Bahumatrik Multidimensional news service in Bangla & English
 
১০ মাঘ ১৪২৪, মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারি ২০১৮, ২:০৩ অপরাহ্ণ
Globe-Uro

ডা: জুলেখা দাউদ, আমিরাতের প্রথম মহিলা ডাক্তার


৩০ ডিসেম্বর ২০১৭ শনিবার, ০৯:১২  এএম

বহুমাত্রিক ডেস্ক


ডা: জুলেখা দাউদ, আমিরাতের প্রথম মহিলা ডাক্তার

ঢাকা : ভারতীয় নাগরিক জুলেখা দাউদকেই সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রথম মহিলা ডাক্তার বলে মনে করা হয়। এই দেশটির স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে পাল্টে দেয়ার ক্ষেত্রে এক বড় ভূমিকা রেখেছেন তিনি।

জুলেখা দাউদের বয়স এখন ৮০। ১৯৬৩ সালে প্রথম যেদিন তিনি দুবাইতে এসে নামলেন, সেই দিনটির কথা এখনো মনে করতে পারেন।

"আমরা যখন নামলাম, তখন সেখানে কোন বিমানবন্দর পর্যন্ত নেই। কেবল একটা রানওয়ে। নামার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের গায়ে এসে লাগলো গরম হলকা। সহ্য করা যায় না সেই গরম", বলছিলেন তিনি।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের এখনকার স্বাস্থ্য সেবার মান দেখলে সেসময়ের অবস্থা কল্পনাও করা যাবে না। তখন সেখানে হাসপাতাল বলতে কিছু ছিল না। অন্যান্য দেশ থেকে ধার করে আনা ডাক্তার দিয়ে কোন রকমে স্বাস্থ্য সেবা চালাচ্ছিল তারা।

ডা: দাউদ মনে করতে পারেন, কত রকম অসুখ-বিসুখে ভুগছিল তখন আমিরাতের মানুষ। যক্ষা থেকে শুরু করে ডায়ারিয়া। মেয়েদের সন্তান প্রসব করানোর মতো মহিলা ডাক্তার পর্যন্ত ছিল না। অপুষ্টিতে ভুগছিল শিশুরা।

"আমি তো দুবাই আসার আগে এই জায়গার নাম পর্যন্ত শুনিনি। এখানে আসার পরই বুঝতে পেরেছিলাম এখানকার জীবন কত কষ্টের", বলছিলেন তিনি।

তখন দুবাইতে এয়ারপোর্ট যেমন নেই, তেমনি নেই কোন সমূদ্র বন্দর। এয়ারকন্ডিশনিং ব্যবস্থা তখনো স্বপ্ন। একটা শহরে যে ন্যূনতম সুযোগ-সুবিধা তার কিছুই নেই। বিদ্যুৎ থাকে না সবসময়।

ডা: দাউদের মতো সিরিয়া এবং লেবানন থেকে এসেছিলেন আরও অনেক ডাক্তার। তারা সেখানে কাজ করতে চাইছিলেন না। এরা ফিরেও গেছেন।

কিন্তু ডা: দাউদ রয়ে গেলেন। তাঁর মনে হলো এখানে অনেক কাজ করার আছে।"আমার মনে হয়েছিল এই লোকগুলোর আমাকে দরকার"।

ডা: জুলেখা দাউদ একজন স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। কিন্তু দুবাই তখনকার অবস্থার কারণে তাঁকে জেনারেল প্র্যাকটিশনার হিসেবেই কাজ শুরু করতে হলো।

"পোড়া রুগী থেকে শুরু করে সাপে কামড়ানো মানুষ, চর্মরোগ থেকে যে কোন কিছুরই চিকিৎসা করতে হচ্ছিল আমাকে।"

ভারতের মহারাষ্ট্র থেকে দুবাই পর্যন্ত তার এই দীর্ঘযাত্রা সহজ ছিল না। তিনি পাশ করেছিলেন নাগপুর মেডিক্যাল কলেজ থেকে।

একটি রক্ষণশীল মুসলিম পরিবার তাদের অবিবাহিতা মেয়েকে কিভাবে এত দূর দেশে যেতে দিয়েছিল?

স্বীকার করলেন, এটি তখন অচিন্তনীয় ব্যাপার ছিল। কিন্তু তার বাবা-মা তাকে সোৎসাহে সমর্থন যুগিয়েছিলেন।

দুবাইতে তার প্রথম কাজ পড়েছিল মরুভুমির মাঝে এক কোনরকমে দাঁড় করানো অস্থায়ী হাসপাতালে। সেখানে চারিদিকে উপজাতীয়রা থাকতো।কয়েক মাস পর তাকে বদলি করা হলো শারজায়।

তখন দুবাই থেকে শারজাহ যাওয়ার কোন পাকা রাস্তা ছিল না। তাদের গাড়ি মরুভূমিতে বার বার আটকে যাচ্ছিল।

দিনে দিনে ড: দাউদের সুখ্যাতি বাড়তে লাগলো। পেশায় উন্নতি হতে লাগলো। স্থানীয়দের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠলেন তিনি।

১৯৭১ সালে যখন সংযুক্ত আরব আমিরাত গঠিত হলো, তিনি আরও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পেলেন।

এরপর তিনি নিজেই স্বাস্থ্য খাতে উদ্যোক্তার ভূমিকায় নামলেন। এখন তিনি তিনটি বড় হাসপাতালের মালিক।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের শাসকরাই তাকে সেদেশে হাসপাতাল প্রতিষ্ঠায় উৎসাহ যোগান।বাই এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতি একটা আলাদা স্থান রয়েছে তাঁর হৃদয়ে।

এখন তিনি অনেকটা সেমি-রিটায়ার্ড জীবন যাপন করছেন। বেশিরভাগ সময় কাটে শারজায়। সেখানে প্রতিদিন দু ঘন্টা অন্তত নিজের হাসপাতালে গিয়ে কাজ করেন।

তবে নিজের ভারতীয় পাসপোর্ট এখনো আছে তার। নিজের জন্মভূমির সঙ্গে সম্পর্কের কথা তাকে মনে করিয়ে দেয় এটি।

কিন্তু তিনি কি ভারতে ফিরে যেতে চান?

"এখন আমি এখানকারই মানুষ। ভারতের সঙ্গে আমার সম্পর্ক থাকবে। সেখানেই আমার সব মানুষ। কিন্তু এখন আমার জায়গা এটাই।"- বিবিসি বাংলা

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

BRTA
Bay Leaf Premium Tea
Intlestore

নারীকথা -এর সর্বশেষ

Hairtrade