Bahumatrik Multidimensional news service in Bangla & English
 
৩ শ্রাবণ ১৪২৫, বুধবার ১৮ জুলাই ২০১৮, ২:৩৪ অপরাহ্ণ
Globe-Uro

প্রকল্পের অর্থে ইউপি সদস্যের বাড়ির রাস্তার মাঠি ভরাট


০৩ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার, ০১:৪৩  এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


প্রকল্পের অর্থে ইউপি সদস্যের বাড়ির রাস্তার মাঠি ভরাট
ছবি : বহুমাত্রিক.কম

মৌলভীবাজার : মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের এলজিএসপির প্রকল্পের অর্থে এক ইউপি সদস্যের বাড়ির রাস্তায় মাঠি ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে। কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মাসুক মিয়া ইউপি চেয়ারম্যানের যোগসাজষে গোবিন্দপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে রাস্তায় মাটি ভরাট করেন। সোমবার স্থানীয় এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে গণস্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে দেওয়া হয়।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শমশেরনগর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের গোবিন্দপুর, শঙ্করপুর ও সারঙ্গপুর গ্রামের প্রায় দুই হাজার মানুষের চলাচলের সরকারী গ্রাম্য রাস্তার মাঝে মাঝে করুন অবস্থা দেখা দিয়েছে। কালাম মিয়ার দোকান থেকে ইউপি সদস্য মাসুক মিয়ার বাড়ি পর্যন্ত সরকারি রাস্তার কয়েকটি স্থানে গর্তের ফলে অল্প বৃষ্টিতেই সেখানে কাঁদা পানি জমে থাকে। ফলে এ রাস্তা ব্যবহারকারী শত শত শিক্ষার্থী স্কুল কলেজে যেতে পারে না। মক্তবের ছাত্ররাও কাঁদা পনি মাড়িয়ে মক্তবে যেতে হয়। মুসল্লীরা মসজিদে যেতেও কষ্ট হয়।

গ্রামবাসীরা ওয়ার্ড ইউপি মাসুক মিয়াকে গ্রাম্য সরকারী রাস্তায় মাঠি ভরাট করে প্রয়োজনীয় স্থানে ছোট কালভার্ট নির্মাণের জন্য দফায় দফায় আবেদন নিবেদন করেন। গ্রামবাসীর আবেদন নিবেদন উল্লেখ করে ইউপি সদস্য মাসুক মিয়া ২ লাখ টাকা ব্যয়ে এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় গ্রামের সরকারী রাস্তার উন্নয়নের প্রস্তাব জমা করেন ইউনিয়ন পরিষদে। পরে তিনি এ প্রকল্পের মাধ্যমে নিজের বাড়ির প্রায় ৪শ’ ফুট দৈর্ঘের রাস্তায় মাটি ভরাট করেন।

গ্রামের অভিযোগকারী ইজ্জাদুর রহমান, আব্দুল হান্নান, আব্দুল মতিন, মখলিছুর রহমান বলেন, এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় গ্রামের সরকারী রাস্তায় মাটি ভরাট না করে নিজের বাড়ির রাস্তায় মাটি ভরাটের প্রতিবাদ করলে ইউপি সদস্য বলেন, তোমরা নিজেরাই সরকারী রাস্তায় কাজ করে নিও। প্রয়োজনে ইউপি সদস্য ৫ হাজার টাকা দিয়ে সহায়তা করবেন।

মোবাইল ফোনে অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মাসুক মিয়া বলেন, তিনি তিনবারের নির্বাচিত সদস্য। বাড়ির রাস্তার অবস্থা খুবই করুন। তার ওয়ার্ডের জনগণ তার বাড়িতেও যেতে পারেন না। তাছাড়া বাড়িতে একটি সিএনজি অটোরিক্সাও যেতে পারে না এবং বাড়িতে আরও কয়েকটি পরিবার থাকায় নির্বাচনের সময় তাদের ওয়াদা করার কারনেই রাস্তায় মাটি ভরাট করা হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ সকল সদস্যদের সাথে কথা বলে তাদের মতামতের ভিত্তিতেই বাড়ির রাস্তায় মাটি ভরাট করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, গ্রামের মানুষ সরকারী রাস্তা উন্নয়নে মাটি দিতে রাজি না থাকায় সে রাস্তায় মাটি ভরাট করা যায়নি। তবে রাস্তায় মাটি ভরাট কাজ হলে এখনও টাকা উত্তোলন করা যায়নি বলে তিনি জানান।

শমশেরনগর ইউপি চেয়ারম্যান মো. জুয়েল আহমদ নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে করা অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নির্বাহী কর্মকর্তা আমাকেই তদন্তভার দিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, ইউপি সদস্য মাসুক মিয়া এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় গ্রাম্য রাস্তায় মাটি ভরাটের প্রস্তাব দিয়েছেন। তবে তার নিজের বাড়ির রাস্তা ভরাট করেছেন বলে তিনি জানেন না। এ প্রকল্পে আগে কাজ করে পরে টাকা উত্তোলন করতে হয়। তাই এখনও টাকা দেওয়া হয়নি।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক অভিযোগ গ্রহণের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিয়েছেন। তার পরও তিনি নিজে গিয়ে দেখবেন।

উল্লেখ্য, শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ কর্তৃক গত কয়েক বছরে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগে বিগত বছর প্রাক্তন চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর মৌলভীবাজার আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলার তদন্তের জন্য দুর্ণীতি দমন কমিশনকে প্রদান করেন। দুর্নীতি দমন কমিশনের হবিগঞ্জ কার্যালয়ের কর্মকর্তারা কয়েকদফা সরেজমিন তদন্ত করেন। তদন্তে বেশ কিছু প্রকল্পে সত্যতা পাওয়ায় চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ তফশিলী ব্যাংকের মাধ্যমে সাড়ে ১১ লাখ টাকা রাজস্ব খাতে জমা দেন।

 

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
ভাগ হয়নি ক' নজরুল
Bay Leaf Premium Tea
Intlestore

অসঙ্গতি প্রতিদিন -এর সর্বশেষ

Hairtrade