Bahumatrik Multidimensional news service in Bangla & English
 
১০ আষাঢ় ১৪২৫, রবিবার ২৪ জুন ২০১৮, ৯:২৬ অপরাহ্ণ
Globe-Uro

সতের মাসেও বাস্তবায়ন হয়নি চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির চুক্তি!


২৬ মে ২০১৮ শনিবার, ১২:৪৬  এএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


সতের মাসেও বাস্তবায়ন হয়নি চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির চুক্তি!
ছবি : বহুমাত্রিক.কম

মৌলভীবাজার : গত সতের মাস সময় চলে গেলেও চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় সাধারণ শ্রমিকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

২০১৭ সনের জানুয়ারী মাসে চা শ্রমিকদের দু’বছর অন্তর মজুরি বৃদ্ধির চুক্তির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়। তবে মজুরি চুক্তির বিষয়ে গরজ না থাকলেও বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন নির্বাচনমুখী শ্রমিক নেতারা। আগামী ২৭ মে তপশীল ও ২৪ জুন নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করেছে শ্রম অধিদপ্তর।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সনের ৬ অক্টোবর চা শ্রমিকদের মুজরি চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্যদিয়ে দৈনিক মজুরি ৬৯ টাকা থেকে ৮৫ টাকায় উন্নীত হয়। সম্পাদিত ঐ চুক্তি মোতাবেক ২০১৫ সালে পহেলা জানুয়ারী থেকে চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ৮৫ টাকা ও রবিবারের সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরিও প্রদান করা হয়। চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধিসহ প্রতি দু’বছর অন্তর মজুরি চুক্তির কথা থাকলেও ২০১৭ সনের জানুয়ারী মাসে চা শ্রমিকদের মজুরি চুক্তির মেয়াদ উত্তীর্ন হয়। ফলে মজুরি চুক্তির এক বছর পাঁচ মাস সময় অতিবাহিত হলেও এব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের কোন তৎপরতা দেখা যায়নি।

মজুরি বৃদ্ধির চুক্তি স্বাক্ষরের কোন উদ্যোগ পরিলক্ষিত না হওয়ায় ৮৫ টাকা মজুরিতে পাঁচ, সাত সদস্যের চা শ্রমিক পরিবার সদস্যরা দুঃখ-কষ্টে সংসার চালাতে হচ্ছে বলে অভিযোগ তোলেন। চা শ্রমিক সংঘের নেতা রাজদেও কৈরী, দিবা শুক্ল বৈদ্য, নারী চা শ্রমিক নেত্রী গীতা রানী কানুসহ সাধারণ

শ্রমিকরা বলেন, দীর্ঘ ১৭ মাস সময় চলে গেল এখনও মজুরি চুক্তি বাস্তবায়নের কোন উদ্যোগ নেই। অথচ নির্বাচনের জন্য সবাই ব্যতিব্যস্ত, ইউনিয়নের টাকা ভাগ বাটোয়ারা করে নিতে। সাধারণ চা শ্রমিকদের দু:খ-কষ্ট লাঘবের বিষয়ে কারো গরজ নেই। তারা আরও বলেন, এই মাত্র ৮৫ টাকা মজুরিতে পাঁচ, সাত সদস্যের শ্রমিক পরিবারের ঠিকমতো একবেলাই খাবার চালিয়ে যাওয়া কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে।

এদিকে গত বছরের ১০ আগষ্ট বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়। নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ও সম্পাদকের নেতৃত্বে শ্রম অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট বিভাগে জোর দাবি জানান। পরে গত ২০ মার্চ শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব শিবনাথ রায়ের স্বাক্ষরিক একটি প্রজ্ঞাপনে ১৩ মে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারন করা হয়। প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী ১৮ এপ্রিল নির্বাচনী তপশিল ঘোষণা করারও কথা ছিল। তবে সে তারিখ অনুযায়ী তপশীল ও নির্বাচন অনুষ্ঠিত না হওয়ায় পুনরায় আগামী ২৭ মে তপশীল ও ২৪ জুন নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করেছে শ্রম অধিদপ্তর। নির্বাচনী প্রজ্ঞাপন জারির পর থেকে বিজয় প্রসাদ বুনার্জির নেতৃত্বে ও মাখন লাল কর্মকারের নেতৃত্বে দুটি প্যানেলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা বিভিন্ন চা বাগানে গণসংযোগ ও প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

চা শিল্পাঞ্চলের সিলেট, জুড়ি, লংলা, মনু-ধলই, বালিশিরা, লস্করপুর ও চট্রগ্রাম এই ৭টি ভ্যালিতে (অঞ্চল) এক যোগে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। দীর্ঘ ৩৬ বছর পর ২০১৪ সনের ১০ আগষ্ট অনুষ্ঠিত নির্বাচনে মাখন লাল কর্মকার সভাপতি ও রামভজন কৈরী সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন।

পরবর্তীতে তিন বছর অন্তর ২০১৭ সালের ১০ আগষ্ট নির্বাচন অনুষ্ঠানের সময় অতিবাহিত হয়।
বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক রামভজন কৈরী জানান, নিয়ম অনুযায়ী গত বছর ১০ আগষ্ট নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা ছিল। নির্বাচনটি পরিচালিত হয় শ্রম অধিদপ্তরের মাধ্যমে। তবে চুক্তি বাস্তবায়নের জন্যও মালিক পক্ষের সাথে চা শ্রমিকদের আলোচনা চলমান রয়েছে। নির্বাচনের আগে অথবা পরে মজুরি চুক্তি স্বাক্ষরের সম্ভাবনা রয়েছে। এ বিষয়ে মালিক পক্ষের প্রতিনিধি চা বাগানের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ব্যবস্থাপক বলেন, চুক্তি বাস্তবায়নের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

তবে শ্রমিকদের স্বার্থে এই চুক্তি বাস্তবায়নের নেতৃবৃন্দের যেভাবে ভূমিকা ও তাগাদা দেওয়ার কথা সেভাবে করা হচ্ছে না।

শ্রীমঙ্গলস্থ শ্রম অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান বহুমাত্রিক.কমকে বলেন, আগামী ২৪ জুন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করেছে কর্তৃপক্ষ। এজন্য ২৭ মে তপশিল ঘোষনা করা হবে। তবে গত ১৩ মে অনিবার্য কারনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। মজুরি বৃদ্ধির চুক্তির বিষয়ে তিনি বলেন, সেটি মালিক ও শ্রমিক পক্ষের ব্যাপার।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
ভাগ হয়নি ক' নজরুল
Bay Leaf Premium Tea
Intlestore

বিশেষ প্রতিবেদন -এর সর্বশেষ

Hairtrade