Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
২ কার্তিক ১৪২৫, বৃহস্পতিবার ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ১১:৪২ পূর্বাহ্ণ
Globe-Uro

যশোর পলিটেকনিকের ছাত্রদের থেকে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ


০৯ মে ২০১৮ বুধবার, ১২:৪৯  এএম

কাজী রকিবুল ইসলাম, যশোর প্রতিনিধি

বহুমাত্রিক.কম


যশোর পলিটেকনিকের ছাত্রদের থেকে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ

যশোর : যশোর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের বিদায়ী সংবর্ধনার নামে সাধারণ ছাত্রদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের সাধারণ ছাত্ররা জানায়, চার বছর পর বিভিন্ন কলকারখানায় বাস্তব প্রশিক্ষণ শেষে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্ররা সরকারি ভাবে প্রত্যেক ছাত্র ১২ হাজার টাকা করে বৃত্তি পায়। এই বৃত্তির টাকা তুলতে ছাত্রদের ব্যাংক একাউন্ট খুলতে হয়।

ডাচবাংলা ব্যাংকের সাথে পলিটেকনিক কর্তৃপক্ষের চুক্তির হওয়ায় কারণে এই ব্যাংকের একাউন্ট থেকে ছাত্রদের সরকারি বৃত্তির টাকা তুলতে হবে। ফলে ডাচবাংলা ব্যাংকের প্রতিনিধি পলিটেকনিক কলেজে একাউন্ট খোলার ফরম পৌছে দেয়। আশ্চার্য্যরে বিষয় হচ্ছে ব্যাংকের প্রতিনিধির পাঠানো ফরম সাধারণ ছাত্রদের হাতে পৌছায় না। ফরম গুলি ছাত্রলীগের ব্যানারে কতিপয় ছাত্রনেতারা নিয়ে নেয়। আর একাউন্ট খোলার ফরম নিতে সাধারণ ছাত্ররা কতিপয় ছাত্রনেতাদের কাছে গেলে তিনশ টাকার বিনিময়ে ফরম নিতে হচ্ছে। এভাবে ৫শ ৪৩ জন ছাত্রকে ফরম নিতে কতিপয় ছাত্রনেতাদের টাকা দিতে হচ্ছে ১ লাখ ৬২ হাজার ৯শ।

নিয়ম রয়েছে কলেজের ছাত্ররা একাউন্ট খোলার ফরম নেবে অধ্যক্ষের কাছ থেকে অথবা অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রতিনিধির কাছ থেকে। কিন্তু সেটার ব্যবস্থা না করে অধ্যক্ষ দায়িত্ব এড়িয়ে যান বলে সাধারণ ছাত্রদের অভিযোগে জানা যায়।

চাঁদাবাজির বিষয়ে কলেজ অধ্যক্ষ অনিমেষ পালের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, চাঁদাবাজির এমন কোন অভিযোগ তার কাছে কেউ দেয়নি। অভিযোগ পেলে তিনি ব্যবস্থা নেবেন। অধ্যক্ষ অনিমেষ পালের সাথে কথা শেষ হওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যে এ প্রতিনিধির কাছে ০১৬৪৪০০০৪৩২ থেকে ফোন দেয়া হয়। ফোনে বলা হয় আমি পলিটেকনিক ইনন্টিটিউটের বিদায়ি ছাত্র। নাম জানতে চাইলে বলা হয় সাগর। সিভিল বিভাগের ছাত্র।

নাম্বার কোথায় পেলেন জানতে চাইলে বলা হয় প্রিন্সিপ্যাল স্যার আমাকে নাম্বার দিয়ে বললেন এনার সাথে কথা বলো। সাগর বলেন আমাদের কাছ থেকে জোর করে কোন টাকা পয়সা নেয়া হচ্ছে না। প্রতি বছর বিদায়ী ছাত্রদের সংবর্ধনা দেয়া হয়। আর ছাত্রলীগই সংবর্ধনা দেয়। এবছরও ছাত্রলীগ সংবর্ধনা দিচ্ছে। সংবর্ধনায় আমাদের যে ক্রেস্ট দেয়া হয় তা নিন্ম মানের। এজন্য আমরা বলেছি টাকা যা লাগে লাগুক এবার যেন আমাদের ক্রেস্টটা মানসম্মত হয়। তাই আমাদের কাছ থেকে ৩শ টাকা নেয়া হচ্ছে।

এদিকে সাধারণ ছাত্ররা অভিযোগ করেন, ছাত্রলীগের ব্যানারে কতিপয় ছাত্র নেতারা তাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে জোর পূর্বক ৩শ করে টাকা নিয়ে একাউন্ট খোলার ফরম দিচ্ছে। এব্যাপারে কয়েকজন ছাত্র অধ্যক্ষের কাছে অভিযোগ করলেও তিনি কোন ব্যবস্থা নেননি। বরং অধ্যক্ষ উল্টো কতিপয় ছাত্র নেতাদের পক্ষ নেন।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।