Bahumatrik Multidimensional news service in Bangla & English
 
৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, সোমবার ২০ নভেম্বর ২০১৭, ৩:২১ পূর্বাহ্ণ
Globe-Uro

যে কোরবানির হাটে দিনেই আদায় ১৫ লক্ষাধিক টাকা খাজনা


৩১ আগস্ট ২০১৭ বৃহস্পতিবার, ০১:২৪  এএম

আবদুল ওহাব, বগুড়া প্রতিনিধি

বহুমাত্রিক.কম


যে কোরবানির হাটে দিনেই আদায় ১৫ লক্ষাধিক টাকা খাজনা
ছবি: বহুমাত্রিক.কম

বগুড়া : বছরে ১০ লাখ ২২ হাজার ৫ শত টাকা ইজারায় ডেকে নিয়ে বগুড়ার শাজাহানপুরের রাণীরহাটে ১ দিনেই ১৫ লক্ষাধিক টাকা খাজনা আদায় করা হয়েছে। যা হতবাক করেছে সাধারণ মানুষকেও।

বুধবার উপজেলার রাণীর হাটে গিয়ে ক্রেতা বিক্রেতা ও ইজারাদারদের লোকজনের দেওয়া প্রাপ্ত তথ্যে এমনটি জানা গেছে।

ইজারাদারের লোকজন এবং ক্রেতা বিক্রেতারা জানান, হাটে কোরবানির গরু উঠেছে ৪ হাজারেরও বেশী। আর ছাগল উঠেছে প্রায় ৩ হাজারের বেশী। তবে গরু ক্রয়-বিক্রয় হয়েছে প্রায় ২ হাাজারের বেশী। আর ছাগল কেনাবেচা হয় দেড় হাজারের বেশী।

গরু ক্রয়কারী বগুড়া জলেশ্বরীতলা এলাকার মৃত নাজির উদ্দিনের ছেলে মাহবুবুুর রহমান জানান, তিনি গরু কিনেছেন ৪৮ হাজার টাকা দিয়ে। আর খাজনা দিয়েছেন ৫০০ টাকা এবং তার গরু বিক্রেতা দিয়েছে ১০০ টাকা। এমনিভাবে অনেক গরু ক্রেতা বলেন তাদের নিকট থেকেও একই হারে টাকা নেওয়া হয়েছে।

ছাগল ক্রেতা বেজোড়া গ্রামের সোবহান মুন্সীর ছেলে জহুরুল ইসলাম জানান, তিনি তার ছাগল ক্রয়ের জন্য ৩০০ শত টাকা খাজনা দিয়েছেন। একই কথা বলেন, অনেক ছাগল ক্রেতা-বিক্রেতা। এদিকে গরু ক্রয় বিক্রয়ের পর দেখাযায়, ইজারাদার হাটের অন্ততঃ ৫ টি পয়েন্টে খাজনা আদায়ের জন্য তার লোকজন বসিয়ে প্রতিটি গরুর জন্য ৬০০ টাকা করে খাজনা আদায় করছে।

গরু ক্রেতার নিকট থেকে ৫০০ টাকা এবং বিক্রেতার নিকট থেকে ১০০ টাকা করে মোট ৬০০ টাকা খাজনা আদায় করা হচ্ছে। ইজারাদারে লোক জাহানুর, রিপন, বাবু, ফারুক ও রিজভী জানান, তারা ইজারাদারের নির্দেশমত নির্ধারিত হারেই খাজনা আদায় করছেন। সেক্ষেত্রে প্রতিটি গরুর জন্য ৬০০ টাকা খাজনা আদায় করা হলে আড়াই হাজার গরুর জন্য প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা খাজনা আদায় করা হয়েছে। আর প্রতিটি ছাগলের জন্য খাজনা আদায় করা হয় ৩৫০ টাকা।

ছাগল ক্রেতা বগুড়া জলেশ্বরীতলা এলাকার মৃত কাজেম উদ্দিনের ছেলে আবদুর রহমান জানান, তিনি ১৩ হাজার টাকা দিয়ে একটি খাশী ক্রয় করেছেন। আর খাজনা দিতে হয়েছে ৩ শত টাকা এবং তার ছাগল বিক্রেতা দিয়েছেন ৫০ টাকা। মোট সাড়ে ৩ শত টাকা দিতে হয়েছে। এভাবে একই কথা বলেন, হাটে ছাগল ক্রয় করতে আসা সাধারন মানুষ।

এদিকে ছাগলের বিক্রয় রশিদ প্রদানকারী ইকরামুল ও ইসরাফিল জানান, হাটে প্রায় ৩ হাজারেরও বেশী ছাগল এসেছে এবং ২ হাজারেরও বেশী ছাগল ক্রয়-বিক্রয় হয়েছে। তারা আরও জানান, প্রতিটি ছাগলের জন্য ক্রেতার নিকট থেকে ৩০০ শ’ টাকা এবং বিক্রেতার নিকট থেকে ৫০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। সেক্ষেত্রে ১ টি ছাগলের জন্য ৩৫০ টাকা খাজনা আদায় করা হলে ২ হাজার ছাগলের জন্য প্রায় ৭০ হাজার টাকা আদায় করা হয়েছে।

এভাবে দেখাযায়, ১ দিনেই রাণীরহাটে পশু ক্রয় বিক্রয় থেকেই ১৫ লক্ষাধিক টাকা খাজনা আাদায় করা হয়েছে। শাজাহানপুর উপজেলা পরিষদ সুত্রে জানা গেছে, এবছর রাণীরহাটটি সরকারিভাবে ইজারা দেওয়া হয়েছে ১০ লক্ষ ২২ হাজার ৫ শত টাকা। যা বুধবারের হাটের ১ দিনের খাজনা আদায় থেকেই তোলার পরেও ৫ লক্ষাধিক টাকা উদ্ধৃত্ত রয়েছে। এভাবে খাজনা আদায় করার কারন জানার জন্য হাটের ইজারাদারের নিকট বারবার ফোন দেওয়া সত্বেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

তবে এমন করে খাজনা আদায় করাটা নিয়মতান্ত্রিক ভাবে নেওয়া হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জাবাবে শাজাহানপুর উপজেলা সহকারী (ভুমি) কমিশনার এসএম জাকির হোসেন বলেন, খাজনার হার ঠিক আছে কিনা তা সঠিক জানিনা। তবে আগামীকাল ফাইল দেখে বলতে পারবো।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
Bay Leaf Premium Tea
Intlestore

বিশেষ প্রতিবেদন -এর সর্বশেষ

Hairtrade