Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
২৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, বৃহস্পতিবার ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ৭:৫৭ পূর্বাহ্ণ
Globe-Uro

চাতলাপুর চা বাগানে বিলীন হচ্ছে ছায়াবৃক্ষ


২৬ নভেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০৯:২৩  পিএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


চাতলাপুর চা বাগানে বিলীন হচ্ছে ছায়াবৃক্ষ
ছবি : বহুমাত্রিক.কম

মৌলভীবাজার: ডানকান ব্রাদার্স কোম্পানীর মৌলভীবাজারের সীমান্তবর্তী চাতলাপুর চা বাগানের সেকশন থেকে মূল্যবান ছায়াবৃক্ষ বিলীন হয়ে পড়ছে। বাগানের অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীর যোগসাজষে বনবিভাগের পূর্বানুমতি ছাড়াই সেকশন থেকে মূল্যবান গাছ কেটে খন্ডাংশ করে অন্যত্র স্থানান্তর কিংবা বিক্রি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

একদিকে গাছ চোর চক্র এবং অন্যদিকে বাগানের অসাধু চক্রের কারনে এসব গাছ সাবাড় হচ্ছে। ফলে টিলাভূমি বৃক্ষশুন্য হচ্ছে। চায়ের উৎপাদন ও পরিবেশের উপর প্রভাব পড়ছে। চা বাগান ব্যবস্থাপক শ্রমিকদের প্রয়োজনে গাছ কাটা হচ্ছে দাবি করলেও বন বিভাগ এবং জেলা প্রশাসন গাছ কাটার বিষয়ে কিছুই জানেন না।

জানা যায়, সরকারের কাছ থেকে লিজ গ্রহণ করে চা আবাদের সাথে সাথে সেকশন সমুহে নির্দিষ্ট পরিমাণ বজায় রেখে ছায়াবৃক্ষ রোপন করা হয়। গাছগুলো বড় হয়ে চা বাগানের পাহাড়ি ও সমতল উঁচু নিচু টিলায় হাজার হাজার চা গাছে ছায়ার যোগান দিচ্ছে। ফলে এগাছগুলো ছায়াবৃক্ষ হিসাবে পরিচিত। চাতলাপুর চা বাগান ছাড়াও এর ফাঁড়ি তিলকপুর, চুয়াল্লিশ পাট্টা, পালকিছড়া বাগান রয়েছে। বাগানের প্রায় ২৩টি সেকশন রয়েছে। এক একটি সেকশন বা টিলাভূমিতে চায়ের বিশাল বাগান গড়ে উঠেছে। এসব সেকশনে হাজারো ছায়াবৃক্ষ থাকার কথা থাকলেও পূর্বের তুলনায় এখন অনেকটাই ফাঁকা।

চা বাগানের গাছগুলো একদিকে অতিবৃষ্টি ও প্রখর রোদের কবল থেকে, অন্যদিকে মাটির ক্ষয়রোধ ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। তবে বড় হওয়ার সাথে সাথেই বন বিভাগের পূর্বানুমতি ছাড়াই একটি অসাধু চক্র মূল্যবান গাছগাছালি কেটে অন্যত্র স্থানান্তর করছে। সেকশন থেকে গাছ কেটে খন্ডাংশ করে নিজস্ব বাহন যোগে স’মিলে পাঠিয়ে বিক্রি করা হয় বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শ্রমিকদের অভিযোগ রয়েছে।

সরেজমিন বাগানের কয়েকটি টিলা ঘুরে দেখা যায়, চুয়াল্লিশ পাট্টাসহ মাঝে মাঝে টিলাভূমি বৃক্ষশুন্য হয়ে পড়ছে। ছোট ছোট কয়েকটি গাছ ছাড়া আর কোন গাছগাছালি নেই। শ্রমিকর সাথে কথা বলে জানা যায়, বস্তি ও বাগানের একটি সিন্ডিকেট চক্র বাগানের কড়ই, চাম, আকাশিসহ চা আবাদকৃত সেকশন থেকে নানা প্রজাতির পুরাতন গাছ গাছালি কেটে পাচার করছে।

এর সাথে বাগান কর্তৃপক্ষ নানা প্রয়োজন দেখিয়ে গাছ কেটে পার্শ্ববর্তী পীরেরবাজার এর স’মিলে পাঠিয়ে কিছু বিক্রি করে ও কিছু কাজে লাগায়। চা বাগানের বিশাল এলাকা থেকে হরহামেশাই গাছ কাটা হয়। ফলে প্রাকৃতিক দুর্যোগকালীন সময়ে অনাবৃষ্টিতে চা গাছ মারা যায়। আবার অতিবৃষ্টিজনিত কারনে চা গাছ ও মাটির ক্ষয়প্রাপ্ত হয় এবং চায়ের কচি পাতায় রোগব্যাধী আক্রান্ত হচ্ছে। এ কারনে চায়ের উৎপাদন ও পরিবেশের উপর প্রভাব পড়ছে। শ্রমিকরা বলেন, বাগানের কিছু দালালরা ম্যানেজমেন্টের সাথে একত্র হয়ে গাছ কেটে বিক্রি করেন। এসব বিষয়ে কিছু বলতে গেলেই কাজ চলে যাবে।

চাতলাপুর চা বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি সাধন বাউরী বলেন, আমরা জানি কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে গাছ কাটা হয়। তবে অনুমতি না থাকলে চুরি হয় কিনা তা বলা কঠিন। তিনি আরও বলেন, সেকশনের পুরাতন গাছ কেটে নতুনভাবে প্লান্টেশন করা হয়।

নিজের পরিচয় গোপন রেখে চাতলাপুর চা বাগানের অফিসে কর্মরত একজন কর্মচারী বলেন, আগে নিয়মিত বাগান থেকে গাছ স’মিলে পাঠানো হতো। এখন কিছুটা কমেছে। শ্রমিকদের প্রয়োজন দেখিয়ে হরহামেশা স’মিলে পাঠানো হয় বলে এসব বিষয়ে কারো অনুমতির প্রয়োজন দেখা দেয় না। তবে স’মিলে নিয়ে চিরানোর সময় সেখানে প্রতিবারই কিছু কাঠ বিক্রি করা হয়।

এ ব্যাপারে চাতলাপুর চা বাগান ব্যবস্থাপক ইফতেখার এনাম বলেন, চা বাগানে শ্রমিকদের প্রয়োজনে গাছ কাটা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি বিষয়ে জানতে চাইলে কার অনুমতি এমন পাল্টা প্রশ্ন জুড়ে বলেন, গাছ পড়ে গেলে কাটা হয় বলে পাশ কাটিয়ে অফিসে আসলে কথা হবে বলে ফোন রেখে দেন।

কমলগঞ্জের রাজকান্দি বনরেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আবু তাহের বলেন, চা বাগানের মালিক জেলা প্রশাসক। তারা বনবিভাগের অনুমতি নিয়ে গাছ কাটার কথা থাকলেও সেটা করে না। কেউ জিজ্ঞেস করলেই অনুমতি আছে বলেই পার পেয়ে যায়।

মৌলভীবাজার সহকারী বন কর্মকর্তা (এসিএফ) মো. আবু বক্কর সিদ্দিকী বলেন, চাতলাপুর চা বাগান কর্তৃপক্ষের গাছ কাটার বিষয়টি আমার জানা নেই। সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আর.এস.এম.মনিরুল ইসলাম বলেন, চাতলাপুর চা বাগানে গাছ কাটার জন্য কোন অনুমতি নেই। এব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কোন অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত পূর্বক দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ আশরাফুল আলম খান এর সাথে মোবাইল ফোনে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, চাতলাপুর চা বাগানে গাছ কাটার বিষয়ে কোন অনুমতি নেই। এ ব্যাপারে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।