Bahumatrik Multidimensional news service in Bangla & English
 
৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ৩:৫৭ অপরাহ্ণ
Globe-Uro

বিশ্বমঞ্চে বাংলাদেশের স্থাপত্য তুলে ধরা উদ্যোগ নিল বেঙ্গল


১৭ নভেম্বর ২০১৭ শুক্রবার, ০৩:২৯  এএম

বহুমাত্রিক ডেস্ক


বিশ্বমঞ্চে বাংলাদেশের স্থাপত্য তুলে ধরা উদ্যোগ নিল বেঙ্গল
ছবি : বেঙ্গল ফাউন্ডেশন

ঢাকা : বিশ্বমঞ্চে বাংলাদেশের স্থাপত্যশৈলী তুলে ধরা উদ্যোগ নিল বেঙ্গল ইন্সিটিউট ফর আর্কিটেকচার, ল্যান্ডস্কেপ অ্যান্ড সেটেলমেন্টস।

সুইস আর্কিটেকচার মিউজিয়াম, সুইজারল্যান্ড এর সঙ্গে যৌথভাবে ‘বেঙ্গল স্ট্রিম’ শীর্ষক এক প্রদর্শনীর আয়োজন করছে দেশের এই প্রতিষ্ঠানটি, যেখানে তুলে ধরা হবে বাংলাদেশের সমকালীন স্থাপত্য। আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে সুইজারল্যন্ডে অনুষ্ঠেয় এ প্রদর্শনীটি চলবে ৬ দিন ধরে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সোনারগাঁ হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরে আয়োজকরা।

এই সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বেঙ্গল ইন্সিটিউটের মহাপরিচালক অধ্যাপক কাজী খালেদ আশরাফ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশন এর চেয়ারম্যান আবুল খায়ের। প্রধান আলোচক হিসেবে ছিলেন বেঙ্গল স্ট্রিম আর্কিটেকচার এক্সিবিশন এর প্রধান কিউরেটর নিকোলাস গ্র্যাবার। সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন দেশের অন্যতম এবং স্বনামধন্য স্থপতিবৃন্দ, যাদের নির্মিত স্থাপনা, ও ডিজাইন গুলো এক্সিবিশনে প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে প্রারম্ভিক বক্তব্যে অধ্যাপক কাজী খালিদ আশরাফ বলেন, বাংলাদেশের সমকালীন স্থাপত্য আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তুলে ধরাই এই প্রদর্শনীর মূল উদ্দেশ্য।

বেঙ্গল ফাউন্ডেশন এর চেয়ারম্যান আবুল খায়ের বলেন, বেঙ্গল স্ট্রিম আর্কিটেকচার প্রদর্শনীটি বিশ্বমঞ্চে বাংলাদেশের স্থাপত্য, ও স্থপতিদের নির্মিত উল্লেখযোগ্য স্থাপনাগুলোর গুণগত বিশিষ্টগুলো সুইজারল্যান্ড এর দর্শকদের সামনে তুলে ধরবে। পরবর্তীতে এই প্রদর্শনীটি ইউরোপের অন্যান্য দেশেও ভ্রমণ করবে।
তিনি বলেন, নদীবিধৌত প্রত্যন্ত চর অঞ্চল থেকে শুরু করে ছোট শহর ও বৃহত্তর নগরগুলোতে বাংলাদেশের স্বনামধন্য স্থপতিদের নির্মিত স্থাপনা রয়ছে। জনকল্যাণে এই স্থাপনাগুলো কিভাবে অবদান রাখছে সেটাও এই এক্সিবিশনের মধ্য দিয়ে প্রতিফলিত হবে।

তিনি বলেন, কিংবদন্তি স্থপতি মাযহারুল ইসলাম, যিনি বাংলাদেশের বেশীরভাগ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাসমূহের রুপকার তিনি একটি পরিকল্পিত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন। সেই স্বপ্নকে এগিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নিতে হবে। নগরের পরিকল্পনা এমন হওয়া উচিত যেখানে সকল অর্থনৈতিক শ্রেণির মানুষের অস্তিত্ব ও অধিকার কে স্বীকৃতি দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা প্রদর্শনীর প্রধান কিউরেটর ও সমন্বয়কারী নিকোলাস বলেন, আজকের এই সংবাদ সম্মেলনটি মূলত বেঙ্গল স্ট্রিম এক্সিবিশনের আসন্ন উদ্বোধনীর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। বাংলাদেশের স্থাপত্যের প্রধান বৈশিষ্ট্য হল বিদ্যমান পরিবেশের সাথে এর প্রাসঙ্গিকতা যা অন্যান্য দেশের স্থাপত্যের থেকে একে আলাদা করে তুলেছে। এছাড়া একজন স্থপতি তার কাজের মধ্য দিয়ে কিভাবে সমাজে অবদান রাখতে পারে তার নমুনা আছে বাংলাদশের স্থাপত্যশিল্পে। তিনি বহির্বিশ্বের সামনে এ দেশের স্থাপত্যের গুনমান তুলে ধরতে চান যাতে বেঙ্গল স্ট্রিম হয়ে ওঠে একটি নলেজ শেয়ারিং এর জায়গা।
বাংলাদেশের রয়েছে অনেক ঐতিহাসিক স্থাপনা যা প্রাচীন কাল থেকেই সমৃদ্ধ। অতীতের ঐতিহাসিক স্থাপত্যিক নিদর্শনগুলোর সাথে সমসাময়িক স্থাপত্যের সেতুবন্ধন তৈরি করতে এই প্রদর্শনীর আয়োজন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, বেঙ্গল ইন্সিটিউট এর রিসার্চ ও ডিজাইন প্রোগ্রামগুলো মুলত নগর পরিকল্পনাভিত্তিক। এই প্রোগ্রামের আওতায় বেঙ্গল ইন্সিটিউট ঢাকা শহরের ট্রান্সপোর্ট নেটওয়ার্ক কে আরও গণমুখী ও কার্যকরী রূপ দেয়ার লক্ষ্যে নিবিড় গবেষণা ও পরিকল্পনাপ্রসূত প্রস্তাবনা তৈরি করেছে। এছাড়াও ছোট শহর, যেমন, সিলেটের শহরটিকে আরও জনবান্ধব করে তুলতে একটি আদর্শ নগর পরিকল্পনার প্রস্তাব করেছে। এভাবে অন্যান্য ছোট শহর বিশেষ করে দক্ষিন পশ্চিমে অবস্থিত উপকূলীয় অঞ্চল নিয়ে বেঙ্গল ইন্সিটিউট কাজ করে যাচ্ছে।

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
Bay Leaf Premium Tea
Intlestore

স্থাপত্য -এর সর্বশেষ

Hairtrade