Bahumatrik :: বহুমাত্রিক
 
৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, সোমবার ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৪:৪৯ পূর্বাহ্ণ
Globe-Uro

জাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় খুলনায় সেরা ইয়াসমিন নাহার


১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার, ১২:৫১  এএম

শেখ হেদায়েতুল্লাহ, নিজস্ব প্রতিবেদক

বহুমাত্রিক.কম


জাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় খুলনায় সেরা ইয়াসমিন নাহার
ছবি : বহুমাত্রিক.কম

খুলনা : ‘ছোট বেলায় মা শিক্ষা দিয়েছেন তুমি মেয়ে বলে কেউ যেন বলতে না পারে ইয়াসমিন এ কাজ পারে না। সে কাজ পারে না। লেখাপড়ার পাশাপাশি নাচ, গান, বিতর্ক, অভিনয়, হামত নাত, গল্প বলা ও খেলাধূলাতেও সমান পারদর্শী হতে হবে। মায়ের সেই কথার উপর ভিত্তি করে সামনের দিকে এগিয়ে চলেছি। লেখাপড়ার সর্বশেষ পাঠ কৃতিত্বের সাথে শেষ করেছি। বাংলা বিষয়ে সম্মান শ্রেণিতে প্রথম বিভাগ ও স্নাতকোত্তর শ্রেণিতেও প্রথম বিভাগে উর্ত্তীণ হয়ে বর্তমানে শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে বিএড অধ্যয়ন করছি। ইতোমধ্যে তিনি এ সকল কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ শতাধিক পুরস্কার অর্জন করেছেন’

-এমনটাই বললেন বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা’র আয়োজনে জাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিভাগীয় পর্যায়ে চাম্পিয়ন হয়ে জাতীয় পর্যায়ে অংশ নিতে যাওয়া ইয়াসমিন নাহার স্বপ্না। আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর ঢাকাতে জাতীয় পর্যায়ের এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।

ইয়াসমিন নাহার স্বপ্নার গ্রামের বাড়ি। সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি থানার ধান্যহাটি গ্রামে। বাবা মোঃ আবুল হোসেন সরদার সার্ভেয়ার। জমি মাপের কাজ করেন। পাশাপাশি মৎস্যচাষও করেন। মা মমতাজ বেগম গৃহিণী। চার বোনের মধ্যে ইয়াসমিন ২য়।

ইয়াসমিন নাহার স্বপ্না একান্ত সাক্ষাতকারে বলেন, পড়াশুনা শুরু করি, বৈকরঝুটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে। ক্লাস ফোরের প্রথম সাময়িক পরীক্ষার পর নতুন বাড়ি কেনেন ধান্যহাটিতে বাবা বাড়ি কেনায় দাদা বাড়ি শোভনালী ছেড়ে চলে আসতে হয়। এখানে এসে চম্পাফুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হই। পরে "চম্পাফুল আচার্য প্রফুল্ল চন্দ্র মাধ্যমিক বিদ্যাপীঠে ৬ষ্ট শ্রেণিতে ভর্তি হয়ে সেখান থেকে ২০০৮ সালে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএসসি পাশ করে আশাশুনি ডিগ্রী কলেজ ( বর্তমানে সরকারি কলেজ) মানবিক বিভাগে ভর্তি হই।

তিনি জানান, ২০১০ সালে এইচএসসিতে কৃতিত্বের সাথে পাশ করে সরকারি বি এল কলেজে সম্মান বাংলা বিভাগ ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাই। অনার্স শিক্ষাবর্ষ ২০১৩-২০১৪ এ বাংলা বিভাগ থেকে প্রথম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হই। একই কলেজের একই বিভাগ হতে স্নাতকোত্তর ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষের ফলাফলেও আমি প্রথম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হয়েছি। বর্তমানে সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজে বি এড কোর্সের প্রশিক্ষণে আছি।

কৃতি এই শিক্ষার্থী জানান, পড়াশুনার পাশাপাশি ইয়াসমিন বাংলাদেশ বেতার খুলনা কেন্দ্রে উপস্থাপনা করছি। ২০১৩ সালে যুব-সম্ভারের মাধ্যমে বেতারে কথক হিসেবে কাজ করা শুরু করি, বর্তমানে উপস্থাপনা, কবিতা আবৃত্তি ও গোষ্ঠীভিত্তিক অনেক অনুষ্ঠান করছি! এছাড়া বিএল করেজের আবৃতি সংগঠণ বায়ান্নর সাথে যুক্ত রয়েছেন। বিঐর কলেজে অধ্যয়নকালে নাচ, গান, আবৃতি, াভিনয় বিতর্ক, হামদ, নাত, খেলা ধূলায় অংশ নিয়ে কৃতিত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ ঘওে তুলেছেন শতাধিক পুরস্কার।

২০১৭ সালে তিনি বি এল কলেজের গন্ডি পেরিয়ে প্রথম বাইরে প্রতিযোগিতা অংশ নেন। জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৭ তে কবিতা আবৃত্তিতে থানা ও জেলা পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হন। কিছুদিন পর বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার, আয়োজনে খুলনা বিভাগে কবিতা আবৃত্তিতে চ্যাম্পিয়ন এবং একক অভিনয়ে রানার্স-আপ হয়ে জাতীয় পর্যায়ে যাই এবং জাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ২০১৭ তে একক অভিনয়ে রানার্স আপ হয়ে জাতীয় পুরস্কার পান।

এবছরও বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা খুলনা এর আয়োজনে জাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ২০১৮ তে বিভাগীয় পর্যায়ে একক অভিনয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। তিনি আঁকাআঁকিতেও সমান পারদর্শী। সবচেয়ে বড় কথা কবিতা, গান , নাচ, অভিনয়, আঁকা এ সব নিজের চেষ্টাতে শিখেছি। তবে বি এল কলেজে এসে কবিতা আর অভিনয় নিয়ে চর্চা করেছেন।

তিনি বলেন, আমি সাহিত্যকে ভালবাসি। বাংলা নিয়ে পড়াশানা শেষ করেছি মাত্র কিছুদিন। বিচিত্র জীবন ভালোবাসি তাই ছোট বেলা থেকেই অভিনয় চর্চা করেছি। সেই ভালো লাগা থেকে খেলাধুলা শিখেছি তাস কার্ড, ক্যারাম, দাবা, ব্যাডমিন্টন, ভারসাম্য দৌড় ইত্যাদিতে অংশ নিয়ে ২০১৪, ২০১৫ও ২০১৬ সালে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ হয়েছি।

স্কুল কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার শিক্ষকদের কে দেখে পেশা হিসেবে শিক্ষকতাকে বেছে নেওয়ার ইচ্ছা আছে। আমি একজন বিসিএস ( শিক্ষা ) ক্যাডার হতে চাই এবং আদর্শ মানুষ গড়তে দেশ ও সমাজে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে চাই ।

 

বহুমাত্রিক.কম এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।