Bahumatrik Logo
২৬ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩, শনিবার ১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ৮:৪০ অপরাহ্ণ

এস কে সিনহাকে নিয়ে গর্বিত মণিপুরী সম্প্রদায়


১৩ জানুয়ারি ২০১৫ মঙ্গলবার, ০৮:০২  পিএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


এস কে সিনহাকে নিয়ে গর্বিত মণিপুরী সম্প্রদায়

মৌলভীবাজার: সুরেন্দ্র কুমার সিন্হা (এস কে সিনহা) প্রধান বিচারপতি গৌরবাম্বিত ও আনন্দিত মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মণিপুরী সম্প্রদায়।

কমলগঞ্জ উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের তিলকপুর গ্রামের সাধারণ ঘরের সন্তান হয়ে আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠতম বিচারপতি থেকে দেশের ২১ তম প্রধান বিচারপতি হিসাবে এস কে সিনহাকে নিয়োগ দেওয়ার সংবাদে গোটা মৌলভীবাজারে আনন্দ বইতে শুরু করেছে।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সোমবার নতুন প্রধান বিচারপতি হিসাবে তাকে নিয়োগ দেন। আগামী ১৭ জানুয়ারি শপথ গ্রহণের মধ্যদিয়ে প্রধান বিচারপতি হিসাবে দায়িত্ব নেবেন তিনি। দেশের ইতিহাসে সনাতন ধর্মবলম্বী হিসাবে মণিপুরী সম্প্রদায়ের কেউ প্রধান বিচারপতি হিসাবে নিয়োগ পেলেন। একেবারেই গ্রামীণ পরিবেশ থেকে বেড়ে উঠে প্রধান বিচারপতি হওয়ায় গর্বিত গোটা মৌলভীবাজারবাসী। বিচারপতির নিজ গ্রামে মণিপুরী সম্প্রদায়, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক ও প্রশাসনসহ সর্বস্তরের মানুষ আনন্দ প্রকাশ করেছে এই খবরে।

পুরো নাম সুরেন্দ্র কুমার সিংহ-এস কে সিনহা নামেই যিনি সমধিক পরিচিত। ১৯৫১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন মৌলভীবাজারের এই কৃতি সন্তান। কমলগঞ্জ উপজেলার তিলকপুর গ্রামস্থ বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী সম্প্রদায়ভুক্ত ললিত মোহন সিংহ ও ধনবতী সিনহার বড় ছেলে এস কে সিনহা। বাবা ছিলেন হাইস্কুলের শিক্ষক। মা রত্নগর্ভা গৃহিনী।

এস কে সিনহার পরিবারে রয়েছেন স্ত্রী ও দুই মেয়ে। বড় মেয়ে সুচনা সিনহা অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থান করছেন। ছোট মেয়ে ভারতে লেখাপড়া শেষে বাবার সাথে ঢাকায় অবস্থান করছেন। কয়েক বছর আগে মারা যান বিচারপতির বাবা মা । বর্তমানে তাঁর গ্রামের বাড়িতে অবস্থান করছেন ছোট ভাই নীলমনি সিংহ।

ছোট ভাই হিসাবে তাঁর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে নীলমনি সিংহ বলেন, ‘বড় ভাই প্রধান বিচারপতি হওয়ায় খুবই আনন্দ বোধ করছি। তিলকপুর গ্রামের সন্তান সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ভাইস প্রিন্সিপাল ডা. নন্দ কিশোর সিংহ বলেন, মণিপুরী সম্প্রদায় হিসাবে জাতি, ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে সরকারকে অভিনন্দন। বিচারপতি এস কে সিনহা একেবারে সাধারণ ঘরের সন্তান হয়ে এতোদূর এগিয়ে গেছেন -দেশে একটি দৃষ্টান্ত। এস কে সিনহা নিজে মাঠে ঘাটে কাজ করে আজ এ পর্যায়ে উপনীত হয়েছেন এটা কমলগঞ্জবাসীর গর্ব।’

বিচারপতি এস কে সিনহার বাল্যবন্ধু দাবি করে কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান বলেন, ‘বর্তমান মহাজোট সরকার অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী। বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম বারের মত আদিবাসী সম্প্রদায়ের একজন যোগ্য ব্যক্তিকে প্রধান বিচারপতি নিযুক্ত করা তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ’।

এস কে সিনহাকে প্রধান বিচারপতি পদে নিযুক্ত করার সিদ্ধান্তের জন্য রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীকে কমলগঞ্জ উপজেলার সর্বনস্তরের জনগনের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানান তিনি।

নিজেকে গর্বিত দাবি করে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা বলেন, ‘কমলগঞ্জের সন্তান এস কে সিনহা প্রধান বিচারপতি হচ্ছেন এবং তাঁর এলাকায় কর্মরত থাকতে পেরে গোটা উপজেলাবাসীর জন্য সবচেয়ে বড় গৌরবের বিষয়।’
বাংলাদেশ মণিপুরী আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সমরজিত সিংহ বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রায় ৫০ হাজার বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী সম্প্রদায়ের এরচেয়ে বেশি কিছু আশা করা যায় না। এজন্য ধর্মনিরপেক্ষ বর্তমান এই সরকারকে অভিনন্দন।’

মণিপুরী ললিতকলা একাডেমীর পরিচালক রামকান্ত সিংহ অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘তিনি রাষ্ট্রীয় কার্য পরিচালনা করতে দেশের স্বার্থের প্রতি খেয়াল রাখবেন সেটিই অনুরোধ।’

লেখক-গবেষক আহমদ সিরাজ, শিক্ষক সনজু সিনহা সহ স্থানীয় মণিপুরীরা বলেন, ‘কমলগঞ্জের কৃতি সন্তান প্রধান বিচারপতি হওয়ায় আমরা অত্যন্ত আনন্দিত ও গর্বিত হয়েছি।’

এস কে সিনহাকে প্রধান বিচারপতি করায় শপথ গ্রহণের ক্ষণকে ‘ঐতিহাসিক মঙ্গলক্ষণ’ হিসাবে বিশেষভাবে স্মরণীয় করে রাখার উদ্যোগ নিয়েছেন মণিপুরী আদিবাসী নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী ।

মণিপুরী নেতৃবৃন্দ জানান, শপথ গ্রহণের মূহুর্তে দেশের সকল মণিপুরী মন্দিরে একযোগে মঙ্গলধ্বনি, শঙ্খধ্বনি হবে। বাজানো হবে রাজঘন্টা। সন্ধ্যায় হবে আরতি ও প্রার্থনা। এতে সরকার, দেশ ও জাতি এবং প্রধান বিচারপতি সিনহার জন্য প্রার্থনা করা হবে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।