Bahumatrik Multidimensional news service in Bangla & English
 
১৩ ফাল্গুন ১৪২৪, সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ৫:৫৪ পূর্বাহ্ণ
Globe-Uro

যশোরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সততা স্টোর চালু


১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ শনিবার, ০১:২৫  এএম

কাজী রকিবুল ইসলাম

বহুমাত্রিক.কম


যশোরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সততা স্টোর চালু
ছবি : সংগৃহীত

যশোর : দোকান আছে, পণ্য আছে কিন্তু নেই কোন দোকানী, তবুও চলছে বিকিকিনি। যশোরের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দোকানে যেয়ে প্রয়োজন মত পণ্য পছন্দ করছে, গায়ে লেখা দাম দেখে দোকানের ক্যাশ বাক্সে মূল্য পরিশোধ করে সংগ্রহ করছে পণ্য।

এভাবেই প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীদের সততার চর্চা হচ্ছে। সরকারি প্রকল্প সততা স্টোরের মাধ্যমে দেয়া হচ্ছে এ শিক্ষা। তবে যশোরের অধিকাংশ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এখনও সততা স্টোর চালু হয়নি।

২০১৭ সালের অক্টোবরে সততা স্টোর করার জন্য জেলা শিক্ষা অফিস থেকে বিদ্যালয়গুলোতে চিঠি দেয়া হয়। এর প্রেক্ষিতে নভেম্বর মাসে চালু হয় সততা স্টোর। এ তথ্য জানান উপশহর শহীদ স্মরণী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাহাজাদ হোসেন বাবু।

শহরের ঘোপ জেল রোডের এনএম খান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফরোজা সুলতানা জানান, সততা স্টোরে রাখা হয়েছে ছোট ও বড়দের খাতা, কলম, পেনসিল, রাবার, পেনসিল কাটার ও বিভিন্ন রকম রঙ পেনসিল। এ সব পণ্যের গায়ে দাম লিখে রাখা হয়। শিক্ষার্থীরা শিক্ষার উপকরণ নিয়ে দাম দেখে বক্সে টাকা রাখে। প্রতিটি বিদ্যালয়ের সততা স্টোর পরিচালনার জন্য একজন শিক্ষকের দায়িত্ব দেয়া আছে। দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকই সততা স্টোরের শিক্ষা উপকরণ শেষ হলে কিনে এনে রাখেন।

উপশহর ডি-ব্লক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র তেহাসী রেদওয়ান জানায়, সততা স্টোর হওয়ার পর তাদের অনেক সুবিধা হচ্ছে। খাতা-কলম কেনার জন্য বাইরে যাওয়া লাগছে না। তবে দামের সাথে মিলিয়ে ভাংটি টাকা বাক্সে রাখাতে সমস্যা হয়। একই শ্রেণির ছাত্রী মায়েশা বিনতে মাইশি জানায় বিদ্যালয়ে সততা স্টোর চালু করায় ভাল হয়েছে। তবে শুধু খাতা কলম না হয়ে খাবার দাবার বিশেষ করে চিপস, জুস, চুইনগাম, চকলেটের মত খাবার থাকলে অনেক সুবিধা হতো।

সদর উপজেলার তালবাড়ীয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লায়লা আঞ্জুম জানান, শিক্ষার্থীদের সততার শিক্ষা দেয়ার চেষ্টা চলছে। সততা স্টোর থেকে শিক্ষার্থীরা নিজেরাই জিনিসপত্র নিয়ে বক্সে টাকা রাখছে। এতে শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া মিলেছে।

উপশহর ডি ব্লক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূরুন্নাহার জানান, শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের সততা স্টোরের কথা বলা হয়েছে। এরপর থেকে শিক্ষার্থীরা সততার সাথে সততা স্টোর থেকে শিক্ষা উপকরণ নিচ্ছে। আর টাকা রাখার বক্সে টাকা রাখছে। এভাবে শিক্ষার্থীদের যথেষ্ট সততার শিক্ষা দেয়া হচ্ছে। উপশহর শহীদ স্মরণীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহাদাৎ হোসেন বাবু জানান, সততা স্টোরের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা উপকৃত হচ্ছে। একই সাথে অভিভাবকরা খুশি। কেননা তাদের ছেলেমেয়েরা কেনাকাটার জন্য ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় আসছে না।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
Bay Leaf Premium Tea
Intlestore

শিশুর রাজ্য -এর সর্বশেষ

Hairtrade