Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
৩ আশ্বিন ১৪২৫, বুধবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১:২৬ পূর্বাহ্ণ
Globe-Uro

লাভের মুখ দেখছে জিটিসি : ফেব্রুয়ারিতে বিক্রি ২২ কোটি টাকা


১১ মার্চ ২০১৮ রবিবার, ০২:২৯  এএম

সোহেল সানী, পার্বতীপুর প্রতিনিধি

বহুমাত্রিক.কম


লাভের মুখ দেখছে জিটিসি : ফেব্রুয়ারিতে বিক্রি ২২ কোটি টাকা
ছবি : বহুমাত্রিক.কম

দিনাজপুর : দেশের একমাত্র পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া পাথর খনিটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জার্মাানিয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) এর ব্যবস্থাপনায় সরকারী লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিনত হতে চলেছে।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে জিটিসি কর্তৃক প্রায় ৯০ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করা হয়েছে। জিটিসি কর্তৃক উত্তোলিত সেই পাথর প্রায় ২২ কোটি টাকায় বিক্রি করে মধ্যপাড়া খনি কর্তৃপক্ষের লাভ হয়েছে প্রায় ৮ কোটি টাকা। এই প্রথমবারের মত মধ্যপাড়া খনি কর্তৃপক্ষ লাভের মুখ দেখেছে।

জিটিসি’র মহা-ব্যস্থাপক জাবেদ সিদ্দিকী বলেন, মধ্যপাড়া পাথর খনির উন্নয়ন ও পাথর উত্তোলনে খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্টানের অধীনে বর্তমানে প্রায় ৭শ খনি শ্রমিক, ৭০ রাশিয়ান ও বেলারুশিয়ান খনি বিশেষজ্ঞ এবং অর্ধশতাধিক দেশী প্রকৌশলী দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন।

জানা গেছে, খনির পাথর উত্তোলন ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসি খনি উন্নয়ন করে নতুন স্টোপ থেকে তিন শিফটে পাথর উত্তোলন করে যাচ্ছে। পাথর খনি ভু-গর্ভে অত্যাধুনিক ও বিশ্ব মানের মেনিশনপত্র ও যন্ত্রাংশ স্থাপনের ফলে প্রতিদিন পাথর উত্তোলন বাড়ছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে ২৩ দিনে (সাপ্তাহিক ছুটি ও সরকারী ছুটি ব্যাতীত) জিটিসি খনির অপারেশনাল কার্যক্রম চালিয়ে তিন শিফটে পাথর উত্তোলন করেছে প্রায় ৯০ হাজার মেট্রিক টন। যার প্রতিদিন গড় উৎপাদন ছিল প্রায় ৪ হাজার মেট্রিক টন।

সুত্রটি আরো জানায়, প্রতিদিন তিন শিফটে পাথর উত্তোলনের পরিমান যে হারে বাড়ছে, অল্প কিছু দিনের মধ্যে জিটিসি’র দ্বারা তিন শিফটে প্রতিদিন পাথর উত্তোলন সাড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টনে পৌঁছাবে। যা মধ্যপাড়া পাথর খনির নির্ধারিত ও কাংখিত লক্ষ্যমাত্রা এবং খনির পাথর উত্তোলনের ক্ষেত্রে হবে নতুন রেকর্ড। একই সঙ্গে জিটিসি’র বিদেশী বিশেষজ্ঞদের ব্যবস্থাপনায় মধ্যপাড়া পাথর খনিটি বাংলাদেশ সরকারের সবচেয়ে লাভজনক প্রতিষ্ঠানের একটি বলে গণ্য হবে, যা ইতিপুর্বে ছিল অকল্পনীয়। এক্ষেত্রে জিটিসি পাথর খনিটিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিনত করতে পাথর উৎপাদনসহ খনি কার্যক্রম পরিচালনায় মধ্যপড়া খনি কর্তৃপক্ষ (এমজিএমসিএল) এর সর্বোচ্চ সহযোগিতা সব সময় কামনা করেছে।

পাথর খনি সুত্রে জানা গেছে, জিটিসি খনির উন্নয়ন ও ভু-গর্ভে নতুন স্টোপ নির্মাণে বিদেশী অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ও যন্ত্রাংশ আমদানি এবং তা স্থাপনের সময়কালে খনির পাথর উৎপাদন বন্ধের ক্ষতিকে পুষিয়ে নিতে জিটিসি’র বিদেশী খনি বিশেষজ্ঞ এবং দক্ষ খনি শ্রমিকরা তিন শিফটে খনি উন্নয়নের পাশাপাশি পুরোদমে পাথর উত্তোলন করছে। পাথর উত্তোলন বৃদ্ধি পাওয়ায় পাথর বিক্রিও বাড়ছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে প্রায় ২২কোটি টাকার পাথর বিক্রি থেকে খনি কর্তৃপক্ষ (এমজিএমসিএল) এর আয় হয়েছে প্রায় ৮ কোটি টাকা।

জিটিসি’র ব্যবস্থাপনায় ও আন্তরিকতায় পাথর খনিটি সরকারী লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হতে চলেছে। জিটিসিকে এই ধারা অব্যাহত রাখতে দিলে চলতি বছরে খনি কর্তৃপক্ষ ১শ’ কোটি টাকা রাজস্ব আয় হবে। পাশাপাশি পাথর বিক্রি থেকে সরকারী কোষাগারে ভ্যাট ও আয়কর বাবদ জমা হবে কয়েক কোটি টাকা। মধ্যপাড়ার মত এক অনুন্নত এবং পশ্চাৎপদ জনগোষ্টির আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অগ্রণী ভুমিকা পালন করবে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।