Bahumatrik Multidimensional news service in Bangla & English
 
৭ বৈশাখ ১৪২৫, শনিবার ২১ এপ্রিল ২০১৮, ৪:০১ পূর্বাহ্ণ
Globe-Uro

শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচন : মজুরি চুক্তি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেই


০৭ এপ্রিল ২০১৮ শনিবার, ০১:১৯  এএম

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচন : মজুরি চুক্তি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেই
ছবি : বহুমাত্রিক.কম

 

মৌলভীবাজার : বাংলাদেশ শ্রম অধিদপ্তর চা শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠানে ১৮ এপ্রিল তফশিল ও ১৩ মে নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করেছে। ইউনিয়ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইউনিয়ন নেতারা পদ পেতে জোর তৎপরতা শুরু করেছেন।

গত বছর ১০ আগষ্ট ইউনিয়ন নির্বাচনের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়। তবে চা শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারিত হলেও চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধিসহ দু’বছর অন্তর মজুরি চুক্তির কোন উদ্যোগ নেই। ২০১৭ সনের জানুয়ারী মাসে চা শ্রমিকদের মজুরি চুক্তির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ইতিমধ্যেই প্যানেলওয়ারী নির্বাচনী গণ সংযোগ আর প্রচারনায় চা বাগানগুলিতে ব্যস্ত আছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ছে গত বছর ১০ আগষ্ট। চা শিল্পাঞ্চলের সিলেট, জুড়ি, লংলা, মনু-ধলই, বালিশিরা, লস্করপুর ও চট্রগ্রাম এই ৭টি ভ্যালিতে (অঞ্চল) এক যোগে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। দীর্ঘ ৩৬ বছর রাজেন্দ্র প্রসাদ বুনার্জির নেতৃত্বে এ সংগঠন পরিচালিত হওয়ার পর চা শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ নামে চা শ্রমিকদের আন্দোলনে ২০১৪ সনের ১০ আগষ্ট অনুষ্ঠিত নির্বাচনে মাখন লাল কর্মকার সভাপতি ও রাম ভজন কৈরী সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন।

পরবর্তীতে তিন বছর অন্তর ২০১৭ সালের ১০ আগষ্ট নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা থাকলেও বাংলাদেশ শ্রম অধিদপ্তর এ নির্বাচনের কোন উদ্যোগ গ্রহন না করায় নির্বাচনের প্রায় ৭ মাস অতিবাহিত হয়। নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ও সম্পাদকের নেতৃত্বে শ্রম অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট বিভাগে জোর দাবি জানান। তবে গত ২০ মার্চ শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অতিরিক্ত সচিব শিবনাথ রায়ের স্বাক্ষরিক একটি প্রজ্ঞাপনে আগামী ১৩ মে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারন করা হয়। প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী ১৮ এপ্রিল নির্বাচনী তপশিল ঘোষণা করা হবে। নির্বাচনী প্রজ্ঞাপন জারির পর থেকে বিজয় প্রসাদ ব্যানর্জির নেতৃত্বে ও মাখন লাল কর্মকারের নেতৃত্বে দুটি প্যানেলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা ইতিমধ্যেই বিভিন্ন চা বাগানে গণ সংযোগ ও প্রচানরা শুরু করেন।

তবে চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধিসহ প্রতি দু’বছর অন্তর মজুরি চুক্তির কথা থাকলেও ২০১৭ সনের জানুয়ারী মাসে চা শ্রমিকদের মজুরি চুক্তির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়। মজুরি চুক্তির প্রায় পনের মাস সময় অতিবাহিত হলেও এব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের কোন তৎপরতা পরিলক্ষিত হয়নি। ইতিমধ্যে চা শ্রমিক ইউনিয়নের কিছু নেতৃবৃন্দের নেপথ্য ভূমিকার কারনে কমলগঞ্জের কয়েকটি চা বাগানে মজুরি চুক্তি ও নির্বাচনের দাবিতে পর্যায়ক্রমে দু’ঘন্টা করে কর্মবিরতি পালন করে।

মজুরি বৃদ্ধির চুক্তি স্বাক্ষরের কোন উদ্যোগ পরিলক্ষিত না হওয়ায় ৮৫ টাকা মজুরিতে পাঁচ, সাত সদস্যের চা শ্রমিক পরিবার সদস্যরা দুঃখ-কষ্টে সংসার চালাতে হচ্ছে বলে অভিযোগ তোলেন। ২০১৫ সনের ৬ অক্টোবর চা শ্রমিকদের মুজরি চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্যদিয়ে দৈনিক মজুরি ৬৯ টাকা থেকে ৮৫ টাকায় উন্নীত হয়। সম্পাদিত ঐ চুক্তি মোতাবেক ২০১৫ সালে পহেলা জানুয়ারি থেকে চা শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ৮৫ টাকা ও রবিবারের সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরিও প্রদান করা হয়।

চা শ্রমিক সংঘের নেতা রাজদেও কৈরী, দিবা শুক্ল বৈদ্যসহ নেতৃবৃন্দরা বলেন, দীর্ঘ ১৫ মাস সময় চলে গেল এখনও মজুরি চুক্তি বাস্তবায়নের কোন উদ্যোগ নেই। অথচ নির্বাচনের জন্য সবাই ব্যতিব্যস্ত। চা শ্রমিকদের দু:খ-কষ্ট লাঘবের বিষয়ে কারো মাথা ব্যথা নেই। বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক রাম ভজন কৈরী জানান, নিয়ম অনুযায়ী গত বছর ১০ আগষ্ট নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা ছিল। নির্বাচনটি পরিচালিত হয় শ্রম অধিদপ্তরের মাধ্যমে। গত কয়েক মাস ধরে দফায় দফায় শ্রমমন্ত্রী থেকে শুরু করে শ্রম অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট বিভাগে যোগাযোগ করে তাগাদা দেয়া হয়েছে। তবে চুক্তি বাস্তবায়নের জন্যও মালিক পক্ষের সাথে চা শ্রমিকদের আলোচনা চলমান রয়েছে। মালিক পক্ষকে বলা হয়েছে ঘন ঘন বৈঠক করার মধ্যদিয়ে চুক্তি স্বাক্ষর করা। তবে মালিক পক্ষ চুক্তি বাধাগ্রস্ত করার জন্যই ইচ্ছাকৃতভাবে বৈঠক বিলম্বিত করছে।

শ্রীমঙ্গলস্থ শ্রম অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, আগামী ১৩ মে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করেছে কর্তৃপক্ষ। এজন্য ১৮ এপ্রিল তফশিল ঘোষণা করা হবে। এর আগে চা শ্রমিক ভোটারদের তালিকা হাল নাগাদ করতে প্রতিটি চা বাগান ব্যবস্থাপকের কাছে পত্র প্রেরণ করা হয়েছে। খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশের পর তা যাচাই বাছাই শেষে চুড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে পরবর্তী কার্যক্রম পরিচালিত হবে। তিনি আরও বলেন, মজুরি চুক্তির বিষয়টিও আলোচনাধীন রয়েছে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
Bay Leaf Premium Tea
Intlestore

বিশেষ প্রতিবেদন -এর সর্বশেষ

Hairtrade