Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
২৪ চৈত্র ১৪২৬, মঙ্গলবার ০৭ এপ্রিল ২০২০, ৭:৪১ অপরাহ্ণ
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর

গুজব ঠেকাতে টিভির সংবাদ মনিটরিং, সাংবাদিকদের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া


২৬ মার্চ ২০২০ বৃহস্পতিবার, ১০:০৩  পিএম

বহুমাত্রিক ডেস্ক


গুজব ঠেকাতে টিভির সংবাদ মনিটরিং, সাংবাদিকদের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া

দেশে করোনা ভাইরাস নিয়ে অপপ্রচার ও গুজব বন্ধে ৩০টি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের সংবাদ মনিটরিং করা হচ্ছে। এ কাজের (তদারকি) জন্য ১৫ জন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিয়েছে সরকার। গত মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে আদেশ জারি করা হয়েছে। প্রত্যেক কর্মকর্তা দুটি করে টেলিভিশন চ্যানেল মনিটরিং করছেন। তবে এই আদেশ নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকরা। তারা প্রশ্ন তুলেছেন ‘উপ-সচিবরা যদি টেলিভিশন নিউজ মনিটর করে তাহলে আর সাংবাদিকতার কী দরকার?’  

তথ্য মন্ত্রণালয়ের এই আদেশে বলা হয়েছে, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কোনো বেসরকারি টিভি চ্যানেলে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে অপপ্রচার কিংবা গুজব প্রচার হচ্ছে বলে চিহ্নিত করলে, তা বন্ধ করার জন্য সঙ্গে সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রচার) মো. মিজান উল আলম বলেন, করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব ও অপপ্রচার বন্ধে বেসরকারি টেলিভিশনগুলোকে মনিটরিং করার জন্য কর্মকর্তাদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত তারা এ কাজ চালিয়ে যাবেন। করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব ও অপপ্রচার বন্ধে অনলাইন ও পত্রিকার মনিটরিংয়ের কাজ তথ্য অধিদফতরের গুজব নিয়ন্ত্রণ সেল করছে বলে জানান তিনি।

আদেশে বলা হয়, গত (২৪ মার্চ) কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস) সংক্রমণ প্রতিহতকরণের প্রচার-প্রচারণার সংক্রান্ত কমিটির প্রথম সভার সিদ্ধান্তের আলোকে বেসরকারি টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত বিশ্বব্যাপী করোনার সংক্রমণের বিষয়ে অপপ্রচার গুজব প্রচার করা হচ্ছে কি-না তা মনিটরিংয়ে সিদ্ধান্ত হয়। 

এদিকে, তথ্য মন্ত্রণালয়ের এই আদেশকে অবমাননাকর আখ্যায়িত করে সাংবাদিকরা অবিলম্বে এই আদেশ প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছেন। বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের হেড অব নিউজ প্রভাষ আমিন তাঁর ফেসবুক ওয়ালে এনিয়ে লিখেছেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক গুজব ছড়ানো হচ্ছে বটে, তবে কোনো গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে অপপ্রচার বা গুজবের অভিযোগ ওঠেনি এখনও। কিন্তু সরকার টিভি চ্যানেলগুলো মনিটর করার উদ্যোগ নিয়েছে।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘১৫ জন উপসচিবকে দুটি করে মোট ৩০টি চ্যানেল।মনিটর করতে বলা হয়েছে। অপপ্রচার বা গুজব চিহ্নিত করলে তারা তা বন্ধ করার জন্য কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবে। কিন্তু প্রশ্ন হলো, কোনটা প্রচার কোনটা অপপ্রচার; কোনটা নিউজ কোনটা গুজব; তা এই উপসচিবরা কী দিয়ে মাপবেন? উপসচিবরা যদি টেলিভিশন নিউজ মনিটর করে তাহলে আর সাংবাদিকতার কী দরকার।’

বাংলা ভিশনের হেড অব নিউজ মোস্তফা ফিরোজ ফেসবুকে লিখেছেন, ‘এই তালিকায় বিটিভি কেন নেই? উপ সচিব কি সর্ট পড়ে গেলো?’

নাগরিক টিভির বার্তা প্রধান দ্বীপ আজাদ লিখেছেন,‘গুজব প্রতিরোধে ৩০ টি টেলিভিশন মনিটর করবেন ১৫ জন উপ সচিব। দেশের প্রথম সারির গণমাধ্যম গুজব তৈরির কারখানা না। গুজব কোথায় তৈরি হয়, এটা যদি এখনো না জানেন, তাহলে এতোটুকুই বলবো যে, বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে, আপনারা আগের জায়গায় রয়ে গেছেন। সাংবাদিকতা চাকরি না, work with commitment to people, society n country.’ 

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।