়ে যাওয়ায় অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রেলওয়ের প্রকৌশলী বিভাগের কেউ বক্তব্য দিতে রাজি হননি। তবে কুলাউড়াস্থ রেলওয়ের গণপূর্ত বিভাগের উপ-সহকারী মনিরুল ইসলাম মোবাইল ফোনে ইত্তেফাককে বলেন, ভানুগাছ স্টেশনের আউটারে একটি বেইলী ব্রিজ কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে। কাজ চলছে দশ, বারো দিনের মধ্যে সম্পন্ন হবে। তাছাড়া হুক, ক্লিপ না থাকলে সেখানে কাজ করা হচ্ছে। ব্রিজ কালভার্ট সমুহে জনগণের সুবিধার্তে মাঝে মধ্যে বাঁশের টুকরো আটকানো হয়। তবে রেলপথ এখন স্বাভাবিক ও সমস্যাযুক্ত স্থানে কাজ চলছে বলে তিনি দাবি করেন।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।