Bahumatrik Logo
২৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩, বুধবার ০৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ৪:৩৭ অপরাহ্ণ

‘সমর্থকদের চাপ নেবার ক্ষমতা ক্রিকেটারের থাকতে হবে’


১৬ এপ্রিল ২০১৬ শনিবার, ১২:৩৭  এএম

বহুমাত্রিক ডেস্ক


‘সমর্থকদের চাপ নেবার ক্ষমতা ক্রিকেটারের থাকতে হবে’

ঢাকা : বাংলাদেশকে প্রথমবারের মতো ক্রিকেট বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ এনে দেয়া অধিনায়ক আকরাম খানের নির্বাচন করা সেরা একাদশে বর্তমানের ছয়জন ক্রিকেটার স্থান পেয়েছেন৷

ডয়চে ভেলের অনুরোধে বাংলাদেশের একদিনের ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা একাদশ (তাঁর দৃষ্টিতে) নির্বাচন করেন আকরাম খান৷

এই তালিকায় ওপেনিংয়ে আছে তামিম আর শাহরিয়ার হোসেন বিদ্যুতের নাম৷ এরপর একে একে মাঠে নামবেন সাকিব, মুশফিক, নান্নু, পাইলট, রফিকুল আলম (সাবেক অলরাউন্ডার), রফিক (স্পিনার), মাশরাফি, মুস্তাফিজুর রহমান ও রুবেল হোসেন৷ সেরা একাদশের অধিনায়ক হিসেবে তিনি বেছে নিয়েছেন মাশরাফিকে৷ দ্বাদশ খেলোয়াড় হিসেবে তালিকায় রেখেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নাম৷

ইএসপিএনক্রিকইনফো ডটকম ওয়েবসাইটে আকরাম খানকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘প্রথম আসল নায়ক` হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে৷ তবে সেরা একাদশে নিজের নাম না থাকা প্রসঙ্গে আকরাম খান বলেন, ‘‘তালিকা আমি করেছি, সেখানেতো আমার নাম রাখতে পারি না৷``

বর্তমানে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন আকরাম খান৷ কবে বাংলাদেশ বিশ্বকাপ জিততে পারে, এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আইসিসির ব়্যাংকিং-এ চার-পাঁচ নম্বরে থাকলে বিশ্বকাপ জেতার আশা করা যায়৷ ক্রিকেটকে এগিয়ে নিতে এখন যেভাবে কাজ হচ্ছে তাতে খুব শিগগির ব়্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের স্থান উপরে উঠবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি৷`` উল্লেখ্য, একদিনের ক্রিকেটে বাংলাদেশের অবস্থান এখন সাত নম্বরে৷

আকরাম খান বলেন, ১৯৯৭ সালে আইসিসি ট্রফি জেতার আগে বাংলাদেশে ফুটবল ছিল এক নম্বর খেলা৷ এরপর ক্রিকেট সেই স্থানটি দখল করে৷ ফলে ক্রিকেট এখন বেশ জনপ্রিয়৷ এই ব্যাপারটি ক্রিকেটের উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে৷ গ্রামে-গঞ্জে সব জায়গায় ক্রিকেট খেলা হচ্ছে৷ পৃষ্ঠপোষকতাও আগের চেয়ে বেড়েছে৷

আকরাম খান বলেন, ‘‘বাংলাদেশে এখন বয়সভিত্তিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে৷ সেখান থেকে খেলোয়াড় বাছাই করে তাদের জন্য উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে৷``

এ প্রসঙ্গে তিনি বর্তমানে সারা দেশে অনুষ্ঠানরত অনূর্ধ্ব-১৫ ক্রিকেট প্রতিযোগিতার কথা উল্লেখ করেন৷

আকরাম খান বলেন, ‘‘বিদেশি কোচ ও বিদেশি ব্যবস্থাপনার তত্ত্বাবধানে অ্যাকাডেমি ও ‘এ` টিমের ক্রিকেটারদের নিয়ে নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়৷ এছাড়া বাংলাদেশে অনেকগুলো টুর্নামেন্ট হয়৷ যেমন দেশের আটটি বিভাগ নিয়ে ফার্স্ট ডিভিশনের খেলা হয় (চারদিনের ম্যাচ)৷ সেখানে যারা ভালো খেলে তাদের নিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি করে আবার চারদিনের ম্যাচের টুর্নামেন্ট করা হয়৷``

বাংলাদেশের ক্রিকেট সমর্থকদের আবেগ ক্রিকেটারদের জন্য ইতিবাচক বলেই মনে করেন আকরাম খান৷ তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশের মানুষের জন্য আসলে বিনোদনের খুব একটা উৎস নেই৷ বাংলাদেশের অর্জনের, বাংলাদেশিদের ভালো লাগার একটি বড় অংশ আসে ক্রিকেট থেকে৷ তাই ক্রিকেটকে ঘিরে এমন সমর্থন থাকবে৷ একজন ক্রিকেটারকে সেই চাপ নেবার ক্ষমতা থাকতে হবে৷``

ডয়েচে ভেলে

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।